Link copied!
Sign in / Sign up
0
Shares

শিশুকে রক্ষা অন্যের ঘামের থেকে

ভাবছেন অন্যের ঘামের সঙ্গে রোগের কী সম্পর্ক? উত্তর পাবেন। তবে তার আগে একটা বিষয় জেনে রাখা উচিত যে, খেলার মাঠে, স্কুলের মধ্যে, স্কুলের গাড়িতে অথবা অন্য কোনো জায়গাতে আপন হয়তো আপনার সন্তানের প্রতি নজর রাখতে পারবেন না, সেই সময়ে অন্যের ঘাম আপনার সন্তানের শরীরে লাগতে পারে, সেই কারণ সন্তান বাড়ি ফেরার পর থাকে ভালো ভাবে পরিষ্কার করুন। আবার পাবলিক ট্রান্সপোর্টে কারও ঘাম সমেত হাতে ধরা হ্যান্ডেল সঙ্গে সঙ্গে ধরবেন না। এমনটা করলেও কিন্তু সমান ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।

কীভাবে অন্যের ঘামের থেকে নানাবিধ রোগ হওয়ার আশঙ্কা থাকে?

বেশ কিছু সংক্রমণ ঘামের মাধ্যমে এক জনের শরীর থেকে আরেক জনের শরীরে ছড়াতে পারে। আর এক্ষেত্রে যার শরীরে গিয়ে জীবাণু আক্রমণ করে, সে এই সম্পর্কে জেনেও উঠতেও পারেন না, যতক্ষণ না সেই রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। সেই কারণেই তো ভিড় বাসে অথবা অনেক লোকের মাঝে সাবধানে থাকুন।

এই ঘামের থেকে কি কি ধরণের রোগ হতে পারে আসুন জেনে নিই

১. এম আর এস এ

মেথিসিলিন রেজিসটেন্ট স্টেফিলোক্কাস অ্যারিয়াস বা এম আর এস এ নামক এই সংক্রমণটি মারাত্মক ভয়ঙ্কর। একবার কেউ যদি এই রোগে আক্রান্ত হয়, সহজে সেরে ওঠা একেবারেই সম্ভব হয় না। আর সবথেকে ভয়ের বিষয় হল ঘামের মাধ্যমে এই ইনফেকশনটি খুব অল্প সময়েই এক জনর শরীর থেকে আরেক জনের দেহে ছড়িয়ে যেতে পারে এবং একবার যদি শরীরে এই জীবাণুটি প্রবেশ করে যায়, তাহলে একে একে ইউরিনারি ট্রাক্ট, ফুসফুস এমনকী রক্তেও বিষ ছড়িয়ে যেতে পারে। আর কোনও সময় রক্তে যদি এই সংক্রমণ মিশে যায়, তাহলে জীবনহানির আশঙ্কা থাকে। এবার বুঝতে পারছেন তো গরমের সময় ঘাম কতটা ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে!

২. হেপাটাইটিস বি ভাইরাস

এত দিন মনে করা হত ঘাম এবং লালার মাধ্যমেই এই ভাইরাসের প্রসার ঘটে। কিন্তু এক রিপোর্ট অনুসারে ঘামের থেকেও হেপাটাইটিস বি ভাইরাস এক জনের শরীর থেকে আরেক জনের শরীরে গিয়ে বাসা বাঁধতে পারে। আর একবার যদি এই ভইরাস শরীরে এসে ঘর বানায়, তাহলে ধুম জর, ক্লান্তি, ক্ষিদে কমে যাওয়া, মাথা ঘোরা, বমি হওয়া, পেটে যন্ত্রণা, কালো প্রস্রাব হওয়া এবং পেট খারাপ হওয়ার মতো লক্ষণগুলি প্রকাশ পেতে শুরু করে।

৩. ভাইরাল ইনফেকশন

সরাসরি ঘামের সঙ্গে এই ধরনের সংক্রমণের যোগ না থাকলেও ভাইরাল ফিবারে আক্রান্ত রোগী যখন কাশেন বা হাঁচেন, তখন প্রচুর পরিমাণে ভাইরাস তার ত্বকের উপরে ছড়িয়ে পরে, যা পরর্বতি সময় ঘামের সঙ্গে মিশে গিয়ে খুব সহজেই অন্য কাউকে অসুস্থ করে তুলতে পারে।

৪. হার্পিস

এই চর্মরোগটির সঙ্গে তো সবাই পরিচিত। এই ত্বকের রোগটি কতটা ভয়ঙ্কর। আর সবথেকে ভয়ের বিষয় হল হার্পিস ঘামের মাধ্যমেও ছড়িয়ে পরতে পারে। তাই এমন রোগীদের একটু সচেতন থাকতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, তার কারণে যাতে অন্য কেউ এমন রোগে আক্রান্ত না হয়ে পারেন। এক্ষেত্রে হার্পিস রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি যতটা পরবেন ভিড় জায়গায় যাবেন না। সেই সঙ্গে পাবলিক ট্রান্সপোর্ট এড়িয়ে চলারও চেষ্টা করবেন।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon