Link copied!
Sign in / Sign up
3
Shares

আপনার নবজাত শিশুর হিচকি বন্ধ করার ৫ টি উপায়

আপনি যখন আপনার নবজাতকটিকে নিজের হাতে ধরেন এবং তার কিউট মুখের দিকে তাকান তখন যেন মনে হয় মুখটাকে শুধু আদরই করে যেতে। হিক! হিক! আপনি শুনতে পান এবং এটা চলতেই থাকে। আপনি তার চোখে মুখে অদ্ভুত এক অস্বস্তি লক্ষ্য করেন এবং বুঝে উঠতে পারেন না এরপর কী করা উচিত।

নবজাতকদের মধ্যে হিক্কা ওঠাটা খুব সাধারণ ব্যাপার এবং আশ্চর্যের বিষয় হলো, আপনার শিশু যখন আপনার গর্ভে থাকে তখনও তার হিক্কা উঠতো। ফিটাস-এরও হিক্কা ওঠে এবং আপনি তা গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিক কাল থেকে অনুভব করতে ও বুঝতে শুরু করবেন। আপনার গর্ভে, হিক্কা হলো গ্রাসকারী অ্যামনিওটিক ফ্লুইড-এর ফলাফল কিন্তু বাইরের জগতে, হিক্কা ওঠার বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে।

 

১. গ্যাস্ট্রোফাগিয়েল রিফ্লাক্স

এটা একধরনের অবস্থা যেখানে স্টমাকের ভেতরের খাদ্যবস্তু এসোফ্যাগাসের দিকে যাত্রা করে। যেহেতু শিশুদের পরিণত এসফ্যাগিয়াল স্ফিংটার থাকে না, তাই একটা রিফ্লাক্সের সৃষ্টি হয়। এটা অ্যাসিডকে উদ্দীপিত করে এবং খাদ্যের পশ্চাৎপ্রবাহ ডায়াফ্রাম-এর চারদিকের স্নায়ুকে উদ্দীপিত করে যার ফল হলো হিক্কা।

২. অতিরিক্ত খাওয়ানো

এটা স্তনদুগ্ধের কারণেও হতে পারে এবং এটা স্টমাকের স্ফীতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। হটাৎ জন্ম নেওয়া কোনো স্ফীতি ডায়াফ্রামকে প্রসারিত করে যা থেকে ডায়াফ্রাম-এর চারদিকে খিঁচুনির সৃষ্টি হয় এবং তা হিক্কাতে পরিণত হয়।

৩. দূষিত বায়ু

শিশুদের রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থা এবং শ্বাসতন্ত্র অনেকটাই সংবেদনশীল হয়। সুতরাং ধোঁয়া, গাঢ় সুগন্ধির মতো দুষকগুলি শিশুদের কাশির এবং শ্বাসকষ্টের কারণ হয়ে ওঠে যা হিক্কায় পরিণত হয়।

 

৪. অতিরিক্ত বায়ু গ্রহণ

যদি আপনার শিশুকে আপনি বোতলে দুধ খাওয়ান, তাহলে তার একসাথে অনেকটা বাতাস গিলে নেওয়ার আশঙ্কা থাকে। এর কারণ হলো বোতলের দুধের থেকে আপনার স্তনদুগ্ধ ধীরে প্রবাহিত হয়। সুতরাং, অতিরিক্ত বায়ু গ্রহণ অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণের মতোই প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। এটা আপনার শিশুকে বিরক্ত করে এবং হিক্কার সৃষ্টি করে।

এখন যখন আপনি আপনার নবজাত শিশুর হিক্কা ওঠার সম্ভাব্য কারণগুলো জেনে গেছেন, আপনি সহজেই তাদের সাহায্য করতে পারবেন।

তাদের হিচকির সাথে মোকাবিলা করার উপায়:-

 

১. শিশুটির পিঠে মালিশ করুন

আপনার শিশুকে সোজাভাবে বসান এবং তার পিঠে মালিশ করুন। পিঠের নীচের অংশ থেকে সার্কুলার ভাবে মালিশ করতে করতে ওপরে দিকে কাঁধ পর্যন্ত উঠুন। বেশি চাপ দেবেন না কারণ আপনার লক্ষ্য হলো ডায়াফ্রামকে শিথিল করে তার হিক্কার উপশম করা।

২. তাকে একটু চিনি দিন

এটা হলো হিক্কা ঠিক করার একটা পুরনো পদ্ধতি। যদি আপনার শিশু কঠিন খাবার খেতে অভ্যস্ত হয়, তাহলে তাকে খাবার জন্য কয়েক দানা চিনি দিতে পারেন। যদি তা সম্ভব না হয়, টাটকা চিনির জল তৈরি করুন এবং তাতে আপনার আঙ্গুল বা তার প্যাসিফিয়ারটা ডুবিয়ে তাকে সেটা চাটতে বা চুষতে দিন।

চিনিতে কিছু উপাদান আছে যা ডায়াফ্রাম-এর উত্তেজনাকে প্রশমিত করে হিক্কা বন্ধ করতে সহায়তা করে।

 

৩. শিশুটিকে অন্যমনস্ক করুন

পিক-এ-বু -এর মতো ছোট্ট খেলা গুলো সব সময়ে বিস্ময়কর ফল দেয়। যখনই আপনার শিশুর হিক্কা উঠবে, তাদেরকে তাদের প্রিয় খেলনাগুলো দেখান বা উজ্জ্বল রঙের জিনিসপত্র দেখান, এটা তাদের সহজেই অন্যমনস্ক করবে।

একটু স্নায়বিক পরিবর্তন আপনার শিশুকে শান্ত করতে এবং তার হিক্কার তীব্রতাকে কমাতে সাহায্য করে।

৪. গ্রাইপ ওয়াটার ব্যাবহার করুন

যদিও গ্রাইপ ওয়াটারের গুণাগুণের কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই, তবুও এটা শিশুদের পেটের সমস্যার সমাধানের জন্য পরিচিত। এটা মায়েদের জগতের একটা খুব জনপ্রিয় বস্তু কারণ এটা প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই হিক্কার প্রশমন করে। গ্রাইপ ওয়াটার কে একটু সাধারণ জল দিয়ে পাতলা করুন এবং সেটা আপনার শিশুকে দিন।

 

৫. খেতে খেতে আপনার শিশুকে কখনোই ঘুমোতে দেবেন না

বোতলের দুধ স্তনদুগ্ধের মতো কাজ করে না যেখানে দুধ একমাত্র চোষনের ফলেই বেরিয়ে আসে। বোতল থেকে দুধ বেরিয়ে আসতেই থাকে এবং এটা হিক্কার কারণ হয়ে দাঁড়ায় কিন্তু এটা দাঁতে পোকা লাগার দিকেও এগিয়ে নিয়ে যায়।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon