Link copied!
Sign in / Sign up
5
Shares

ফুলকপি দিয়ে ১০ রকম রান্না


শীতের সবজি হিসাবে ফুলকপি একটি সু-স্বাদু খাবার। ফুলকপি দিয়ে আমরা অনেক কিছু রান্না করি। ভাজি, রান্না, সুপ, সালাদ নানাভাবে খাওয়া যায় ফুলকপি। ঠিক তেমনি কিছু বিভিন্ন রেসিপি আপনাদের জন্য

 

১. আলু ফুলকপি

উপকরণ: ফুলকপি বড় টুকরা করা ১ টি,আলু টুকরা করা ৪ টি, তেল ১ টেবিল চামচ, সরিষা ১ চা চামচ,কারিপাতা ৫/৬ টি বা কারিপাতা গুঁড়ো ১ চা চামচ,কাঁচালঙ্কা কুচি ৪/৫ টি ,পেঁয়াজ কুচি ১ টি,হলুদ ১/২ চা চামচ, হিং এক চিমটি, আস্ত জিরা ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়ো ১/২ চা চামচ, ধনে পাতা কুচি ১/২ কাপ,নুন পরিমানমত

 

প্রণালী: তেল গরম করে হিং আর সরিষা ছেড়ে দিতে হবে , ঠিক ১ মিনিট পর পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ভাজতে হবে কয়েক মিনিট। আলু আর ফুলকপি দিয়ে বাকি মশলা গুলো দিয়ে দিতে হবে। ৩/৪ মিনিট কষানোর পর ১/২ কাপ গরম জল দিয়ে অল্প আঁচে ঢেকে রান্না করতে হবে। সবজি সিদ্ধ হয়ে গেলে ধনে পাতার কুচি দিয়ে নামাতে হবে। নান /রুটি /পরোটার সাথে খেতে সবচেয়ে ভালো লাগবে।

২. মসলা ফুলকপি

উপকরণ: ১ টা বড় টুকরো করা (দেড় কাপ পরিমাণ), আলু কিউব করে কাটা ১ কাপ, পেঁয়াজ কুচি হাফ কাপ, টমেটো টুকরো, জিরা আস্ত ১ চা চামচ হলুদ-লঙ্কা-ধনিয়া গুঁড়ো ১ চা চামচ, আদা-রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, নুন স্বাদমত, তেল ২ টেবিল চামচ, ধনিয়া পাতা কুচি অল্প, আদা মিহি কুচি ১ চা চামচ

 

প্রণালী: হাঁড়িতে তেল দিয়ে তাতে জিরা দিন। জিরা ফুটে উঠলে এতে পেঁয়াজ কুচি দিন অল্প কিছুক্ষণ নেড়ে এতে গুঁড়ো মশলা গুলো আর বাটা মশলা দিন। অল্প জল আর নুন দিয়ে কষিয়ে নিন। এখন এই মশলাতে কপি আর আলুর টুকরা, সাথে টুকরা করা টমেটো আর হাফ কাপ গরম জল দিয়ে ঢাকনা লাগিয়ে মিডিয়াম আঁচে রান্না করুন ২০ মিনিট। জল শুকিয়ে গেলে ভাজা ভাজা করে নিন। নামানোর আগে আদা মিহি কুচি আর ধনিয়া পাতা ছিটিয়ে দিন। গরম রুটি কিংবা ভাতের সাথে পরিবেশন করুন

৩. মটর ফুলকপি

উপকরণ: ১০০ গ্রাম মটর, ২৫০ গ্রাম ফুলকপি (হলুদ ও নুন দিয়ে সিদ্ধ করে নিন), ১টি টমেটো কুচি, ২ কাঁচালঙ্কা কুচি, ১ চা-চামচ গোটা জিরা, ২ চা-চামচ ধনিয়া গুঁড়ো, অর্ধেক আদা কুচি, ১ চা-চামচ হলুদ গুঁড়ো, ১/২ চা-চামচ লঙ্কা গুঁড়ো, ২-৩ টেবিল চামচ তেল, নুন স্বাদমত

প্রণালি: ওভেনে প্যান দিয়ে তাতে তেল দিন। তেল গরম হলে জিরা, কাঁচালঙ্কা ও ফুলকপি দিবেন। কিছুক্ষণ পর টমেটো দিয়ে তাতে হলুদ, লঙ্কা, ধনিয়া, আদা, নুন দিন। নাড়াচাড়া করার পর মসলা ভালোভাবে মিশে গেলে তাতে সিদ্ধ মটর ঢেলে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে রাখুন। ১০-১২ মিনিট পর নামিয়ে নিন।

৪. ফুলকপির পকোড়া

উপকরণ১টি ফুলকপি। চালের গুঁড়ো বা বেসন বা কর্নফ্লাওয়ার ৫-৬ টেবিল-চামচ। লঙ্কাগুঁড়ো ১ চা-চামচ। হলুদগুঁড়ো ১ চা-চামচ। ধনিয়াগুঁড়ো ১ চা-চামচ। ব্রেড ক্রামব বা বিস্কুটের গুঁড়ো পরিমাণ মতো। নুন স্বাদমতো। তেল প্রয়োজনমতো।

প্রণালী: ফুলকপি হাত দিয়ে টুকরা করে নিন। তারপর জল আর নুন দিয়ে সেদ্ধ করুন। খুব বেশি সিদ্ধ করবেন না, আধা সিদ্ধ থাকবে। এখন একটা চালনিতে ফুলকপির টুকরাগুলো ঢেলে জল ঝরতে দিন। একটা পাত্রে সব মসলা আর চালের গুঁড়ো দিয়ে জল মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন। ফুলকপিগুলো চালের মিশ্রণ দিয়ে ভালো করে মেখে বিস্কুটের গুঁড়ো দিয়ে মাখিয়ে নিন। ননস্টিক প্যানে তেল দিয়ে ভালো করে গরম করে ডুবো তেলে ফুলকপি ভাজুন। বাদামি রং হলে তুলে নিন।

 

৫. পুর ভরা ফুলকপি

উপকরণফুলকপি ১টি (ছোট আকারের), মুরগির কিমা ২৫০ গ্রাম, পেঁয়াজকুচি ১টি (বড়), পেঁয়াজবাটা ৩ টেবিল-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, আদাবাটা ১ টেবিল-চামচ, হলুদগুঁড়ো সামান্য, গুঁড়ো সামান্য, জিরাগুঁড়ো সামান্য, গরম মসলাগুঁড়ো ১/৪ চা-চামচ, টমেটো সস ১ টেবিল-চামচ। নুন স্বাদমতো। কর্নফ্লাওয়ার প্রয়োজন মতো। তেল ২ টেবিল-চামচ।

প্রণালী: একটি ছোট আস্ত ফুলকপি নিন। আশপাশের সব সবুজ ডাল-পাতা কেটে বাদ দিয়ে দিন। একটা সমান স্থানে রেখে দেখুন ফুলকপিটা ঠিক মতো বসে কিনা। একটা পাত্রে জল নিয়ে তা ওভেনে দিয়ে ফুটতে দিন। জল ফুটে উঠলে তাতে নুন, অল্প হলুদগুঁড়ো, অল্প লঙ্কাগুঁড়ো, একটু জিরাগুঁড়ো, একটু আদা-রসুনবাটা দিয়ে আস্তে করে ফুলকপিটা বসিয়ে দিন। কিছুক্ষণ পর আস্তে করে উল্টে দিন। এরপর আরও একবার উল্টে দিন ফুলকপিটা। মনে রাখবেন, আপ সাইড ডাউন অবস্থায় বেশিক্ষণ রাখবেন না, বরং ডাটার দিকটা নিচে দিয়েই বেশিক্ষণ সিদ্ধ করবেন। কোনো অবস্থাতেই ফুলকপি পুরো সিদ্ধ করা যাবে না। ৮-১০ মিনিট সিদ্ধ হওয়ার পর খুব সাবধানে তুলে ফেলুন এবং ঠাণ্ডা হওয়ার জন্য রেখে দিন। একটি প্যানে অল্প তেল দিয়ে পেঁয়াজবাটা, আদা-রসুনবাটা, অল্প হলুদ-লঙ্কাগুঁড়ো, সামান্য গরম মসলাগুঁড়ো, স্বাদমতো নুন দিয়ে কিমাটা রান্না করে নিন। একদম ঝরঝরে করবেন না, একটু ভেজা ভেজা রাখবেন। কিমা ঠাণ্ডা হয়ে গেলে আস্তে আস্তে করে সিদ্ধ ফুলকপির ডাটার ফাঁকা অংশ দিয়ে যতটা সম্ভব কিমা ভরে দিন। খুব সাবধানে করবেন যাতে ফুলকপি ভেঙে না যায়। এবার বেইকিং ট্রে’তে ফুলকপিটা বসিয়ে বাকি কিমা দিয়ে পুরা ফুলকপিটা ঢেকে দিন। হালকা করে চেপে চেপে বসাবেন যাতে কপির গায়ে সুন্দর করে কিমাটা লেগে থাকে। ফুলকপিটা ফ্রিজে ঠাণ্ডা হওয়ার জন্য রেখে দিন। প্যানে বাকি তেলটা দিয়ে পেঁয়াজকুচি সোনালি করে ভেজে তাতে বাকি মসলাগুলো আর নুন দিয়ে কষিয়ে নিয়ে তাতে অল্প করে জল মিশিয়ে নিন। এরপর টমেটো সস মিশিয়ে নিতে হবে। তারপর জলে কর্নফ্লাওয়ার গুলে মিশিয়ে নিয়ে ঘন সসের মতো করুন আর পরিমাণটা এমন হবে যাতে পুরো ফুলকপিটা ঢেকে দেওয়া যায়। গরম থাকা অবস্থাতেই ফুলকপির ওপরে খুব সাবধানে এই সসটা ছড়িয়ে দিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যাতে ফুলকপির কোনো দিক অনাবৃত না থাকে। এরপর ১৮০ ডিগ্রি প্রি-হিটেড ওভেনে ৪০-৪৫ মিনিট বেইক করুন। চাইলে ফেটানো ডিম ব্রাশ করতে পারেন নামানোর মিনিট ১৫ আগে। গরম গরম পরিবেশন করুন ভাত কিংবা পোলাওয়ের সঙ্গে। চাইলে টমেটো, গাজর, লেটুস, লেবু, পেঁয়াজ, ধনেপাতা বা কাঁচালঙ্কা দিয়ে সাজিয়ে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে পারেন আপনার পুর ভরা ফুলকপি।

 

৬. ফুলকপির রোস্ট

উপকরণ: একটা বড় ফুলকপি, দই দেড় কাপ, অর্ধেক লেবুর রস এবং ছোকলা কুচি, লঙ্কা গুঁড়ো ২ টেবিল-চামচ (বেশি ঝাল খেতে না চাইলে পাপরিকা ব্যবহার করতে পারেন), জিরাগুঁড়া ১ টেবিল-চামচ, কারি পাউডার ১ চা-চামচ, গোলমরিচ ১ চা-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, রসুনগুঁড়া ১ টেবিল-চামচ, তেল ১ টেবিল-চামচ, নুন স্বাদমতো বা ২ চা-চামচ।

প্রণালী: ওভেন প্রিহিট করুন ৪০০ ফারেনহাইট’য়ে। একটা বাটিতে সব উপকরণ (তেল ও ফুলকপি বাদে) একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। ৭ মিনিট ফুলকপি ভাপে আধা সিদ্ধ করুন। সিদ্ধ ফুলকপির উপর দইয়ের মিশ্রণ ঢেলে ভালোভাবে ব্রাশ করুন, যাতে ফুলকপির ভেতরেও মিশ্রণ ভালোভাবে যায়। ২০ থেতে ৩০ মিনিট ম্যারিনেইডের জন্য রেখে দিন। এবার যে বেকিং শিট কিংবা পাত্রে ফুলকপি রোস্ট করবেন সেটায় তেল দিয়ে ব্রাশ করে ফুলকপি বসিয়ে দিন। এবার ৩০ মিনিটের জন্য বেইক বা রোস্ট করতে দিন অথবা ফুলকপির রং বদলে খয়রি রং না হওয়া পর্যন্ত বেইক করুন। যেহেতু ফুলকপি আগেই একটু সিদ্ধ করা হয়েছিল তাই বেইক হতে বেশিক্ষণ লাগবে না। আর যদি আগে সিদ্ধ না করেন তাতেও সমস্যা নেই। সিদ্ধ ছাড়াই দইয়ে মাখিয়ে ওভেনে ঢুকিয়ে দিলে সাধারণত ৪০ মিনিট লাগবে হতে। এবার সালাদ কিংবা পোলাওয়ের সঙ্গে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

৭. আলু ও ফুলকপি দিয়ে রুইমাছ

উপকরণ: রুই মাছ টুকরা করা ৮টি, ফুলকাপি ১টি, আলু ২টি, পেঁয়াজকুচি ২ টেবিল-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, আদাবাটা ১ চা-চামচ, হলুদগুঁড়া চা-চামচ, ধনেগুঁড়া বা বাটাআধা চা-চামচ, কাঁচালঙ্কা ৫টি, লঙ্কা গুঁড়ো আধা চা-চামচ, জিরাগুঁড়া আধা চা-চামচ, তেল ২ টেবিল-চামচ, জল পরিমাণমতো, নুন পরিমাণমতো।

প্রণালী: মাছ কেটে টুকরা করে নুন ও হলুদ মাখিয়ে ভেজে পাত্রে রাখুন। ফুলকপি ও আলু টুকরা করে কেটে ধুয়ে নিন। কড়াইতে তেল দিয়ে পেঁয়াজ লালচে করে ভাজুন। এখন ফুলকপি ও আলু দিয়ে দিন। একে একে লঙ্কা গুঁড়ো, রসুনবাটা, আদাবাটা, হলুদগুঁড়া, ধনেগুঁড়া বা বাটা এবং নুন দিয়ে অল্প জল সহ কষিয়ে আবার জল দিন। জল ফুটে উঠলে উপরে মাছ দিয়ে ঢেকে রান্না করুন। নামানোর কিছুক্ষণ আগে কাঁচালঙ্কা দিন। জল শুকিয়ে এলে জিরাগুঁড়া ছিটিয়ে নামিয়ে নিন।

৮. চিকেন ফুলকপি ভুনা

উপকরণ : মুরগির মাংস মাঝারি টুকরা করা ৫০০ গ্রাম, ফুলকপি টুকরা ২ কাপ, পেঁয়াজ টুকরা করা আধা কাপ, আদা বাটা ১ চা-চামচ, রসুন বাটা ২ চা-চামচ। হলুদ গুঁড়া ২ চা-চামচ, গরম মসলা গুঁড়া ১ চা-চামচ, লঙ্কাগুঁড়ো ১ চা-চামচ, নুন স্বাদ অনুযায়ী, তেল পরিমাণমতো, ধনেপাতাকুচি অল্প, আস্ত কাঁচালঙ্কা ৫-৬টি, জল প্রয়োজনমতো।

প্রণালী : প্রথমে মুরগির মাংস ধুয়ে নিন। তারপর একটি কড়াইয়ে তেল গরম করে তাতে প্রথমে পেঁয়াজ ভাজুন। এরপর মসলা গুঁড়া ও নুন দিয়ে হালকা করে ভেজে এতে মুরগি ও ফুলকপির টুকরা দিন। হালকা করে ভেজে নিয়ে ফুলকপির টুকরা তুলে রাখুন। এরপর মুরগিতে একে একে সব বাটা ও গুঁড়া মসলা দিয়ে ভালো করে কষিয়ে তাতে ধনেপাতাকুচি, কাঁচালঙ্কা, ভাজা ফুলকপি এবং অল্প জল দিয়ে কিছুক্ষণ ঢেকে ভুনা ভুনা করে রান্না করে নামিয়ে নিন। গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

৯. ডিম ফুলকপি তরকারি

উপকরণ : ফুলকপি টুকরা করা ২ কাপ, ডিম ৪টি, ধনেপাতাকুচি ২ টেবিল-চামচ, কাঁচালঙ্কা আস্ত ৪-৫টি, হলুদগুঁড়া ১ চা-চামচ, লঙ্কা গুঁড়ো ১ চা-চামচ, নুন স্বাদ অনুযায়ী, পেঁয়াজ মিহি করে কাটা ৫-৬টি, রসুন বাটা ২ চা-চামচ, তেল ও জল পরিমাণ মতো।

প্রণালী : প্রথমে ডিম সিদ্ধ করুন। খোসা ছাড়িয়ে টুথপিক দিয়ে সিদ্ধ ডিম ফুটো করে নিন (যাতে তেলে ভাজার সময় ডিম না ফেটে ওঠে)। এখন একটি কড়াইয়ে তেল গরম করে তাতে সিদ্ধ ডিম, নুন , হলুদ গুঁড়া ও টুকরা পেঁয়াজ, কাঁচালঙ্কা দিয়ে ভেজে একে একে গুঁড়ো মসলা, বাটা মসলা, ফুলকপির টুকরা দিয়ে কষিয়ে অল্প জল দিয়ে ১০ মিনিট ঢেকে রান্না করুন। তারপর নামিয়ে পরিবেশন করুন।

১০. ফুলকপির কেক

উপকরণ : ফুলকপি ১টি, গাজর আধা কাপ, ময়দা ১ কাপ, ডিম ৪টি, বেকিং পাউডার ২ টেবিল-চামচ, তেল ১ কাপ, মাখন বা ঘি ২ টেবিল-চামচ, পেঁয়াজকুচি আধা কাপ, কাঁচালঙ্কা কুচি ৪টি, গোলমরিচের গুঁড়া ১ চা-চামচ, সয়াসস ২ টেবিল-চামচ, পনির গ্রেড করা ২ টেবিল-চামচ, নুন পরিমাণমতো, কালো জিরে আধা চা-চামচ, ক্যাপসিকাম ১টি। 

প্রণালী : ফুলকপি ও গাজর ছোট টুকরো করে হালকা ভাপ দিয়ে নিন। প্যানে তেল দিয়ে তা সামান্য ভেজে নিন। অন্য একটি পাত্রে ডিম, ময়দা, সামান্য জল দিয়ে গুলে সব উপকরণ দিয়ে ভালোভাবে মেশান। একটি সসপ্যানে কাগজে তেল মেখে প্রথমে ক্যাপসিকাম, পেঁয়াজ, লঙ্কা কুচি ও কালো জিরে বিছিয়ে মিশ্রণটি ঢেলে দিন। অন্য একটি পাত্রে বালি বিছিয়ে কেকের পাত্রটি ঢেকে চুলায় বসিয়ে দিন। আধঘণ্টা পর কেকটি ফুলে উঠলে নামিয়ে নিন। 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon