Link copied!
Sign in / Sign up
3
Shares

সদ্যোজাত শিশুর যত্ন নেওয়ার জন্য ১০টি সাধারণ কৌশল


এটি আসলেই খুবই অসহায় অবস্থা যখন আপনার শিশু ব্যথা এবং অস্বস্তিতে কষ্ট পাচ্ছে। আপনার সন্তান যতই স্বাস্থকর হোক তার পেটে বেথা হওয়া স্বাবিক। এখানে চিন্তার কিছু নেই, তবুও সন্তানের কান্না আপনার কাছে কষ্টকর। নিচে ১০টি উপায় বলা হলো যা আপনার শিশুকে কষ্ট থেকে মুক্তি দিতে পারে।

দ্রষ্টব্যঃ : প্রত্যেক শিশুর জন্য একই পন্থা কাজ নাও করতে পারে, কারণ প্রতিটি শিশুর বৈশিষ্ট আলাদা।

১.গরম জল

পেটে ব্যথা হলে শিশুর পেটের ওপর গরম জলের থলি নিয়ে সেঁক দিতে পারেন। উষ্ণতা শিশুর ওপর ভালো প্রভাব ফেলে। আপনার কাছে যদি গরম জলের ব্যাগ না থাকে তবে গরম জলে তোয়ালে দিয়ে সেঁক দিতে পারেন।

২. মালিশ

অনেক সময় গরম তেল মালিশ শিশুর পক্ষে আরামদায়ক। তবে আপনি ঠিক করবেন যে আপনার শিশু কিধরনের প্রতিক্রিয়া দিচ্ছে। যদি শিশু এতে অস্বস্তি বোধ করছে তবে এটি না করাই ভালো।

৩.গর্ভাবস্থা পুনঃস্থাপন

গর্ভ আপনার শিশুর জন্য সবচেয়ে নিরাপদ স্থান। যদি আপনি একটি গর্ভাবস্থার পরিবেশের পুনরুজ্জীবিত করার চেষ্টা করেন এবং মিষ্টি শব্দ বাজিয়ে আপনার বাচ্চাকে কিছু আরামদায়ক অনুভূতি দিতে পারেন।কারণ বাচ্চা সাধারণত গর্ভে থাকার সময় সময় মৃদু শব্দ শুনতে পায়।

৪. শান্ত

কখনও কখনও, একটি শান্ত পরিবেশ সন্তানের কাছে আরামদায়ক হতে পারে। এমন হতে পারে যে বাচ্চা কিছু সময় বিশ্রাম পেতে চাইছে কিন্তু আশেপাশে খুব বিরক্তিকর পরিবেশ এতে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে । শান্ত পরিবেশে শিশুর বৃদ্ধি তীব্র ও তীক্ষ্ণ হয়।

৫. ঘুরে বেড়ানো

কোনো এক সময়ে শিশু খুববেশি নড়াচড়া করতে থাকে। তাই এই সময়ে আপনি শিশুকে দোনলা বা আপনার নিজের সাথে সামনে অথবা পেছনে বেঁধে রাখতে পারেন।

৬. কোথাও ঘুরতে নিয়ে যাওয়া

এটি আপনি চেষ্টা করে দেখতে পারেন। আপনার সন্তানকে নিয়ে কোথাও ঘুরতে যান। অন্য রকম পরিবেশ দেখে সে হয়তো কিছুটা স্বস্তি পেতে পারে। তবে খুব বেশি যানবাহন চলাচল করে এমন কোনো স্থানে যাবেন না।

৭. অবস্থান

আপনার শিশুর অবস্থান পরিবর্তন করাও অনেক সময়ে সাহায্য করতে পারে। এটা সম্ভব যে শিশুর অন্য অবস্থানে আরো আরামদায়ক কিন্তু সে নিজে করতে অক্ষম। শিশুকে পেছন দিক করে সোয়াবার চেষ্টা করুন,যতক্ষণ না সে আরাম অনুভব করে তার অবস্থার পরিবর্তন করুন।

৮. আশ্লেষে জড়ানো

স্বাদডলিং (Swaddling) একটি প্রাচীন উপায় যা শিশুকে সজীব করে রাখে এবং পরিবেশ থেকে রক্ষা করে। বাচ্চা পড়ে যেতে পারে এবং ঘুমিয়ে থাকার সময়ে এটি একটি কম্বল বা কাপড়ের মধ্যে সঠিকভাবে আবৃত হয়। সোয়াডিলাড শিশুটিকে হালকা ভাবে দোলাতে থাকে এবং তাই শিশুর জেগে উঠার সম্ভাবনা কম থাকে।

৯. স্নান করানো

আপনার সন্তানকে গরম জল দিয়ে স্নান করানোর চেষ্টা করুন। বলা হয় যে যদি আপনি আপনার বাচ্চার পিঠের গরম জল দিয়ে সেঁক করেন তবে শিশুটিকে আরাম দিতে সহায়তা করে।

১০.সান্ত্বনাকারী

সাধারণত আপনি আপনার শিশুর আঙ্গুল চোষা পছন্দ করেন না। এবং আপনিও চাইবেন না যে এটি শিশুর অভ্যেসে পরিণত হোক। কিন্তু এতে যদি আপনার শিশুর পেটে ব্যথার কারণ হয় তবে তাকে বারণ করুন এবং খেয়াল রাখুন।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon