Link copied!
Sign in / Sign up
1
Shares

একজন আদর্শ স্ত্রীর ৬টি চারিত্রিক গুন

যেমন ভাবে আপনি ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখেন একজন মনের মত পুরুষকে নিজের জীবন সঙ্গী হিসেবে পাওয়ার তেমনি প্রত্যেকটি পুরুষও স্বপ্ন দেখেন একজন এমন স্ত্রী পাওয়ার যার মধ্যে নির্দিষ্ট কিছু গুন রয়েছে। তবে এটাও ঠিক একজন মানুষের মধ্যে স্বপ্নে দেখার মত সব গুন থাকেনা। বিবাহের পর প্রত্যেকটি মহিলার থেকে আশা করা হয় যেন সে একজন আদর্শ স্ত্রী হতে পারে। তবে মেয়েরা এতটাই সুন্দর গুন ও চরিত্র নিয়ে গঠিত যে কোনটা ছেড়ে কোনটা বলা যায় তা বেশ ভাবার মত বিষয়।

যেহেতু বিবাহ একটি সহজে বজায় রাখার মত সম্পর্ক না, একটি স্ত্রীর সততা, ভালোবাসা ও আঁতৰিকাকতা ছাড়া ঘর মূলত বিশৃঙ্খল হয়।

বিবাহ একটি নৌকার মত সেই নৌকার ভেসে থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং, এই গুণগুলি কি পুরুষরা তার "একমাত্র স্বপ্নের জনকে" পাওয়ার জন্যে স্বপ্ন দেখে থাকেন? দেখা যাক!

১. যে মহিলা তার স্বামীকে তার সঠিক পরিমানমত স্বাধীনতা দেয়

ব্যক্তিগত স্থান যেকোনো সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ। আপনার সাথে চলা জীবনের থেকে তার একটি পৃথক জীবন আছে। তিনি বিভিন্ন জিনিস করতে চান এবং যেগুলো তাঁকে খুশি রাখে। চিন্তা করবেন না, দিনের সাহসে উনি আপনার কাছেই আসবে!

২.যেই মহিলা সুন্দর করে ঘর চালাতে পারে

কোনও কোনো নোংরা ও অগোছালো জগতে বেঁচে থাকা পছন্দ করে না এবং এতে আপনার স্বামীও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। একটি ইতিবাচক পরিবেশ প্রয়োজন আপনার সম্পর্ক মজবুত ও সুন্দর করে রাখতে। আপনি আপনার ঘর পুনরায় সাজিয়ে আপনার স্বামীকে আশ্চর্যান্বিত করে দিতে পারেন। তিনি নিশ্চিতভাবে এটা পছন্দ করবেন! একটি জনপ্রিয় প্রবাদ আছে "একজন স্ত্রী প্রথম একজন বন্ধু, দ্বিতীয় প্রেমিকা এবং তৃতীয় এবং সম্ভবত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, একজন দাসী।" কিন্তু তিনি আপনার প্রশংসা করবেনই!

৩. যেই স্ত্রী নিজের ইচ্ছা প্রকাশ করতে সংকোচ বোধ করেন না

আপনি যদি কাউকে ভালোবাসেন, তবে সবসময় তাদের জানাবেন। আপনার স্বামী সবসময় জানতে চান আপনি তাঁকে কতটা ভালোবাসেন? স্বামীর মন জয় করার সবচেয়ে বড় চাবি কাঠি হল তাঁর পেট! আপনি যদি ভালো করে ওনাকে খাওয়াতেই পারেন, মনে করবেন আপনি প্রায় যুদ্ধ জিতে নিয়েছেন। আপনি তাকে সামান্য বিস্ময়কর উপহার দিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান উদযাপন করতে পারেন। উনি আপনার কাছে নত হবেন ঠিকই!

৪. সততা ও সত্যতা

সততা ও সত্যতা বজায় রাখা একটি সম্পর্কের গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। আপনার সবকিছুর সম্পর্কে খোলামেলা থাকা প্রয়োজন এবং সবকিছু আপনার স্বামীর উপরও আস্থা রাখা প্রয়োজন। একে ওপরের প্রতি বিশ্বাস মজবুত থাকলে সম্পর্কও অটুট থাকবে। যেই মাত্র কোনো ভুল বোঝাবুঝি হবে নিজেরা আলোচনা করে মিটিয়ে ফেলুন। এটি আপনাকে সুখী করে রাখবে।

৫. আপনারা সবসময় সামঞ্জস্যপূর্ণ হবেন

মতামত না মিললেই যে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়না তা নয়। একটি নিখুঁত স্ত্রী হিসাবে, আপনি সমালোচনামূলকভাবে সম্পর্ক না দেখে সর্বদা সঠিক প্রমাণ কাজটি করার চেষ্টা কর্ব্বেন।

৬. আপনার ইতিবাচকতা

আপনার সবসময় জীবনে ইতিবাচক নজর থাকা উচিত। সে আপনারজীবনে জট বড় ঝড়ই আসুক না কেন। আপনাকে সদয়, বিনয়ী, আনন্দদায়ক, স্নেহময়ী, প্রেমময়ী, যত্নশীল, শান্ত এবং আরো অনেক কিছু হতে হবে। আপনার ইতিবাচকতা সবসময় আপনার স্বামীর উপর একটি জাদুমন্ত্রের মত কাজ করবে। কাজের পর একটি মিষ্টি হাসি দিয়ে তাঁর রুক্ষ দিন পরে তাকে আনন্দায়কস্বাগত জানায়। সবসময় ওনার সবচেয়ে বড় সমর্থক হয়ে থাকুন!

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon