Link copied!
Sign in / Sign up
5
Shares

শিশুদের মধ্যে ফ্লাট হেড সিন্ড্রোম প্রতিরোধ করবেন কিভাবে?


আপনার সন্তানের আগমন আপনাকে সুখের সঙ্গে পূরণ করিয়ে তোলে এবং আপনি একটি জীবন তৈরি করেছেন, এই সত্য আপনাকে আশ্চর্য করে তোলে। আপনি একটি ক্ষুদ্র মানুষ তৈরি করেছেন! এটা আশ্চর্যজনক, তাই না? আপনি সম্ভবত তার সবকিছুই লক্ষ্য করেন - ১০টি হাতের আঙ্গুলের, ১০টি পায়ের আঙ্গুল, একটি ছোট নাক, পাতলা ঠোঁট এবং সেই চোখ যা আপনার দিকে অদ্ভুতভাবে তাকেই থাকে। কিন্তু আপনার বাচ্চার মাথাটি কি এমন কিছু যা আপনাকে উদ্বেগ করে তুলেছে বা তুলতে পারে?

ফ্ল্যাট হেড সিন্ড্রোম কি?

ফ্ল্যাট হেড সিনড্রোমকে প্ল্যাগিওসিফালি নামেও বলা হয় যেখানে একটি শিশুর মাথাটি অদ্ভুত আকৃতির হয় বা মাথাটি চ্যাপ্টা মত হয়। জন্মের সময় এটি বিশেষ করে হয়ে থাকে কারণ এটি শিশু ডেলিভারির সময় মাথার ওপর অনেক চাপ পায়। ক্যান্সারের মাধ্যমে প্রবাহিত হয়। এই ধরণের মাথা সাধারণত নরম হয়।

নবজাতকদের দুর্বল ঘাড়ে পেশী রয়েছে, তাই তারা যখন প্রতিবার একই অবস্থানে ঘুমাচ্ছে, তখন এটি নরম মাথার খুলি উপর চাপ দেয় এবং মাথা চ্যাপ্টা হয়ে যায়। এটিকে অবস্থানগত প্ল্যাগিওসিফালি বলা হয়। এই চেপ্টা জায়গাটি বেশিরভাগ সময় বিছানার সঙ্গে যোগাযোগ থাকে, মাথার সেই এলাকায় হয়।

কখনও কখনও শিশুদের গর্ভের মধ্যে ঘুরানের কম জায়গা থাকার ফলে অবস্থানগত প্ল্যাগিওসিফালি হয়ে থাকে। এটি বিশেষ করে তখন হয় যখন একজন মহিলা তার গর্ভে যমজ বাচ্চা ধারণ করেন।

আপনি কখন পদক্ষেপ নেবেন?

যদি জন্মের সময় মাথা চ্যাপ্টা হয়ে যায়, তাহলে আপনাকে অপেক্ষা করে দেখতে হবে কোন পদ্ধতিটি গ্রহণ করা উচিত কারণ ৬ সপ্তাহের মধ্যে এটি নিজে থেকে সংশোধন হয়ে যায়। তবে যদি ৬ সপ্তাহের বেশি হয়ে থাকে তাহলে সেটি অবস্থানগত প্ল্যাগিওসিফালি।

আপনার বাচ্চা যদি অনেক বেশিক্ষন ঘুমিয়ে থাকে তবে আপনার বাচ্চার একটি চ্যাপ্টা মাথা হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। কিন্তু সব শিশুদের একটি নিজস্ব মাথার আকৃতি আছে, তার মানে তারা ফ্ল্যাট হেড সিন্ড্রোমে ভুগছে তা নয়।

যখন তারা ছোট হয় তখন শিশুদের মধ্যে এটি সংশোধন করা সহজ হবে।

কিভাবে তা আটকাবেন?

১. যখন আপনার বাচ্চা ঘুমাচ্ছে তখন মাথায় রাখুন প্রতি ঘণ্টায় তার অবস্থান পাল্টান যাতে শিশুর মাথার দিকটার একই জায়গায় চাপ প্রয়োগ না হয়।

২. আপনার বাচ্চা জেগে থাকা কালীন কোলে নিয়ে তাকে রাখুন বা কোনো বেবি সীতার এ হেলান দিয়ে রাখুন সর্বদা বিছানায় না শুয়ে রেখে। এটি আপনার সন্তানের মাথা কঠিন জায়গায় যোগাযোগ থেকে সীমিত রাখবে।

৩. আপনার বাচ্চার ঘুমের স্থানগুলি পরিবর্তন করুন। কখনো দোলনা, কখনো যদি, কখনো তোশক এসবের মধ্যে বিকল্প ও পরিবর্তন করে শিশুকে ঘুমোতে দিন।

৪. যখন আপনার শিশু ঘুমন্ত হয়, তাকে আপনার বুকে রাখা উচিত। এইভাবে আপনার শিশুকে মাথার ওজন বহন করতে হবে না।

৫. প্রতিদিন কয়েক মিনিটের জন্য আপনার শিশুকে পেটের ওপর শুয়ে রাখুন তবে নিশ্চিত করুন যে পর্যাপ্ত শ্বাস-প্রশ্বাস সে নিতে পারছে।

৬. আপনার শিশুর খাওয়ানোর সময়, ক্রমাগত অবস্থান পরিবর্তন করুন যাতে চ্যাপ্টা জায়গাটির ওপর চাপ না পড়ে।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon