Link copied!
Sign in / Sign up
3
Shares

সন্তান জন্মানোর পর অর্থ সঞ্চয় - ৫টি পরামর্শ যা সাহায্য করে


শিশু জন্মানোর সঙ্গে সঙ্গে অনেক রকম খরচ বেড়ে যায়। এছাড়াও ভবিষ্যতের খরচ যেমন, পড়াশুনার খরচ, স্বাস্থ্য রক্ষা, দাঁতের পরিচর্চা ইত্যাদি মিলিয়ে আপনার কাছে বেশ ভারী হয়ে দাঁড়ায়। তাই, শিশুর জন্মের পর যে আশু খরচগুলির সম্মুখীন হতে হবে তার জন্য টাকা জমানো বুদ্ধিমত্তার কাজ। বেশীরভাগ অভিভাবকই প্রায়শঃ তাদের ছোট্ট শিশুর জন্য প্রয়োজনের বেশী খরচ করে ফ্যালেন।

যাই হোক, এখানে কয়েকটি পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে যা আপানাকে শিশু জন্মানোর পর টাকা জমাতে সাহায্য করবে।

 

১। গাড়ীতে একটি বেবী ব্যাগ রাখুন

আপনি নিশ্চিত করুন যে আপনার সঙ্গে সবসময় যেন একটি বেবী ব্যাগ থাকে যার মধ্যে সব প্রয়োজনীয় জিনিস গুলো রয়েছে। ব্যাগে সবসময় থাকা চাই সহজে ব্যবহার করা যায় এমন কয়েকটি ডায়পার, আপনার শিশুর জন্য হালকা কিছু খাবার, পাল্টে দেওয়ার মত কয়েকটি জামাকাপড়। যদি আপনি কোন কারণে এই জিনিসগুলি সঙ্গে নিতে ভুলে যান, তবে তা কেনার জন্য অহেতুক আপনাকে কিছু টাকা খরচ করতে হবে। তাই আপনি নিশ্চিত করুন যেন আপনার কাছে প্রয়োজনীয় জিনিসসহ একটি ব্যাগ সবসময় থাকে।

 

২। আপনার শিশুর খাবার নিজে তৈরি করুন

নিজেই শিশুর খাবার তৈরি করা যতটা ভাবছেন ততটা কঠিন নয়। নতুন মায়েরা সেরেল্যাক এবং অন্যান্য শিশু খাদ্যের বোঝা বাড়াতে ভালবাসেন যদিও এগুলি খরচসাপেক্ষ এবং অকারণ বোঝা। সেইজন্য আপনার পক্ষে কিছু খাবার বানিয়ে নেওয়া ভালো, যেমন আপেল বা কলার স্ম্যাশ। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হচ্ছে বিস্কুট। আপনার শিশু যেসব বিস্কুট খেতে শুরু করেছে তার সব প্রকারের কয়েটি করে বিস্কুট একটি বাতাস নিরোধক পাত্রে নিন কারণ সেগুলি খুব তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়ে যায়।

 

৩। আগে থেকে শিশুর জামাকাপড় কিনবেন না

এই পর্যায়ে শিশু খুব দ্রুত বাড়তে থাকে, অর্থাৎ তার ব্যবহার্য জিনিসপত্রের মাপের তুলনায় সে বেশি বড় হয়ে ওঠে। তাই তার জন্য জিনিস কেনার সময় একই মাপের একাধিক জামাকাপড়, জুতো ইত্যাদি কেনার থেকে বিরত থাকা ভাল। প্রতিবার এক একটি করে কিনুন। এই ব্যপারে একটি পরামর্শ দিচ্ছি যা কাজে লাগতে পারে - কয়েকটি জামাকাপড় তার বর্তমান মাপের থেকে একটু বড় এবং কয়েকটি তার বর্তমান মাপের কিনতে পারেন। এই ভাবে সে একটু বড় হয়ে উঠলে বড় মাপের জামাকাপড়গুলি ব্যবহার করতে পারবেন এবং সেই একই পদ্ধতির পুনরাবৃত্তি করতে পারবেন। এইপ্রকারে জামাকাপড় নষ্ট হবে না এবং টাকারও অপব্যয় রোধ করা যাবে।

 

৪। একসঙ্গে অনেক ডায়াপার কিনুন

যদি আপনি এই পরামর্শটাকে শোনেন তবে আপনি পরিশেষে লাভবানই হবেন। ডায়াপার যখন দরকার তখনই প্রয়োজনমতো কেনার থেকে একসঙ্গে বড় প্যাকেট কিনে রাখলে আপনার খরচ কমে যাবে। এটি নিতান্তই সহজ হিসাব। তাহলে এরপর আপনি যখন আপনার বাচ্চার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে যাবেন তখন নিশ্চয়ই ডায়াপারের ক্ষেত্রে বড় প্যাকেট কিনে আনবেন।

 

৫। ইলেক্ট্রনিক মাধ্যমের সাহায্যে কেনাকাটা করুন

এই মতের পিছনে দুটি উদ্দ্যেশ্য আছে। প্রথমত, আপনি কেনাকাটার বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে ভাল মাত্রায় ছাড় পেতে পারেন এবং তা শুধু জামাকাপড়ে সীমাবদ্ধ নয়। মুদি খানার দ্রব্য কেনা যায় এমন ইলেক্ট্রনীক বাজার ও আছে যেমন “জপ নাও” (ZOP Now) বা “অ্যামাজন নাও” (Amazon Now)। এই ওয়েবসাইটগুলিও প্রচুর ছাড় পাওয়া যায় এবং আপনিও নিজের প্রয়োজন মত জিনিস কিনতে পারেন। দোকানে গিয়ে কেনার সময় চোখের সামনে অনেক জিনিস থাকার জন্য অনেক সময়ই আপনি প্রয়োজন থেকে বেশি কিনে ফ্যালেন। ওয়েবসাইট থেকে কেনার ক্ষেত্রে এটা এড়ানো যায়। অনলাইন বাজারের আর একটি সুবিধা এই যে আপনাকে আপনার শিশু, যে প্রায়ই কাঁদতে থাকে, তাকে নিয়ে সুপার মার্কেটে বা স্টোরে যেতে হয় না এবং আপনার শিশুও অচেনা লোকেদের মুখ দেখে ভয় পাওয়ার হাত থেকে রেহাই পায়। এই পদ্ধতিতে আপনি খুশী, আপনার শিশু খুশী এবং আপনার টাকার ব্যাগেরও স্বস্তি।

 

উপরে দেওয়া পদ্ধতিগুলি ছাড়াও আরো অনেক রাস্তা আছে যেভাবে শিশু জন্মানোর পর আপনি টাকা জমাতে পারেন। শিশুর শিক্ষার খরচ মেটানোর জন্য সেভিংস অ্যাকাউন্ট খুলুন বা কোন মিউচ্যুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করুন। আপনি প্রতিবেশী অভিভাবকদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে পারেন, এইভাবে আপনি পারস্পরিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারেন এবং নিজেদের প্রয়োজনে বা নিজেদের অনুপস্থিতিতে পরস্পকে বেবীসিটারের দায়ীত্ব দিয়ে/নিয়ে এই খরচ কমাতে পারেন। পরিজনদের এবং বন্ধুদের মধ্যে জামাকাপড় এবং খেলনা বদল করেও আপনি অনেক খরচ কমাতে পারেন।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon