Link copied!
Sign in / Sign up
9
Shares

লোভনীয় নিরামিষ রান্নার রেসিপি

বাঙ্গালী খাবার মানেই মাছের ঝোল আর কষা মাংস? আজ্ঞে না। বাঙ্গালী রন্ধন প্রণালী শাকাহারীদের ও স্বর্গ। এমন অনেক রান্না আছে যা মাছ-মাংসকেও হার মানিয়ে দেয়। আসুন জানুন তেমন কিছু রান্না যা নিরামিষ হলেও আপনার মুখে জল এনে দেবে।

১. সবজি পোলাও

উপকরনঃ নতুন আলু, গাজর ২-৩টি, মটরশুটি ১ বাটি, ফুলকপি ১ টি, পেঁয়াজ স্লাইস ৮ টি, গোল মরিচের গুড়ো ১ চা চামচ, লবণ দেড় টেবিল চামচ, ঘি ১ পোয়া, তেজপাতা ১ টি, দারুচিনি ১/৩ টুকরা, এলাচ ৪ টি, লবঙ্গ ৪ টি, পেঁয়াজ বাটা আধা কাপ, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, ধনে বাটা ১ টেবিল চামচ, পোলাও চাল ১ কেজি, কাঁচা লঙ্কা ৬ টি।

প্রনালীঃ প্রথমে আলু, গাজর ও মটরশুটির খোসা ছাড়িয়ে নিন। তারপর গাজর ও কপি টুকরা

করে নিন। আলু গাজর ও কপি আলাদা করে চারভাগের তিন ভাগ আন্দাজ মত সিদ্ধ করে নিন। পেঁয়াজ কুচি করে কেটে কড়াইয়ে ঘি দিয়ে বেরেস্তা করে নামিয়ে রাখুন। এবার কড়াইয়ে ঘি দিয়ে সবজি আলাদা করে সামান্য সিদ্ধ করে নিন। ভাজা সবজি একটি পাত্রে নিয়ে গোলমরিচ ও অল্প লবণ দিয়ে মিশিয়ে রাখুন। পোলাও এর হাঁড়িতে ভাজা ঘিয়ের সাথে আরও ঘি মিশিয়ে নিন। তারপর গ্যাস ওভেনে হাঁড়ি বসিয়ে তেজপাতা ও গরম মসলা দিয়ে নাড়তে থাকুন। উপকরনের বাটা মসলা দিয়ে কিছুক্ষন কষিয়ে নিন। মসলা কষানো হলে পোলাও-এর চাল দিয়ে ৫-৬ মিনিট ভেজে নিন। পরিমান মত জল, লবণ, মটরশুটি দিয়ে নেড়ে ফুটে উঠলে ঢেকে রান্না করুন। জল টেনে আসলে সবজি ও কাঁচালঙ্কা দিয়ে ঢেকে মৃদু আচে ২০-২৫ মিনিট ধরে রান্না করুন। আপনার পোলাও তৈরী।

২. মটরশুটি দিয়ে লাউ

উপকরনঃ লাউ, মটরশুটি, জিরা, লবণ, চিনি, দুধ বা ময়দা, ভাঁজা কুমড়ো বড়ির গুড়ো ও তেল।

প্রনালীঃ প্রথমে কচি লাউ খোসা ছাড়িয়ে সরু করে কেটে নিন। এবার লাউ ও মটরশুটি গুলো গরম জলে ভাপিয়ে নিন। তারপর কড়াইয়ে পরিমান মত তেল দিয়ে জিরা ফোঁড়ন দিয়ে ভাপানো লাউ, মটরশুটি, লবণ, সামান্য চিনি ও ভাঁজা কুমড়ো বড়ি ও সামান্য জল দিয়ে কষিয়ে নিন। সেদ্ধ হয়ে এলে ঘন দুধ বা ময়দা জল দিয়ে গুলে ঢেলে দিন। থকথকে হয়ে গেলে নামিয়ে ভাত দিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

৩. কাঁচাকলার বড়া

উপকরণ: (১০টি বড়ার জন্য )

কাঁচাকলা ২টি, ডিম ২টি, ৩টি পেঁয়াজ ও কাচামরিচ কুচি, লবণ পরিমানমতো ।

প্রণালী :প্রথমে কলা সিদ্ধ করে নিতে হবে। এখন সিদ্ধ কলার সাথে আটা বা ময়দা অথবা বেসন-এর সাথে আলতো করে পরিমানমতো নুন দিয়ে মাখাতে হবে এবং বড়ার মতো আকৃতি করতে হবে । এবার বড়াগুলো বেসনের বা কর্ন ফ্লাওয়ার বেটার বানিয়ে তাতে চুবিয়ে গরম ও ডুবো তেলে ভাজ়তে হবে। ভাতের সাথে গরম গরম পরিবেশন করুন।

মহিলাদের জন্য এটি খুবই উপকারী। গর্ভবতী মা ও ছোট শিশুদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় কাঁচা কলা থাকা দরকার। কাঁচা কলা ডায়রিয়া এবং রক্ত আমাশয় বা ব্লাড ডিসেন্ট্রিতেও উপকারী বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। তবে অনেকে আছেন কাঁচা কলা খেতে পছন্দ করেন না, সেখেত্রে এই বড়ার রেসিপিটি অন্যরকম একটি স্বাদ দিবে ।

৪. মান কচুর ভর্তা

উপকরনঃ পরিমান মত মান কচু, লাল লঙ্কা, নুন ও সরিষার তেল।

প্রনালীঃ মান কচু ভর্তা বা রান্না করার আগে ২-৩ দিন রোদে শুকিয়ে নিন। কারন অনেক মান কচু আছে গলা চুলকায় রোদে শুকিয়ে নিলে আর গলা চুলকায় না। মান কচুর খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট টুকরা করে ধুয়ে ভাতের মধ্যে দিয়ে সিদ্ধ দিন। ভাত হয়ে গেলে মান কচু ভাতের মধ্যে থেকে বের করে অন্য পাত্রে রাখুন। এবার একটি কড়াইয়ে সামান্য তেলে পরিমান মত লাল লঙ্কা মচমচা করে ভেজে নিন। তারপর মরিচ, নুন ও সরিষার তেল একসাথে চটকে হাত দিয়ে মান কচুর ভর্তা করুন। এবার গরম গরম ভাতের সাথে যে কোন ডাল ও মজাদার মান কচুর ভর্তা পরিবেশন করুন।

৫. কাশ্মিরী আলুর দম

উপকরনঃ সিদ্ধ আলু, হিং, তেল, জোয়ান, চিনি, নুন, টকদই, ছোট এলাচ, ভাজা জিরার গুড়ো, গরম মসলা, ধনিয়া পাতা ও ফ্রেসক্রীম।

প্রনালীঃ প্রথমে কয়েকটা আলু সিদ্ধ করে নিন। এবার অন্য একটি পাত্রে পরিমান মত তেল দিয়ে সামান্য হিং তেলের উপর দিয়ে সিদ্ধ করা গোটা গোটা আলু ভাঁজতে থাকুন। আলু ভাজা হয়ে গেলে পরিমান মত জোয়ান, চিনি, নুন ও ২ চামচ টকদই দিয়ে নাড়তে থাকুন। ২-৩ মিনিট পর ছোট এলাচ ও ভাজা জিরার গুড়ো দিয়ে ভাল করে নেড়ে দিন। নামানোর আগে পরিমান মত ফ্রেশক্রীম দিয়ে আচ কমিয়ে নামিয়ে ফেলুন। পরিবারের সবার জন্য গরম গরম কাশ্মিরী আলুর দম ধনেপাতা দিয়ে পরিবেশন করুন।

৬. ভেজিটেবল নিজামী শিক

উপকরণ: গাজর, মটরশুটি, আলু, বাঁধাকপি, লবণ, আদা বাটা, জিরা বাটা, লঙ্কা গুড়ো, ধনিয়া গুড়ো, হলুদের গুড়ো ও চিনি।

প্রণালী: প্রথমে গাজর, আলু, বাঁধাকপি টুকরো করে সাথে মটরশুটি দিয়ে একটি পাত্রে পরিমান মত জল দিয়ে সিদ্ধ করে নিন। এবার সিদ্ধ করা সবজি গুলো লবণ, আদা বাটা, জিরা বাটা, লঙ্কা গুড়ো, ধনিয়া গুড়ো, হলুদের গুড়ো এবং চিনি দিয়ে মাখিয়ে ৫ মিনিট রেখে দিন। ৫ মিনিট পর মাখানো সবজি শিকে গেথে শেলো ফ্রাই করে নিন। অল্প সময়ে তৈরি হয়ে গেল ভেজিটেবল নিজামী শিক। এবার ভেজিটেবল নিজামী শিক গরম গরম আপনার ইচ্ছামত সাজিয়ে পরিবারে পরিবেশন করুন।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon