Link copied!
Sign in / Sign up
2
Shares

গর্ভাবস্তার সময়ে আপনার ওজন বেশি থাকলে কি হতে পারে জানেন?

 


প্রতিটি নারীর জীবনে গর্ভাবস্থা একটি সংবেদনশীল সময়। সেই কারণে এই সময়ে নতুন মা যা কিছু করবেন তার প্রভাব সরাসরি গর্ভে থাকা সন্তানের ওপরে পরে। গর্ভাবস্থায় মা যদি ধূমপান অথবা মদ্য পানের অভ্যাস থাকে, তাহলে তার সন্তানের নানা ধরণের জন্মগত সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা থাকে এবং মা নিজেও অনেক ধরনের সমস্যায় পড়তে পারেন।

গর্ভাবস্তার সময় মা যদি সঠিক ভাবে খাওয়া দাওয়া করেন এবং নিজের স্বাস্থ্যের প্রতি যত্ন নেয়, তাহলে কোনরকম জন্মগত ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে না। কিন্তু আপনার ওজন যদি বেশি হয় সেটা শরীরের ওপর খারাপ প্রভাব ফেলে। ওজন যদি বেশি হয় তবে শরীরের মধ্যে হাজারো সমস্যা থাকার সম্ভাবনা থাকে, যেমন কোলেস্টেরল, উচ্চরক্ত চাপ, হারের জোড়ের ব্যাথা,কম আত্মবিশ্বাস, হজমের সমস্যা ইত্যাদি। কিন্তু গর্ভবতীর হওয়ার পর কিছুটা ওজন বাড়া উচিত সুস্থ প্রসবের জন্য।

গর্ভাবস্থার সময় মেদ সন্তান জন্মের পরেও মায়ের সমস্যার কারণ হতে পারে। একজন গর্ভবতী স্ত্রীর অন্তত ৮-১০কেজি ওজন বাড়ান উচিত গর্ভাবস্তার সময়। এই ওজন সুস্থ গর্ভধারণে সাহায্য করে। কিন্তু আপনার যদি গর্ভধারণের আগে থেকে বেশি মোটা হন, তবে গর্ভাবস্তার সময়ে ৫-৬কেজির বেশি ওজন বাড়ানো উচিত নয়। এই সময়ে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ওজন আপনার স্বাস্থ্যগত সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে যা জন্মের পরেও, শিশু ও মায়ের, দুজনের জন্য ক্ষতিকারক।

গর্ভাবস্থার সময়ে যদি মায়ের ওজন খুব বেশি থাকে, তবে শিশুর সেরিব্রাল পালসি হওয়া সম্ভাবনা থাকে। এছাড়াও, যে সমস্ত মহিলাদের গর্ভাবস্থার শুরুর দিকে ওজন বেশি থাকে,তাদের প্রসবের পর নানা সমস্যার স্মুখীন হতে হয়, যেমন অবসাদ, পিঠের ব্যাথা, অতিরিক্ত মাত্রায় মাসিক হওয়া ইত্যাদি। এর কারণ শুধুমাত্র অতিরিক্ত মেদের জন্য হরমোনের মাত্রায় পার্থক্য হওয়ায় শরীরের ভারসাম্যর অভাব দেখা দেয়। সুতরাং শিশু ধারণ করার আগে ভালোভাবে পরিকল্পনা করুন, ডাক্তারের সাথে কথা বলুন, এবং যদি অতিরিক্ত ওজন থাকে তা কমানোর চেষ্টা করুন।

 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon