Link copied!
Sign in / Sign up
56
Shares

গর্ভবস্থায় কোন কোন মন্ত্র শিশুকে করে তোলে সুন্দর ফুটফুটে ও শক্তিশালী?


গর্ভাবস্থায়, আপনি একটি ব্যক্তিগত এবং পেশাদারী জীবনের চাপের সম্মুখীন হয়ে থাকেন। কিন্তু মনে রাখবেন, সহজ এবং নিরাপদ ডেলিভারির জন্য খুশি থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই প্রার্থনা ও মন শান্ত করা খুব দরকারী হতে পারে।

এটি বিশ্বাস করা হয় যে, দেবী গর্ভস্হমিকা আরাধনা নারীদের নিরাপদ বিতরণ করতে সহায়তা করে। এই সময় আপনার তাঁর উপাসনা করা উচিত। আপনাকে তার জন্যে ওনার স্লোক পাঠ করতে হবে।

দেবী গর্ভচম্বিকাকে মাতৃত্বের দেবী বলে মানা হয়। ওনার মন্ত্র ১০৮বার পাঠ করা প্রয়োজন।

১. এহাইহি ভগবান ভগবান,

প্রজা, প্রজা পতি,

প্রগতিনিভা বীমম ইমাম,

অপথ্যন্ সুরক্ষ গর্ভিনীম

অর্থ: হে ব্রহ্মা দেব, এই প্রার্থনা শুনুন,

আপনি যে ব্রাহ্মণকে তৈরি করেছেন,

আপনি যাঁদের তৈরি করেছেন,

আমি, যে নিজের পরিবার তৈরির পথে চলেছি, আমাকে রক্ষা করুন।

২. বিনয়াকে গনধ,

শিভ ছেলে মহা বালা,

প্রগতিশীল বাবলচ ইমানম,

সেপ্য়ন সুরক্ষা গর্ভিনীম

অর্থ: হে বিনিত, হে গণিত, হে শিভ পুত্র, আপনি যাকে অনেক শক্তিশালী বানিয়েছেন, আমার এই প্রার্থনা গ্রহণ করুন এবং আমায় সবসময় রক্ষা করুন।

৩. সুরক্ষা - সুরক্ষিত মহাদেব,

ভক্ত অনুগ্রহ করাক,

পক্ষ বাহন গবিন্দ,

শাফিউন্ রক্ষক গর্ভনম

অর্থ: হে ঈশ্বর, আপনি সবচেয়ে বড় আপনি সবসময় আমাদের রক্ষা করুন,

হে ঈশ্বর, আপনি যা যা উপাসকদের উপর বর্ষণ করে থাকেন,

আপনি সবসময় আমার সমস্ত কষ্ট থেকে রক্ষা করুন,

আমি আমার পরিবারকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত।

গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাসে ১ নম্বর শ্লোক ১০৮ বার পড়ুন।

গর্ভাবস্থার আগে ২ নম্বর শ্লোক ১০৮ বার পড়ুন।

প্রসবের ৩মাস আগে ৩ নম্বর শ্লোক ১০৮ বার পড়ুন।

এই শ্লোকটি কেন পড়বেন?

ভারতীয় সংস্কৃতি ও সভ্যতার আমাদের অনেকগুলি দিক প্রদর্শন করে; একটি স্বাস্থ্যকর এবং অন্যটি সাত্ত্বিক। এগুলি মনের মধ্যে রেখেই শ্লোক পাঠ করা হয়ে থাকে।

বলা হয় যে, এই মন্তরগুলোকে বললে মস্তিষ্ক পরিষ্কার হয়, যাতে শিশুর উপর অনেক ইতিবাচক প্রভাব ঘটে।

এ ছাড়াও কিছু কথা মুখ থেকেবেরোলে অনেক শুভ কামনা বৃদ্ধি পায়।

গর্ভাবস্থায় মায়ের ভাবনা চিন্তার সাথে জড়িত কিছু গল্প

 

আমরা সব গর্ভাবস্থায় মায়ের চিন্তাধারা ও মেজাজ কি অবস্থায় থাকে তার গুরুত্ব জানি। গর্ভধারণের সময় গর্ভের মধ্যে থাকাকালীন অভিমন্যু যুদ্ধের কাহিনী শুনে চক্রবুহে কিভাবে প্রবেশ করতে হয় তা শিখেছিলেন। এর মানে মায়ের শোনার প্রভাব শিশুকেও প্রভাবিত করে।

এটি প্রহ্লাদের গল্প। প্রহ্লাদের মা, গর্ভাবস্থায়, ভগবান নারায়ণের কথা শুনে তাঁর ভক্ত হন। এটা স্পষ্ট যে গর্ভাবস্থায় আপনার ভালো কথা শোনা এবং ভাল কথা বলা খুব গুরুত্বপূর্ণ।

আধুনিক বিজ্ঞান কি এতে বিশ্বাস করে?

হ্যাঁ, বিজ্ঞানও দেখিয়েছে যে শিশু গর্ভ থেকে মায়ের আওয়াজ শুনতে পায়।

মন্ত্র জপ করার শক্তি

এটা সত্যি যে একটি মায়ের আধ্যাত্মিক মান আছে। একইভাবে আমাদের দিদা ঠাকুমারাও একই কাজ করেছেন। তাই দেখাদেখি আমরাও সেই পথেই এগোয় এবং সুস্থ বোধ করি।

বলা হয় মায়ের মন পরিষ্কার ও পবিত্র থাকলে শিশুর মন ও পবিত্র ও শক্তিশালি হয়। তাই চেষ্টা করুন যত দ্রুত পারবেন ইসোহোরকে প্রার্থনা করুন ও মনের শান্তি আনুন। এতে শিশুর মঙ্গোল হবে।

একটি মায়ের শক্তি

মায়েদের বিস্ময়কর শক্তি থাকে। তিনি এই জগতে একটি জীবন নিয়ে আসেন এবং তার জন্যে অনেক কষ্ট করেন।

তাই এই সবকিছুর মাহাত্ব নুঝতে আধ্যাতিক পথকে উপেক্ষা করবেননা।

এই পোস্টটি শেয়ার করতে ভুলবেননা। মানুষকে সচেতন করুন।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon