Link copied!
Sign in / Sign up
0
Shares

সকালে খালি পেটে জল পান করার উপকারিতা জানেন?


মর্নিং ওয়াটার থেরাপি বা জল চিকিৎসা নামে একটি চিকিৎসা পদ্ধতি বর্তমানে বেশ কার্যকরী একটি সুস্বাস্থ চিকিৎসা বলে ঘোষিত হয়েছে। কিন্তু কি এই চিকিৎসা? 

সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে ৩ থেকে ৪ গ্লাস জল পান করা স্বাস্থ্যের জন্যে ভালো বলা হচ্ছে। কীভাবে উপকার পাওয়া যায় সকালে এই জল পান করে? 

ভারতে প্রাচীন যোগগুরু বা ঋষিরা মহিষীরা খালি পেটে জল পানকে একটি গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ হিসেবে স্থান দিয়ে আসছেন। প্রথম দিকে এটা অনেক বেশি মনে হলেও কিছুদিন নির্দিষ্ট পরিমানে  জল পান করলে বিষয়টি সহজেই আয়ত্ত হয়ে যায় এবং উপকারও পাওয়া যায়। জল পান করার অল্প কিছুক্ষণ পর অবধি অন্য কিছু মুখে না দেওয়াই ভালো। এই চিকিৎসার কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই এবং এটি পরিপাকক্রিয়ার জন্য খুবই কার্যকরী। সকালে খালি পেটে জল শুধুমাত্র পাকস্থলী পরিষ্কারই করে না, শরীরেকে বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি থেকেও বাঁচাতে সাহায্য করে।


খালি পেটে জল পান করার সুফল

১. রাতে ঘুমানোর ফলে দীর্ঘ সময় ধরে হজম প্রক্রিয়া তেমনভাবে কোনো কাজ করে না। তাই সকালে ঘুম থেকে উঠে হজম প্রক্রিয়ায় সাহায্য করার জন্য অন্তত এক গ্লাস জল পান করা উচিত।

২. প্রতিদিন সকালে অন্তত ১৫ আউন্স হালকা গরম জল পান করলে শরীরের মেটাবলিসম ২৪% বেড়ে যায় এবং শরীরের ওজন নিমেষে কমে।

৩. সকালে প্রতিদিন খালি পেটে জল পান করলে রক্তের দূষিত পদার্থগুলি বের হয়ে যায় এবং ত্বক সুন্দর ও উজ্জ্বল হয়।

৪. প্রতিদিন সকালে নাস্তার আগে এক গ্লাস জল পান করলে নতুন মাংসপেশী ও কোষ গঠনের প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হয়।

৫. প্রতিদিন সকালে মাত্র এক গ্লাস জল পান করলে বমি ভাব, গলার সমস্যা, মাসিকের সমস্যা, ডায়রিয়া, কিডনির সমস্যা, আর্থাইটিস, মাথা ব্যাথা ইত্যাদি অসুখ তাড়াতাড়ি কমে যায়।

৬. প্রতিদিন খালি পেটে এক গ্লাস করে জল পান করলে পরিষ্কার হয় এবং শরীর নতুন করে খাবার থেকে পুষ্টি গ্রহণ করার শক্তি পায়।

৭. সকালে জলের বদলে জুস বা অন্য পানীয় না খাওয়াই শরীরের জন্য সবচেয়ে ভালো।

কিভাবে জল পান করবেন?

১. ঘুম থেকে উঠেই ১৫০ মিলি লিটারের গ্লাসের ৩ গ্লাস জল পান করুন।

২. জল পানের ৫০ মিনিটের মধ্যে কোনও খাবার খাবেন না।

৩. ৫০ মিনিট পর ব্রেকফাস্ট করবেন এবং জল পান করবেন।

৪. ব্রেকফাস্ট করার ২০ মিনিট পর, দুপুরে এবং রাতের খাবারের দেড় থেকে ২ ঘন্টার ভিতরে কোনও খাবার বা জল পান করবেন না।

৫. যারা বয়ষ্ক বা অসুস্থ এবং ৩ গ্লাস জল পান করতে অক্ষম তারা প্রথম দিকে অল্প অল্প করে জল পান করার অভ্যাস করবেন। এরপর ধীরে ধীরে পরিমাণ বাড়াতে চেষ্টা করুন।

এই মর্নিং ওয়াটার থেরাপি উল্লেখিত রোগ বা অসুখগুলি নিরাময় করে এবং যাদের এসব নেই তারাও সুস্থ জীবনযাপন করতে পারবেন।

কোন রোগ বা অসুখ সারাতে কতদিন এই জল পান করবেন

১. উচ্চ রক্তচাপ (৩০ দিন)

২. বুক জ্বালাপোড়া (১০ দিন)

৩. ডায়াবেটিস (৩০ দিন)

৪. কোষ্ঠকাঠিন্য (১০ দিন)

৫. ক্যান্সার (১৮০ দিন)

৬. যক্ষা (৯০ দিন)

৭. বাতের ব্যথার রোগিরা উপরে চিকিৎসাটি প্রথম সপ্তাহে ৩ দিন, এবং দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে প্রতিদিন চালিয়ে যাবেন।

এই চিকিৎসা পদ্ধতিতে কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই, তবে প্রস্রাব করার পরিমাণ আগের তুলনায় বেড়ে যেতে পারে। এটিনিয়মিত জীবনের সাথে যোগ করলে অন্যান্য রোগ থেকেও সুস্থ থাকা যাবে। তাই জল পান করুন; সুস্থ ও কর্মঠ থাকুন।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon