Link copied!
Sign in / Sign up
2
Shares

শীতকালে সানস্ক্রীণ লোশন বা জেল প্রয়োগ করার সঠিক নিয়ম


এখনকার ভয়ঙ্কর গরমে বা যেটুকুও শীত পড়ুক না কেন, রোদে বেরোলে সানস্ক্রীন ব্যবহার করেন না এমন মহিলারা খুব কমই আছেন। কিন্তু সত্যিই কি সবাই সঠিকভাবে সানস্ক্রীন প্রয়োগ করেন? সানস্ক্রীণ কোথায় মাখবেন বা কেমন করে মাখবেন সেটাও জানা প্রয়োজন। এককথায় যে ত্বক সূর্যালোকে উন্মুক্ত, সেখানেই সানস্ক্রীণ মাখতে হবে। এবং বেশ গাঢ় করে মাখতে হবে।

লক্ষ্য করলে দেখতে পাবেন ক্রিকেটাররা (বিশেষ করে সাদা চামড়ার ক্রিকেটার) যখন মাঠে নামে তখন এতো গাঢ় করে সানস্ক্রীণ মাখে যে তা টিভির পর্দায় পর্যন্ত দেখা যায়। শীত বা গ্রীষ্ম সব ঋতুতেই সানস্ক্রীণ মাখতে পারেন। মনে রাখতে হবে, এতে যেসব উপাদান রয়েছে তাইকন্তু কোনো কোনো ত্বকে এলার্জিজনিত উপসর্গ যেমন জ্বালাপোড়া ভাব কিংবা চুলকানি নিয়েও দেখা দিতে পারে।

ওষুধ খেতে যেমন কতটুকু খাবেন তা জানতে হয় এক্ষেত্রে জানা প্রয়োজন যে কতটুকু সানস্ক্রীণ আপনি মাখবেন। স্বাভাবিকভাকে ধরা হয় শুধু মুখমন্ডলে মাখলে কেবল এক চামচ সানস্ক্রীণই যথেষ্ঠ। কিন্তু যদি শরীরেও মাখতে চান তাহলে আরো আনুমানিক দুই চামচ মেখে দিলেই যথেষ্ঠ বলে বিবেচিত ।

 এইটা এখন আর দুষ্প্রাপ্য কোনো বস্তু নয়। আপনার আশেপাশের ওষুধের দোকানে কিংবা প্রসাধনী বিক্রি করে এমন যে কোনো দোকানেই আপনি এটা কিনতে পারবেন। এগুলোর গায়ে এসপিএফ মাত্রা লেখা থাকলে দেখে নিতে পারবেন আপনার ত্বকের জন্য সেটা মানানসই কিনা। তবে আমাদের দেশে যেসব সানস্ক্রীণযুক্ত ক্রীম কিনতে পাওয়া যায় তা গড়পড়তা ১৫ থেকে ৩০ মাত্রার মধ্যেই হয়ে থাকে।

সাধারণত আমাদের দেশের মহিলাদের বয়স ৩৫ এর মধ্যে হলে ৩০ মাত্রার এসপিএফ যুক্ত সানস্ক্রীন যথেষ্ট। বয়স ৩৫ এর ওপরে হলে ৪০ থেকে ৬০মাত্রার সানস্ক্রীন ব্যবহার করা উচিত।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon