Link copied!
Sign in / Sign up
5
Shares

স্তনদুগ্ধ পান বনাম বোতলে দুগ্ধ পান!


নতুন মায়েরা একটা অতি পরিচিত দ্বন্দ্বের মধ্যে নিজেদের খুঁজে পান যে তাদের শিশুকে স্তনদুগ্ধ পান করাবেন নাকি একটা ফর্মুলা ও দুধের বোতল দিয়ে নিজের কাজ সারবেন। বিভিন্ন উৎস থেকে দুই পদ্ধতির ই নানা সুবিধা ও অসুবিধা সংক্রান্ত উপদেশ আসে, যেটা আপনাকে আগের থেকেও বেশি পথভ্রষ্ট ও বিভ্রান্ত করে তোলে। সেই সব মায়েরা যারা হয়তো সঠিক রাস্তা খুঁজে পাচ্ছেন না, আশা করছি এটা সাহায্য করবে।

সুবিধা


স্তনপান

স্তন দুগ্ধ মায়ের থেকে শিশুটি নানা অ্যান্টিবডি যোগান দেয় যা তাকে ডাইরিয়া, কানের ইনফেকশন এবং শ্বাসতন্ত্রের ইনফেকনজনিত সমস্যার সাথে লড়তে সাহায্য করে।

এতে আপনার শিশুর জন্যে বহুল পরিমাণে পরিপোষক থাকে।

স্তনদুগ্ধ শিশু দেহে পাচিত ও হজম হাওয়া সহজ।

গবেষণায় জানা গিয়েছে যে সমস্ত শিশুদের স্তন পান করানো হয় তাদের স্থূলতা ও মধুমেহর মতো রোগে ভোগার ঝুঁকি কমে।

স্তনদুগ্ধ শিশুদের অ্যালার্জি ও শ্বাসকষ্ট হাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে।


বোতলে দুগ্ধ পান

এটা করা সুবিধা বিশেষ করে যেহেতু এটা মায়ের অনুপস্থিতিতে করা সম্ভব।

এটা মাকে নিজের কাজের সময় অনুযায়ী কাজ করতে সাহায্য করে কারণ দুধটা কোনো বেবি সিটার বা যে বাচ্চার খেয়াল রাখছে তার কাছে ছেড়ে গেলেই হলো।

এটা বাবার সাথে তার শিশুর বন্ধনকে দৃঢ় করে কারণ বাবারাও এটা করতে পারে। এটা বাবা মা দুজনের সাথেই সম্বন্ধ গড়ে তুলতে সাহায্য করে।

যেহেতু ফর্মুলা দুধ হজম হতে বেশি সময় নেয়, বোতলে যে সব শিশুদের দুধ খাওয়ানো হয় তারা কম দ্রুত ক্ষুধার্ত হয় এবং প্রায়শই বদমেজাজি হাওয়ার প্রবণতা কমে।

যেহেতু তারা ফর্মুলা দুধ খাচ্ছে তাই মায়েদের চিন্তা করার ব্যাপার থাকে যে তারা কি খাচ্ছে বা বাচ্চার ওপরে তার প্রভাব কি পড়বে।


অসুবিধা


স্তনপান

খাবার সময়ে সবসময়ে মায়ের উপস্থিতি অনিবার্য।

এটা অসস্তিকর হয়ে উঠতে পারে এবং মায়ের বেদনার কারণ হতে পারে।

মা যা খাচ্ছে তার প্রভাব বাচ্চার ওপরে পরে, তাই মায়েদের সতর্ক থাকতে হয় তারা কি খাচ্ছেন বা পান করছেন সেই ব্যাপারে।


বোতলে দুগ্ধ পান

দুধকে সঠিক তাপমাত্রায় গরম করা জরুরি যেটা কঠিন কাজ হতে পারে।

কিছু ক্ষেত্রে, বাচ্চারা ফর্মুলা দুধ সহ্য নাও করতে পারে।

বোতলে দুগ্ধ পান বাচ্চা ও বাবা মায়ের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনে পার্থক্যের কারণ হতে পারে।

বোতলের দুধ পান করানোয় অ্যান্টিবডি যোগান দেওয়ার মত সুবিধে নাও থাকতে পারে।

যেখানে এর সুবিধা এবং অসুবিধা দুইই রয়েছে, সেখানে গুরুত্বপূর্ণ হলো মা এবং শিশুর স্বাস্থের কথা মাথায় রাখা। যদি আপনার ব্যাথা হচ্ছে, আপনি সহজে আপনার শিশুকে দুধের যোগান দিতে পারবেন না যেটা আপনার শিশুর পক্ষে অস্বাস্থ্যকর আবার আপনার জন্যও অস্বস্থিকর। সেইসব ক্ষেত্রে, বোতলে ভরে দুধ খাওয়ানো আপনাদের দুজনকেই অনেকদূর অবধি সাহায্য করতে পারে। এটা আরো সুবিধার যদি আপনার কেরিয়ারে মনোযোগী মন থাকে, যেহেতু বেবি সিটার ও আপনার শিশুকে খাওয়াতে পারবে, মানে আপনার সব সময়ে উপস্থিতির কোনো প্রয়োজন নেই। উল্টোভাবে, খুব বেশি অন্যদের মাধ্যমে খাওয়ানো আপনার এবং আপনার শিশুর মধ্যে বন্ধনের ওপরে প্রভাব ফেলতে পারে। আপনার শিশু ফর্মুলা দুধ থেকে সঠিক পরিমাণে পরিপোষক না পেতে পারে বা যে দুধ আপনি কিনছেন তাতে সন্তুষ্ট নাও হতে পারে।

যেখানে চিকিৎসকের প্রথম কিছু মাস অন্তত স্তনদুগ্ধ পান করাতে বলেন, সেখানে আপনি দুটো মিশিয়েও করতে পারেন। এটা আপনাকে যখন আপনার স্তনপান বন্ধ করার সময় আসবে তখন সাহায্য করবে। আপনি বুঝতে পারবেন কখন আপনার শিশুকে স্তনপান করতে হবে বা কখন বোতলে দুধপান করানোটা প্রয়োজনীয় (যেমন যখন আপনাকে কাজে যেতে হয়)। এটা আপনাকে নিশ্চিত করতে সাহায্য করে যে আপনার শিশুর যা যা প্রয়োজন তাই পাচ্ছে, এবং আপনি নিজের ওপরে বেশি চাপ দিচ্ছেন না, বা নিজের ক্ষতি করছেন না। গুরুত্বপূর্ণ হলো আপনার এবং আপনার পরিবারের জন্য যেটা কাজ করছে সেটা খুঁজে বার করা। 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon