Link copied!
Sign in / Sign up
1
Shares

কনস্টিপেশনের ঘরোয়া উপায়ে সমাধান চান?

 


আমাদের মধ্যে এমন কোনো মানুষ নেই যিনি কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো রোগে আক্রান্ত হননি, আমাদের মধ্যে জনসংখ্যার প্রায় ১৩% মানুষ কনস্টিপেশনের শিকার। আমরা এখানে এমন কিছু ঘরোয়া ওষুধ সম্পর্কে আলোচনা করছি যা আপনার এবং অন্যদের কনস্টিপেশনের মতো সমস্যা কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। তাই এখন নিজের থেকে পেট পরিষ্কার রাখতে কোনো প্রকার ওষুধ বা ট্যাবলেট না খেয়ে এইসব সহজ পদ্ধতিগুলিকে কাজে লাগিয়ে দেখুন। এমনটা করলে উপকার যে পাবেন, তা বলতে পারি। তাই চেষ্টা করতে ক্ষতি কি।

১. মধু: যদি মিষ্টি পছন্দের তালিকাতে থাকে তবে প্রতিদিন মধু খাওয়ার অভ্যাস করুন। তাহলেই দেখবেন কনস্টিপেশনের মতো সমস্যা সম্পূর্ণ ভাবে কমে যাবে। কারণ এই প্রকৃতিক উপাদানটিতে এমন কিছু বিশেষ গুন্ রয়েছে, যার কারণের আপনার শরীরে জোলাপের মতো কাজ করে। এর ফলে মধু খাওয়া মাত্র পেট পরিষ্কার হতে শুরু করে দেয়। এক্ষেত্রে দিনে ৩-৪ বার, এক গ্লাস গরম জলে ১ চামচ করে মধু এবং লেবুর রস মিশিয়ে খেতে হবে। তবেই আরাম পাবেন।

২. তিসি বীজ: এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড, যা পেট পরিষ্কার করার জন্য নানা ভাবে সাহায্য করে। এক গ্লাস জলে ১ চামচ তিসি বীজ গুলে ২-৩ ঘন্টা রেখে দিন। রাতে শুতে য়াওয়ার আগে সেই জল পান করুন। দেখবেন সকালে উঠলে পেট পরিষ্কার হয়ে যাবে।

৩. রেড়ির তেল: ক্ষুদ্রান্ত এবং বৃহদন্ত্রের কর্মক্ষমতা বাড়াতে এই প্রাকৃতিক উপাদানটি আমাদের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই তো প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ১-২ চামচ রেড়ির তেলে খেলেই দেখবেন পেট পরিষ্কার হয়ে যাবে।

৪.লেবু: লেবুতে থাকা লেমোনাস, হজম ক্ষমতার বাড়ানোর সাথে পেট পরিষ্কার রাখতে দারুন কাজে আসে। প্রতিদিন গরম জলে লেবুর রস মিশিয়ে খেলে বেশি উপকার পাবেন এবং তার সাথে ফল পাবেন।

৫.আঙুর: এতে উপস্থিত ফাইবার, যা পেট পরিষ্কার হতে সাহায্য করে। তাই পেট পরিষ্কার করতে হলেই দিনে হাফ বাটি কাঁচা আঙুর অথবা আঙুরের রস খাওয়ার চেষ্টা করুন। এমনটা করলেই দেখবেন সকালগুলো পেট পরিষ্কারের আনন্দে সুন্দর হয়ে উঠবে।

৬. মৌরি: একথা তো সবাই জানেন যে পেট টান্ডা করতে মৌরির কোনও বিকল্প হয় না। কিন্তু এটি জানতেন যে পেট ঠিক রাখতেও এটি সাহায্য করে। আসলে হজমের পেশি সচল রাখতে খেয়াল রাখে মৌরি। ফলে বদ-হজম, পেট গোলানো, কোষ্টকাঠিন্য মতো নানাবিধ রোগ সম্পূর্ণ ভাবে সেরে যায়। ১কাপ মৌরি ভাল করে ভেজে ফেলতে হবে। তারপর ভাজা মৌরি গুঁড়ো করে নিয়ে একটা শিশিতে স্টোর করে রাখবেন। প্রতিদিন এই গুঁড়ো মৌরি ১/২ চামচ করে গরম জলে গুলে খেলে নিমেষে সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

৭. পালং শাক: প্রতিদিন পালং শাক খেলে দারুন উপকার পাওয়া যায়। আপনার যদি কনস্টিপেশনের সমস্যা থাকে তাহলে রান্না করে, নয়তো কাঁচা অবস্থাতেই পালং শাক খেতে পারেন। দেখবেন অল্প দিনেই কষ্ট কমে যাবে। এছাড়া পালং শাকের রস এক গ্লাস জলের সঙ্গে মিশিয়ে দিনে দুবার করে খেলে কনিস্টেপেশনের কোনও সমস্যা থাকে না। 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon