Link copied!
Sign in / Sign up
12
Shares

রান্নায় যবহার করা জিরা কখনও জলে ভিজিয়ে সেই জল পান করেছেন কি? এর ফলাফল জানলে অবাক হবেন!

অবাক করার মতই তথ্য। জিরা, অর্থাৎ কালো জিরা নয়, কিউমিন। এটি সাধারণত প্রতিদিন রান্নাতেই ব্যবহার করা হয়। স্বাদে একটু তেতো ও গন্ধে জোরদার হলেও রান্নায় ব্যবহার করলে একটি আলাদা মাত্রা এনে দেয়। কিন্তু আয়ুবেদিক বিজ্ঞান জিরাকে বহু বছর ধরে একটি ভেষজ ঔষধির তালিকাভুক্ত করে আসছে কারণ এতে সত্যিই রয়েছে নানা ঔষধি গুনাগুন। স্বাস্থ্যের ওপর জিরার রয়েছে অসাধারণ কারণ এটিকে ডায়বেটিস, টিউমার, এপিলেপ্সি ও এরকম নানা জটিল রোগের ওষুধ বলে মনে করা হয়। শুধু তাই নয়, জিরা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে অমূল্য সাহায্য করে। তা বলে শুধু রান্নায় হাজার মশলার সাথে ওই টুকু পরিমান গ্রহণ করে এর সম্পূর্ণ ফলাফল পাওয়া যায়না, বা এটি শুধু শুধু চিবিয়েও খাওয়া যাবেনা। তাই অনবদ্য একটি উপায় হল জিরা ভেজানো জল পান করা।

 

আজকের পোস্টে জিরা ভেজানো জল পান করার উপকারিতা সম্পর্কে আপনাদের জানায় হবে।

 

জিরা পানির স্বাস্থ্য উপকারিতা

জিরা পানি পানের ফলে এটি দেহকে ঠাণ্ডা করে এবং দেহের অতিরিক্ত তাপমাত্রা কমিয়ে দেহ সতেজ করে। এটি খুব স্বাস্থ্য সম্মত ভাবে পেটের দূষিত পদার্থ কমাতে সহায়তা করে। তাই জিরাপানি কতটা স্বাস্থ্যসম্মত তা ব্যাখ্যা করতে এর কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা তুলে ধরা হল।

 

 

 

১। পেটের নানা সমস্যায় জিরা ভেজানো জল 

পেট সংক্রান্ত নানা সমস্যা মানুষের লেগেই থাকে। যেমন অ্যাসিডিটি, কোষ্ঠকাঠিন্য, গ্যাস, বমিভাব, ইত্যাদি। জিরা ভেজানো জল এই সমস্ত রকম সমস্যায় উপকার দেয়। কখনও যদি একটু বেশি পরিমানে খাওয়া দাওয়া হয়ে যায়, বা গ্যাস বদহজমের সমস্যা দেখা যায়, অথবা কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্যে জ্বালাতন হয়, নিয়মিত সকালে উঠে খালি পেতে এক গ্লাস রাট থেকে ভেজানো জিরা জল পান করুন। উপকার পাবেনই।

২। ত্বকের নানা সমস্যায় জিরা জল 

জিরা জল পান করলে যেহেতু পেট পরিষ্কার হয়, তার ফলে তা প্রতিফলিত হয় ত্বকের ওপর এবং আপনি পাবেন উজ্জ্বল ব্রণহীন স্বাস্থবান ত্বক। এমনকি, ত্বকে বয়সের ছাপও রোধ করে এই পানীয়।

 

৩। ওজন ঝরাতে সাহায্য 

যারা নিমেষের মধ্যে ওজন কমাতে চান, তাদের জন্যে এই পানীয় মোক্ষম এটি ওষুধ।

৪। রক্তশূন্যতা ও জলশূন্যতার চিকিৎসায় জিরা জল 

জিরাতে থাকে আয়রন যা রক্তস্রোতে অক্সিজেন বহনকারী হিমোগ্লোবিন বাড়াতে সাহায্য করে। এছাড়া জিরা জল গরম কালে এটি দেহকে আর্দ্র রেখে ডিহাইড্রেশন হওয়া থেকে মুক্তি দেয়।জিরা প্রাকৃতিকভাবে দেহের তাপমাত্রা কমায়।

 

৫। মাসিকের সময় তলপেটের ব্যাথা দূর করে 

মাসিক চলা কালীন তলপেটে ব্যাথা অনেক মহিলারই সমস্যা, তাদের জন্যে সারাদিন অল্প অল্প জিরাজল পান করা একটি কাযকরী ওষুধের কাজ করে।

 

৬। রোগ প্রতিরোধ শক্তি কম করে ও শরীরের দূষণ দূর করে 

জিরাতে থাকা আয়রন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার কাজ করে ও শরীরে ভিটামিন এ ও সি প্রদান করে যা থেকে অ্যান্টি অক্সিডেণ্টের সুবিধা পাওয়া যায়। এছাড়া জিরাজল যকৃত ও পাকস্থলীর জন্য খুবই উপকারী। এন্টিঅক্সিডেন্ট দেহের বিষাক্ততা দূর করে।

 

৭। অনিদ্রার সমস্যা দূরীকরণ ও  স্মৃতিশক্তি উন্নত করে

যাদের অনিদ্রার সমস্যা আছে তাদের জন্য জিরা জল খুব উপকারী। এছাড়া জিরা মস্তিস্কের শক্তিকে উন্নত করে। তাই বাচ্চাদের প্রথম থেকে জিরা জল পান করালে স্মৃতিশক্তি ও বুদ্ধি বাড়ে।

 

৮।  স্তন্যপান করানো মায়েদের দুধ বাড়ায় জিরা জল 

জিরাতে থাকা আয়রন গর্ভবতী ও স্তন্যপান করানো মায়েদের জন্য খুবই ভালো। এটা গর্ভস্থ ভ্রুণের, বাচ্চার এবং মায়ের আয়রনের চাহিদাও মেটাতে সাহায্য করে।

 

 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon