Link copied!
Sign in / Sign up
0
Shares

বাচ্চাকে স্তনপান করিয়ে ঘুম পাড়ানোর কিছু ভালো ও কিছু মন্দ দিক


যে কোনও মায়ের জন্যেই ব্রেস্টফীড করানোটা মাতৃত্বের অনুভূতিগুলোর মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশ। তবে স্তনপান করানোর প্রথম দিনগুলো বেশ কঠিন হতে পারে। কিন্তু ক্রমশ এই ব্যাপারগুলো সহজ হয়ে আসে আর স্তনপান করানোর অভিজ্ঞতাও হয়ে ওঠে সুন্দর। তবে শিশুর জন্মের পর প্রথম কয়েক মাস ব্রেস্টফীড করিয়ে ঘুম পাড়ানোর ব্যাপারটা অবশ্য স্বাভাবিক। কিন্তু বয়স বাড়ার পরেও যখন শিশুদের এই অভ্যাসটা রয়ে যায়, তখন অনেকের জন্য সেটা চিন্তার কারণ হয়ে ওঠে।

স্তনপান করানোর ভালো দিকগুলো কী কী?

মায়ের বুকের কাছে ঘুমোনোর সময় বাচ্চারা নিরাপদ ও নিশ্চিন্ত বোধ করে, আর সহজে ঘুমিয়েও পড়ে। ব্রেস্টফীডিংয়ের সময় শিশুরে মায়ের মমতা ভরা স্পর্শ অনুভব করতে পারে এবং এই স্নেহ-স্পর্শে শিশু নিশ্চিন্তে ঘুমোতে পারে। এতে মা এবং সন্তানের সম্পর্ক আরও নিবিড় হয়ে ওঠে। মায়ের এই স্পর্শ শিশুর ঘুমের জন্য আদর্শ। আবার বাচ্চাদের মেজাজ ঠিকঠাক না থাকলে বা তারা খিটখিটে হয়ে উঠলে, তারা অনেক সময় ব্রেস্টমিল্ক খোঁজে। ব্রেস্টমিল্ক বাচ্চাদের শান্ত করে আর তাদের খিটখিটে মেজাজকে ঠাণ্ডা করতে সাহায্য করে। এতে তাদের ঘুম পাড়াতে সুবিধে হয়। বিশেষত দুরন্ত বাচ্চাদের ঘুম পাড়ানোর জন্য ব্রেস্টফীডিং বেশ কার্যকরী। পুষ্টিগত দিক দিয়েও ব্রেস্টমিল্ক হচ্ছে শিশুর জন্য সবচেয়ে উপকারী খাবার। রাতের দিকে ব্রেস্টফীড করানোটাই আপনার শিশুর জন্য সবচেয়ে উপকারী হতে পারে।

খারাপ দিকগুলো কী কী?

ব্রেস্টমিল্ক খাইয়ে বাচ্চাদের ঘুম পাড়ানোর সবচেয়ে খারাপ দিক হচ্ছে ওদের স্বাভাবিক ঘুমের নিয়মে ব্যাঘাত ঘটা। এই ভাবে ঘুম পাড়ানোর ফলে আপনার শিশু মনে মনে ঘুমের সঙ্গে ব্রেস্টমিল্ক খাওয়ার সোজাসুজি সম্পর্ক আছে বলে ধরে নেয়। তখন সে কিছুতেই আর নিজে থেকে ঘুমোতে চাইবে না। তবে এ নিয়ে বেশি দুশ্চিন্তার কিছু নেই, বাচ্চা সঠিক বয়সে এলে সব কিছু আপনা থেকেই ঠিক হয়ে যাবে।

কিন্তু ঘুমোনোর সময় ব্রেস্টমিল্ক খাওয়ার অভ্যাস যদি না কাটতে চায় তাহলে আপনাকেই ঘুমের সময় ব্রেস্ট ফীডিং বন্ধ করতে হবে। কারণ অভ্যাসের বশবর্তী হয়ে বাচ্চারা রোজই ঘুমোনোর সময় জেদ ধরতে পারে ব্রেস্টমিল্কের জন্য। আপনাকে ধৈর্য ধরে ওকে এই অভ্যাসের থেকে বের করে আনতে।

আর বাচ্চাকে নির্দিষ্ট সময়ে ঘুম পাড়ানোর অভ্যাস করাতে পারলেই ওর ঘুমের আগে ব্রেস্টমিল্ক খাওয়ার নেশাও কমে আসবে।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon