Link copied!
Sign in / Sign up
3
Shares

শিশুকি মানসিক ভাবে অসুস্থ!


মানসিক অসুস্থতা বলতে বোঝায় আচরণগত কারণে কোনো মানুষ জীবনের ভিন্ন ভিন্ন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে পারেন না। এমনকি প্রায় প্রায়ই রাগে ফেটে পড়া, উদ্বেগ এবং আতঙ্কগ্রস্ততা এসবকেও মানসিক রোগ হিসেবেই গণ্য করা হয়। আর মানসিক রোগ সম্পর্কে সবচেয়ে শকিং বিষয়টি হলো যে মানসিক রোগে আক্রান্ত সে নিজেও জানতে পারেন না যে সে মানসিক রোগে ভুগছেন।

মস্তিষ্কের জন্য স্বাস্থ্যকর এবং ভারসাম্যের সহায়তা করতে পারে একটি খাদ্যাভ্যাস। আর মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য ভালো থাকলে সন্তানও মানসিকভাবেও সুস্থ থাকবে।

কোন খাবার খেলে মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য ভালো রাখা যায়

১. চিয়া সিড

এতে আছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড। যা অবসাদ এবং এডিএইচডি এর মতো মানসিক বিশৃঙ্খলা দূরে রাখে। এই উপাদানটি মস্তিষ্ককে ভাইরাস সংক্রমণ থেকেও মুক্ত রাখে এবং কোষগুলোর মধ্যে যোগাযোগ বাড়ায়। যার পরিণতিতে স্মৃতিশক্তিও বাড়ে।

২. ডিম

এতে আছে ফলিক এসিড, বায়োটিন এবং কোলিন যা মস্তিষ্ককে স্বাস্থ্যবান রাখতে জরুরি। এছাড়া এসব উপাদান মস্তিষ্কের কোষ এবং স্নায়ুর উন্নয়ন ঘটাতেও সহায়ক ভুমিকা পালন করে।

৩. দই

এই খাবারটি আমদের হজম প্রক্রিয়াকে স্বাস্থ্যবান রাখে। যার ফলে আমাদের মস্তিষ্কের আবেগগত তৎপরতাকে প্রভাবিত করে দই। ফলে দই খেলে মানসিক চাপ এবং উদ্বেগ দূরে থাকে। দই মানুষের মেজাজ-মর্জিকে সরাসরি প্রভাবিত করে। প্রো-বায়োটিক উপাদান বেশি খেলে স্ট্রেস হরেমোনের নিঃসরণও হয় কম।

৪. ব্রকলি

এতে আছে মস্তিষ্কের জন্য উপকারি বেশ কয়েকটি উপাদান। এতে আছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম যা মস্তিষ্কের তৎপরতা বাড়ায় এবং মস্তিষ্কের তারুণ্য ধরে রাখে।

৫. সবুজ শাক-সবজি

বলা হয়ে থাকে প্রতিদিন ভালো পরিমাণে সবজি খেলে স্মৃতিভ্রংশ রোগে দূরে থাকে। সবুজ শাক-সবজিতে থাকে ভিটামিন কে যা মস্তিষ্কের জন্য খুবই উপকারী।

৬. বাদাম

বাদামে আছে উচ্চ মাত্রার ম্যাঙ্গানিজ, সেলেনিয়াম এবং কপার। এসব উপাদান মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বাড়ায় এবং মানসিক রোগ দূরে রাখে।

৭. ডার্ক চকোলেট

মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল বাড়ায় ডার্ক চকোলেট। কারণ এতে আছে কোকো। যা স্মৃতিশক্তি বাড়াতেও সহায়ক। আর এতে থাকা ফ্ল্যাবোনয়েড মস্তিষ্কের তারুণ্য ধরে রাখে।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon