Link copied!
Sign in / Sign up
4
Shares

পিঠের ব্যাথা উপশমের ৫টি প্রাকৃতিক উপায় জানতে চান?


শরীরের যেকোনো অংশের ব্যাথা আপনার কার্যক্ষমতা কমিয়ে ফেলতে পারে এবং আপনাকে প্রতিদিন সারাদিন ঠেলে দিতে পারে বিভ্রান্তি এবং ক্লান্তির দিকে। তবে পিঠের ব্যাথা হলো সত্যিই সব থেকে বাজে ধরনের ব্যাথা। এটা আপনাকে প্রচন্ড যন্ত্রণা দেয় এবং আপনার কার্যক্ষমতাকে অর্ধেকেরও বেশি কমিয়ে দেয়। এবং তাই, পিঠের ব্যাথা নিয়ন্ত্রণে আনার ব্যাপারে উদ্যোগ নেয়া ও সেটাকে পুরোপরিভাবে দূর করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এবং তাই, আপনাকে এই যন্ত্রণাদায়ক প্রক্রিয়াতে সাহায্য করতে, আমরা কিছু প্রাকৃতিক চিকিৎসার লিস্ট বানিয়েছি যা আপনাকে আপনার সমস্যার সাথে লড়তে সাহায্য করবে।


১. ব্যাথা থেকে বাঁচতে যোগাসন

বিশ্বাস করুন আর নাই করুন, যোগা কিন্তু আন্তর্জাতিক স্তরে স্বীকৃতি একটি শিল্প এবং এটা কোনো আক্রমণ বা ঝুঁকি ছাড়াই আপনার শরীরের উন্নতিতে সাহায্য করে।এটা আপনার মধ্যে পজিটিভ এনার্জির সঞ্চার ঘটিয়ে আপনাকে সক্রিয় এবং খুশি রাখে। আপনি আপনার শুধু মাত্র পিঠের ব্যাথা কমানোর কথা মাথায় রেখে যোগাসন করা শুরু করতে পারেন। বিশ্বাস করুন, অল্প সময়ের মধ্যেই আপনি হাতেনাতে ফল পাবেন।


২. চিরোপ্রাক্টরকে দেখাতে পারেন

চিরোপ্রাক্টিক্ চিকিৎসা আপনার দেহের গঠন, মূলত শিরদাঁড়ার গঠনকে, নিপুণভাবে বদলে দিয়ে আপনার পিঠের ব্যথার উপশম ঘটাতে পারে। এটাকে পিঠের ব্যথার ক্ষেত্রে কার্যকর পাওয়া গিয়েছে। কিন্তু, এটা মনে রাখা জরুরি যে একজন চিরোপ্রাক্টর তখনই আপনার সাহায্য করতে পারবে যদি আপনার ব্যথাটা যান্ত্রিক এবং পেশিগত হয়। যদি ব্যথাটা কোনো স্নায়ুর সমস্যা থেকে হয় তাহলে এই পদ্ধতিটি কার্যকর হবে না।


৩. দেহের অঙ্গভঙ্গি পরিবর্তন করে পেশীর ওপরে চাপ কমানোর মাধ্যমে

আপনি যে অঙ্গভঙ্গিতে দাঁড়ান বা বসেন তা আপনার পিঠের ব্যথার সমস্যায় একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আজকালকার দিনে যেহেতু সমস্ত কাজ কম্পিউটারে করতে হয়, আপনার অঙ্গভঙ্গির দিকে নজর রাখার আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু, আপনার পেশিগুলোকে শিথিল করার জন্য, আপনি অঙ্গভঙ্গির কিছু ব্যায়াম করতে পারেন যেমন ইমেজারি এক্সারসাইজ এবং শোল্ডার স্কুইজ। এতে ফল পেতে যদিও কিছুটা সময় লাগে তবে আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন, আপনি আপনার পিঠের ব্যাথাকে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হবেন।


৪. প্রাকৃতিক পেইনকিলার গ্রহণ করুন

একবার হজম হতে গেলে হলুদ এবং উইলো ভালো পেইনকিলার হিসেবে কাজ করার জন্য প্রসিদ্ধ। এবং সবথেকে বড়ো সুবিধে হলো এই প্রাকৃতিক উপাদানগুলি এলোপ্যাথি ওষুধের মতো আপনার শরীরের কোনো ক্ষতি করে না। এমনকি আপনি হলুদ দুধে মিশিয়েও খেতে পারবেন। ব্যাথা কমানোর পাশাপাশি, এটা আপনার পেশি এবং হাড়কে মজবুতও করবে।


৫. ব্যথার জায়গায় গরম এবং ঠান্ডা জলের সেঁক নিন

বেশিরভাগ সময়েই, পিঠের ব্যাথা পেশীতে খিল ধরা বা পেশীর প্রসারণের কারণে হতে পারে। গরম এবং ঠান্ডা সেঁক নেওয়ার দ্বারা আপনি আপনার পেশীকে শিথিল করতে সাহায্য করতে পারেন এবং তা আপনকে ব্যথার হাত থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। এমনকি আপনি গরম সেঁক নেওয়ার সাথে সাথে পিঠের মালিশও করতে পারেন যা পেশীগুলোকে খুলে গিয়ে ব্যথার উপশম ঘটাতে সাহায্য করে। আপনি যদি চান তো গরম জলে স্নান করতে পারেন বা গরম জলের টাবে বসেও থাকতে পারেন।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon