Link copied!
Sign in / Sign up
23
Shares

চুলে কালার বা হাইলাইট করেছেন? যত্ন নিতে বার বার পার্লারে যাবেন কেন? কয়েকটি সহজ ঘরোয়া টিপ্স মেনে চললেই হল


ট্রেন্ডিং বেশ কয়েকটি রূপচর্চা ও সৌন্দর্য চর্চার মধ্যে হেয়ার কালার বা হেয়ার হাইলাইট করা বেশ প্রচলিত হয়েছে। প্রায় প্রত্যেকজন মহিলাই বর্তমানে কালার বা হাইলাইট করিয়ে থাকেন। তার জন্যে যে শুধু পাকা চুল কালো করাই আসল উদ্দেশ্য তা কিন্তু নয়, শখেই চুলে রঙ করেন প্রত্যেকে। এই কালার যে শুধু চুলের রঙ বিশেষ ভাবে সুন্দর করে তোলে তা নয়, এটি আপনার পুরো লুকসের মধ্যেই একটি আলাদা রূপ নিয়ে আসে। তবে হেয়ার কালারে রয়েছে ক্ষতিকর অ্যামোনিয়া বা ক্যামিকেল ব্লিচিং এজেন্ট থাকে তা চুলকে রুক্ষ ও নিষ্প্রাণও করে তোলে, এমনকি শুরু হয়ে যায় প্রচন্ড পরিমানে চুলপড়ার সমস্যা। তা বলে আপনারা চুলে কালার করা বন্ধ করে দেবেন? একেবারেই না। উপায় আছে তো! ঘরেই বসেই আপনি আপনার শখের সুন্দর চুলের যত্ন নিতে পারেন, বার বার পার্লারেও যেতে হবে না। 

১. কন্ডিশনিং 

আপনি যখনই হলে কালার করার পরিকল্পনা করছেন, তার এক মাস আগে থেকে শুরু করুন কন্ডিশনিং। অর্থাৎ নিয়মিত ছুঁয়ে অনেকটা করে কন্ডিশনার লাগিয়ে বেশ খানিক্ষন রেখে ধুয়ে ফেলুন। এই কন্ডিশনার বাজারের কেমিকাল যুক্ত কন্ডিশনার না হয়ে ভালো হয় যদি ঘরেই তৈরী করতে পারেন ডিম, কলা এবং টক দই সমান পরিমাণে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে। চুলের রুক্ষতা এবং ক্ষতি যদি বেশি থাকে  তাহলে এই প্যাকটি এক ঘন্টার ও বেশি সময় ধরে লাগিয়ে রেখে শ্যাম্পু করে ফেলুন। 

২. কেমিক্যাল ট্রিটমেন্ট নয় 

চুল কালার করানোর কমপক্ষে ৩-৪ সপ্তাহ আগে থেকে চুলে কোন কেমিকেল ট্রিটমেন্ট করাবেন না।

৩. হেয়ার কালার প্রোটেকটিং শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার 

কালার করা চুলের জন্য অবশ্যই সাধারণ শ্যাম্পু বা কন্ডিশনার ব্যবহার না করে কালার প্রটেক্টিং শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। এসব শ্যাম্পু চুলের কালার বজায় রাখতে সাহায্য করে এবং চুলের ময়েশ্চারাইজার বজায় রাখে।

৪. হেয়ার অয়েল ট্রিটমেন্ট 

চুলে কালার করার পর সপ্তাহে অন্তত ২ বার অবশ্যই হট অয়েল ট্রিটমেন্ট করুন। কালার চুল মেইনটেইন করার এর থেকে বিকপ্ল উপায় কিছু নেই। চুলের রুক্ষতা দেখে সঠিক পরিমাণ মত অলিভ অয়েল, আমনড অয়েল এবং নারিকেল তেল মিশিয়ে হালকা গরম করে চুলের গোঁড়ায় ভালো করে ম্যাসাজ করুন। এতে চুলের নিষ্প্রাণ ভাব দূর হয় ও চুল সিল্কি, শাইনি ও কোমল হয়।

৫. হেয়ার ড্রায়ারবা স্ট্রেটনার ব্যবহার নয় 

হেয়ার ড্রায়ার বা স্ট্রেটনারের মত জিনিসগুলির ব্যবহার চুলকে আরো বেশি রুক্ষ করে তোলে, তাই যতটা সম্ভব কালার চুলে এই জিনিসগুলি একেবারেই কম ব্যবহার করুন বা করবেনই না। এছাড়াও চুল পড়ার একটি অন্যতম কারণ হল এগুলির ব্যবহার।

কালার চুল বা হাইলাইট করা চুল আরো ভাল রাখতে কয়েকটি ঘরোয়া মাস্ক:

মধু এবং কলার হেয়ার মাস্ক: ৫ চামচ মধু, ৩ টি পাকা কলা ও ২ চামচ অলিভ অয়েল একসাথে মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন এবং চুলের গোঁড়া থেকে আগা পর্যন্ত ভালো মতো লাগান। এক ঘন্টা শ্যাম্পু করে করে ফেলুন।

ডিম এবং মধুর হেয়ার মাস্ক: ২টি ডিম, ৫ চামচ মধু, হাফ কাপ টক দই সব একসাথে মিশিয়ে ভালো মতো ব্লেন্ড করে পেস্ট বানিয়ে সারা চুলে লাগিয়ে একটি হেয়ার ক্যাপ লাগিয়ে রাখুন। এক ঘন্টা রেখে শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার করে ফেলুন।


Tinystep Baby-Safe Natural Toxin-Free Floor Cleaner

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon