Link copied!
Sign in / Sign up
2
Shares

গর্ভাবস্তাকালীন সমস্যা

গর্ভাবস্থা প্রত্যেক প্রসূতির জন্য একদিকে যেমন খুশির কারণ, অন্যদিকে থাকে আশঙ্কা। আশার কথা, সাধারণভাবে ৯০% থেকে ৯৫% ভাগ গর্ভাবস্থার পরিসমাপ্তি ঘটে সুষ্ঠুভাবে। তবে বাকি ৫ থেকে ১০ ভাগ মায়ের ক্ষেত্রে দেখা দিতে পারে অস্বাভাবিকতা বা জটিলতা। এ জন্য চাই প্রসূতিসহ সবার সচেতনতা। কারণ, সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত এবং চিকিৎসা না হলে মা ও শিশু উভয়ের জন্য বিপদের কারণ হতে পারে।

গর্ভাবস্থা, প্রসব এবং পরবর্তী সময়ের বিপজ্জনক সমস্যাগুলো সংকেত ছাড়াই হঠাৎ দেখা দিতে পারে। তবুও সব দম্পতিকে এবং আত্মীয়স্বজনকে ঝুঁকিপূর্ণ গর্ভের লক্ষণ, বিপদের পূর্বাভাস ও লক্ষণগুলো সম্পর্কে ধারণা থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, যেকোনো খারাপ অবস্থার জন্য আগে থেকে মানসিক ও অন্যান্য প্রস্তুতি না থাকলে বিপদের সম্মুখীন হতে হয়।

ঝুঁকিপূর্ণ গর্ভ

যেসব ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় বা প্রসবের সময় মারাত্মক জটিলতা বা বিপদ ঘটার আশঙ্কা থাকে, সেসব অবস্থাকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করা হয়। যেমন

১. গর্ভবতী মায়ের বয়স যখন ২০ বছরের কম

২. ৩৫ বছরের বেশি বয়সে গর্ভধারণ

৩. ২ বছরের কম বিরতি দিয়ে দ্বিতীয় গর্ভধারণ

৪. ৪ বা তার অধিকবার গর্ভধারণ

৫. কম ওজনের সন্তান জন্ম দেওয়া

৬. নির্ধারিত সময়ের আগে সন্তানের জন্ম হওয়া

৭. মায়ের গর্ভপাত, অপরিণত বা মৃত শিশু প্রসব হওয়া

৮. পূর্ববর্তী প্রসব জটিলতা বা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে হওয়া

৯. উচ্চতা তুলনামূলকভাবে কম হওয়া, অর্থাৎ চার ফুট ১০ ইঞ্চির কম হওয়া

১০. প্রসবপথের কোনো সমস্যা থাকা

গর্ভকালীন বিপদের পূর্বাভাস বা লক্ষণ

১. গর্ভকালে ওজন প্রতি মাসে বৃদ্ধি না পাওয়া। প্রসবের আগে ওজন কমপক্ষে সাত কেজি বাড়া উচিত

২. চোখের পাতার ভেতরের দিক জিহ্বা, মুখমণ্ডল, হাতের তালু ফ্যাকাসে হয়ে যাওয়া, অর্থাৎ রক্তশূন্যতা হওয়া

৩.হাত, পা বা মুখ ফুলে যাওয়া বা জল আসা

৪. গর্ভাবস্থায় যেকোনো সময় তলপেটে প্রচণ্ড ব্যথা হওয়া

৫. জরায়ুতে শিশুর নড়াচড়া বন্ধ হয়ে যাওয়া

৬. অবিরাম মাথাব্যথা

৭. গর্ভাবস্থায় তিন মাসের পরও বমি

এমন কোনো লক্ষণ দেখলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে

১. গর্ভাবস্থায় যেকোনো সময় প্রসবপথে রক্তপাত হওয়া

২. তীব্র মাথাব্যথা

৩. খিঁচুনি

৪. অবিরাম বমি

৫. প্রচণ্ড জ্বর

গর্ভবতী ও তার কাছাকাছি আত্মীয়স্বজনের সচেতনতা ও প্রাথমিক লক্ষণ সম্পর্কে সঠিক ধারণা বিভিন্ন অবস্থা থেকে মা ও গর্ভস্থ সন্তানকে রক্ষা করতে পারে। তাই এই ব্যাপারে সব চিকিৎসক, বিশেষ করে যাঁরা গর্ভবতীর চেকআপ ও যত্নের সঙ্গে জড়িত তাদের কাছে দেখানো। 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon