Link copied!
Sign in / Sign up
2
Shares

৭টি রোগ যা শিশুর প্রথম বছরে হতেই পারে! প্রস্তুত হবেন কিভাবে?


জীবনের প্রথম বছর হল এমন একটি সময় যখন শিশুর অসুস্থতার প্রবণতা সর্বাধিক। এটির কারণ হলো মূলত শিশুর প্রতিরোধক ক্ষমতা গুলি এই সময়ে কাজ করা শুরু করে এবং এটি অনেক জীবাণু এবং রোগের মুখোমুখি হয় না,যা অধিক পরিমানে এন্টিবডি তৈরিতে সক্ষম হবে। এই কারণেই কিছু কিছু টিকা করণ খুব জরুরি। যাইহোক কিন্তু কিছু কিছু অসুস্থতা আছে যার কোনো টিকাকরণ হয়ে না এবং যেগুলি খুব তাড়াতাতি শিশুর শরীরে ছড়িয়ে পরে।

১.সাধারণ ঠান্ডা লাগা 

লক্ষণ : কাশি ,ঘুমের ঘোরে গলা খুশ খুশ ,সর্দি ,হালকা জ্বর

চিকিৎসা : সাধারণ ঠান্ডা লাগার সব থেকে সহজ চিকিৎসা পদ্ধতি হলো ওষুধ দেওয়ার বদলে শিশুর নাকের সর্দি পরিস্খার রাখুন যাতে সে সহজে এ নিঃশাস নিতে পারে। এটি করার সবচেয়ে ভাল উপায় হল লবণাক্ত অনুনাসিক স্প্রে, হিমিডিফায়ার এবং বাষ্পীভবন ব্যবহার করা। যদি সমস্যাটি বজায় থাকে, প্রয়োজনে আপনার শিশুকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান এবং ঔষধ ব্যবহার করুন।

প্রতিরোধ: আপনার শিশুকে অসুস্থ ব্যক্তিদের কাছ থেকে দূরে রাখুন এবং নিশ্চিত করুন যে আপনার শিশু এর আশপাশ (তার খেলনা, pacifiers, দুধ বোতল, ইত্যাদি সহ) পরিষ্কার থাকে । এছাড়াও, নিশ্চিত করুন যে আপনার শিশু পরিষ্কার এবং জীবাণু মুক্ত।

২.ডায়রিয়া

লক্ষন : ঘন ঘন জলের মতো পায়খানা। বদ হজম হতেও পারে না ও হতে পারে।

চিকিৎসা : ইটা সাধারণত দুদিন ধরে থাকে। লক্ষ রাখুন এবং ডাক্তার কে জানান।বদ হজমের জন্য মুখে খাওয়া রেহাইড্রেশন সমাধান টি ভালো।

প্রতিরোধ: আপনার শিশু পরিচর্যা পরিষ্কার ও স্বাস্থ্যকর হয় তা নিশ্চিত করুন। প্রথম কয়েক মাস বোতল-খাওয়ানো এড়িয়ে চলুন। শুধুমাত্র তাজা স্বাস্থকর খাবার ই শিশু কে খাওয়ান।

৩.শ্বাসযন্ত্রের syncytial ভাইরাস

লক্ষণ : বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এই রোগের লক্ষণ গুলি সাধারণ ঠান্ডা লাগার মতো -কাশি,সর্দি ইত্যাদি। তবে, এটি যদি স্থির থাকে, তবে এই উপসর্গগুলি ব্রংকাইটিস এবং শ্বাস প্রশ্বাসের মধ্যে ছড়িয়ে যেতে পারে। যদি এটি ফুসফুসে ছড়িয়ে পড়ে, তবে নিউমোনিয়া হতে পারে।

চিকিৎসা :প্রথম দিকে যখন এটি কম মাত্রায় থাকে তখন ঠান্ডা লাগার যে প্রতিকার তাতে এ কাজ হয়ে যায়। এটি যদি বাড়ে , অথবা এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলতে থাকে, তাহলে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

প্রতিরোধ: নিশ্চিত করুন যে আপনার শিশু এর আশপাশ যাতে পরিষ্কার এবং জীবাণু মুক্ত থাকে । আপনার শিশুর কাছাকাছি ধূমপান এড়িয়ে চলুন আপনার শিশুকে নিয়ন্ত্রণ করার আগে জীবাণুর থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য ঘন ঘন হাত ধুতে হবে ।

৪.জ্বর 

লক্ষণ: ফ্যাকাসে চেহারা, উচ্চ তাপমাত্রা।

চিকিৎসা: গা মুছিয়া দেওয়া , এবং আপনার ডাক্তার দ্বারা সুপারিশকৃত শিশুদের ব্যথা উপশমকারী ব্যবহার করতে পারেন যা আপনার শিশু ক ক্ষতি করবে না । আপনি যদি আরো অস্বস্তিকর পরিস্থিতি দেখেন তাহলে আপনার এক ডাক্তারের কাছে নিতে হবে ।

প্রতিরোধ: এটি প্রতিরোধ করার সবচেয়ে ভাল উপায় হল আপনার বাচ্চাকে যেকোন অবাঞ্ছিত জীবাণু (তার নিজের এবং আপনার শিশুকে পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত রাখুন), আশেপাশে পরিষ্কার এবং স্বাস্থ্যকর এবং আপনার বাচ্চাকে যে খাবারটি দেবেন তা যেন সে ভালভাবে গ্রহণ করে তা নিশ্চিত করুন -ভালো ভাবে রান্না করুন এবং একটি স্বাস্থ্যকর পরিবেশে র মধ্যে রান্না করুন )।

৫.কানের ইনফেকশন

লক্ষণ :অস্বস্তিকর কারণে কান্নাকাটি করা, ঘন ঘন উঠে পড়া

চিকিৎসা : শিশুদের ব্যাথা উপশমকারী জিনিস গুলি এই ক্ষেত্রে কাজে দেবে। আপনার শিশু ক সোজা করে রাখুন যাতে তার কানের অতিরিক্ত তরল পদার্থ যদি কিছু থাকে তা যেন বেরিয়ে যায়। যদি আপনার বাচ্চা এখনও অস্বস্তিকর বলে মনে করেন, তাহলে তাকে অ্যান্টিবায়োটিকের জন্য ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান।

প্রতিরোধ: এলার্জি উপস্থিতি নিয়ন্ত্রণ (কমাতে)। একটি পর্যাপ্ত সময় জন্য স্তন্যপান। জীবাণুর তৈরী হওয়া বন্ধ করার জন্য ঠান্ডা থেকে সাবধান।

৬.হাত পা মুখ 

লক্ষণ : হাত, পা ও মুখের ভেতর ক্লান্তি, জ্বর, গলা খুশ খুস , ফোসকা এবং ফোলা। কোনো দাগ চামড়ার উপর প্রদর্শিত হতে পারে।

চিকিত্সা: ঠান্ডা তরল , অকার্যকর খাবার এবং মসলাযুক্ত খাদ্য এবং রস মত পানীয় এড়িয়ে চলুন। আপনার বাচ্চার ব্যথা হলে আইবুপ্রোফেন বা অ্যাসিটিনোফেন সাহায্য করবে।

প্রতিরোধ: আপনার হাত ঘন ঘন ধুতে হবে এবং আপনার শিশুর পরিবেশকে পরিষ্কার রাখুন।

৭. গ্যাস্ট্রোন্টারিটিটিস

লক্ষণ : বমি, ডায়রিয়া এবং পেটে ব্যথা।

চিকিত্সা: নিখরচায় প্রতিরোধ করার জন্য আপনার শিশু প্রচুর তরল পান করানো নিশ্চিত করুন। মৌখিক রিহাইড্রেশন সলিউশন একটি ভাল সমাধান, এটিনুন ও চিনির হারিয়ে যাওয়া ভারসাম্য ঠিক করবে।

প্রতিরোধ: পরিবেশ, নিজেকে এবং আপনার শিশুকে জীবাণুমুক্ত রাখুন।

বাচ্চারা বেশিরভাগ সময় অসুস্থ হয়ে পড়ে, কিন্তু আরো না বরং আপনার কোমল প্রেম এবং যত্নের সাহায্যে নিজে তাকে সাজিয়ে রাখুন । এই পরিস্থিতিতে জন্য প্রস্তুত থাকা ভাল, যাতে আপনার সাথে যদি কখন ও এটি ঘটে তাহলে চিন্তা করবেন না। 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon