Link copied!
Sign in / Sign up
0
Shares

প্রসবের পরে, এই অঙ্গগুলি আপনার ঝুঁকি বাড়াতে পারে! বিস্তারিত জানুন ও সমাধান গ্রহণ করুন

গর্ভবতী হওয়া যেকোন মহিলার জন্য আনন্দ এবং চ্যালেঞ্জ পূর্ণ মুহূর্ত। এটি একজন মহিলার দ্বিতীয় জন্ম বললেই চলে। ডেলিভারির পর, নারীদেরকে বিশেষ যত্ন নিতে হয় যেমন খাদ্যের যত্ন, পরিচ্ছন্নতা এবং অন্যান্য ছোট ছোট জিনিসের যত্ন। একজন মা এবং সেইসঙ্গে একজন মহিলাের দায়িত্ব বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে তাকে তার সন্তানের বিশেষ যত্ন নিতে হয়, কারণ সন্তানের জন্মের পর মা ও শিশুর উভয়ের অনেকবিপদ থাকে। অতএব, মায়ের এমন কোন জিনিস না করাই উচিত যা তার সন্তানের পাশাপাশি তার সংক্রমণের প্রবণতা বাড়াতেপারে, এবং সংক্রমণ কেবল খাওয়ার কারণে নয় বরং মাঝে মাঝে স্পর্শের কারণেও হয়ে থাকে!

এই পোস্টে আমরা বলব যে, প্রসব বেদনার পর যেই অঙ্গটি স্পর্শ করা উচিত নয় তা যার ফলে সংক্রমণ হতে পারে।

সেলাই স্পর্শ করবেন না

যদি আপনার বাচ্চার সি-সেকশন থেকে প্রসব হয়ে থাকে তবে এটি স্পষ্ট যে আপনার প্রচুর অসুবিধা এবং অস্বস্তিকর পরিস্থিতি আসবে এবং আপনি আপনার সেলাইতে ক্রমাগত মনোযোগ দিতে চাইবেন কিন্তু এই মুহুর্তে আপনার নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ রাখা উচিত এবং মনে রাখবেন যে আপনার হাতটি আপনার সেলাইতে যেন বেশি না পড়ে।ভুল বশত যদি আপনি সেলাইতে স্ক্র্যাচ করে ফেলেন তবে এটি আপনার ব্যথার বৃদ্ধি করতে পারে, এবং শুধু তাই নয়, এতে আপনার বাচ্চাও সংক্রমিত হতে পারে। তাই সেলাই শুকনো এবং পরিষ্কার রাখুন এবং শিশুকে স্পর্শ করার আগে হাত পরিষ্কার রাখতে চেষ্টা করুন।

যোনি স্পর্শ করা এড়িয়ে চলুন

যদি আপনার স্বাভাবিক ডেলিভারি হয়ে থাকে, তবে আমরা বুঝতে পারি যে আপনার যোনিতে অনেক ব্যথার মুখোমুখি হতে হয়, পাশাপাশি রক্তপাতের সমস্যাও অত্যধিক অস্বস্তি বাড়িয়ে দেয়। এ কারণে ডাক্তার আপনাকে এন্টিসেপটিক ক্রিম লাগানোর পরামর্শ দেন, যার দ্বারা আপনি ব্যথা কমাতে পারেন। তবে মনে রাখবেন, আপনি আপনার যোনি যেন পরিষ্কার রাখেন এবং তারপর আপনার বাচ্চাকে স্পর্শ করার আগেভালো করে হাত ধুয়ে ফেলেন। নইলে আপনার শিশু সংক্রামিত হওয়ার ঝুঁকিতে থাকতে পারে। আপনার সেলাইতে যাতে কোন সংক্রমণ না হয়, তাই আপনি গরম জল দিয়ে স্নান করুন বা গরম জলে এন্টিসেপটিক ড্রপ ফেলে লাগান যাতে আপনার ব্যথা থেকে কষ্ট কমে এবং সংক্রমণের ঝুঁকিও কমে আসে।

স্তন স্পর্শ করবেন না

প্রসবের পরেস্তনে ব্যথা হতে পারে বা ফুলে যেতে পারে এবং সেই সময় আপনি সেগুলি স্পর্শ করতে চান বা ম্যাসেজ করতে চান, কিন্তু এগুলি এড়াতেচলুন, কারণ আপনার শিশু সম্পূর্ণভাবে আপনার বুকের দুধের উপর নির্ভরশীল এবং যদি আপনার হাত আপনার স্তন স্পর্শ করে তাহলে হাত থেকে জীবাণু আপনার শিশুর শরীরকে অসুস্থ করে তুলতে পারে। যদি আপনার ব্যথা আরও বেশি হয় তবে আপনি আপনার স্তনকে কোমল ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলতে পারেন যা আপনাকে আরাম দেবে।

নাক স্পর্শ করবেন না

এটা একটু আশ্চর্যজনক এবং অসহ্য মনে হতে পারে, তবে যদি আপনার ঠান্ডার সমস্যা হয় এবং যদি আপনি আপনার নাকে স্পর্শ করেন তবে আপনার জীবাণু সহজেই আপনার শিশু পর্যন্ত পৌঁছতে পারে এবং আপনার শিশু অসুস্থ হয়ে যেতে পারে। যদিও শিশুটি মায়ের দুধের উপর নির্ভরশীল, তাই মা যদি কোনো সমস্যায় ভুগে থাকে তবে শিশুটিও তার মধ্য দিয়ে যেতে পারে, তবে যদি আপনি নাক স্পর্শ করেন এবং তারপর আপনার বাচ্চাকে স্পর্শ করেন, তাহলে সমস্যাটি দ্রুত শিশু অবধি পৌঁছতে পারে।

অতএব, এটি গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি এই স্থানগুলি প্রসবের পরে স্পর্শ করবেন না কারণ এটি আপনার এবং আপনার শিশু উভয়কেই ক্ষতি করতে পারে।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon