Link copied!
Sign in / Sign up
2
Shares

ব্লাশার লাগানোর সঠিক পদ্ধতির সম্পর্কে সম্পূর্ণভাবে জানতে চান?


মেকাপের বিভিন্ন সরঞ্জামের মধ্যে যেই সমস্ত জিনিসগুলি সবচেয়ে একজন মহিলার সৌন্দর্যকে সবথেকে বেশি করে ফুটিয়ে তোলে তার ধেয়ে একটি হল ব্লাশার। হালকা থেকে ভারী সাজ, যাই হোক না কেন আপনি ব্লাশার কিভাবে ব্যবহার করছেন তার ওপর আপনার লুক্স একেবারেই পাল্টে যায়। আপনি অফিসের জন্যে তৈরী হন বা কোনো পার্টি; যদি আপনার হাতে একটুও সময় না থাকে তাহলে নিমেষের মধ্যে একটি ন্যাচারাল অথচ আকর্ষণীয় লুক্স পেতে সঠিকভাবে ব্যবহার করুন ব্লাশার। এবার বিভিন্ন ত্বকের জন্যে বিভিন্ন ধরণের ব্লাশার হয়ে থাকেএবং এটি আপনার প্রয়োজন মত পাউডার অথবা ক্রিম অথবা জেল হিসেবে আপনি ব্যবহার করতে পারেন। ব্যবহার করার আগে নিজের গায়ের রঙের সাথে মিলিয়ে আপনি অনায়াসে প্রয়োগ করুন এবং নিচের পরামর্শগুলো অনুসরণ করুন।


মুখের গড়ন অনুযায়ী ব্লাশন লাগানোটা খুবই জরুরী

১. আপনার যদি ডিম্বাকৃতি মুখ হয় তাহলে দিনের বেলায় বেরোলে গালের আপেলে ব্লাশার লাগান। যদি আপনি রাতে বেরোন তাহলে গল্ ছাড়া নাকের ওপরেও সামান্য ব্লাশার হালকা হালকা করে লাগান। 

২. যদি আপনার হার্ট শেপের মুখ হয় তাহলে গালের নিচে চোয়ালের হাড় বরাবর ব্লাশার লাগান। 

৩. যদি আপনার গোলাকৃতি মুখ হয় তাহলে চিকবোন ও চোয়ালের মাঝে হালকা করে উজ্জ্বল রঙের ব্লাশার লাগান। 

৪. যদি আপনার লম্বাকৃতি মুখ হয় তাহলে গাল থেকে কান বরাবর ব্লাশার লাগান।

কিভাবে কি ধরণের ব্লাশার ব্যবহার করবেন?

১. ক্রিম ব্লাশার প্রয়োগ করার পদ্ধতি 

আপনার ত্বক যদি রুক্ষ ও শুস্ক হয়ে থাকে তার মানে আপনার ময়চারাইসার যুক্ত ব্লাশার দরকার এবং ক্রিম ব্লাশার আপনার জন্যে সঠিক। গালে গোলাকার অংশে ছোট ছোট ফোটা করে ব্লাশার লাগান ও বৃত্তাকার গতিতে আস্তে আস্তে হাত দিয়ে ডলে নিন। যতক্ষণ না একটি ম্যাট ফিনিশ আসবে ততক্ষন ঘষুন।


২. পাউডার ব্লাশার প্রয়োগ করার পদ্ধতি 

পাউডার ব্লাশার যে কোনো ধরণের ত্বকে ব্যবহার করা যেতে পারে কিন্তু রুক্ষ ত্বক হলে কম ব্যবহার করে ভাল। এতে থাকে একটি পাফ বা ব্রাশ যার মধ্যে ব্লাশারটি নিয়ে গালের আপেলের পর বৃত্তাকার গতিতে আস্তে আস্তে ঘষতে হয় ও শেষ অব্দি ম্যাট ফিনিশ আসবেই।


৩. লিকুইড ও জেল ব্লাশার 

আপনি যদি সকাল বেলায় ঘর থেকে বেরোন ও সন্ধের পরে ফেরেন, এই অবস্থায় আপনি যাই মেক আপ বা সাজগোজ করুন না কেন, সেটি খানিকক্ষণের মধ্যে ফিকে হয়ে যায়। তাই বার বার আপনাকে টাচ আপ করতে হয়। তাই এই অবস্থায় যদি আপনি মেক আপের ওপর হালকা করে লিকুইড অথবা জেল ব্লাশার লাগিয়ে নেন তাহলে আপনার মেকআপ যেমনকার তেমনই থাকবে ও কোনোরকম টাচ আপেরও প্রয়োজন হবেনা। এই ধরণের ব্লাশার স্বাভাবিক এবং মিশ্র ত্বকের জন্যে খুব ভাল। শুধু গালের আপেলে বৃত্তাকার গতিতে খুব তাড়াতাড়ি এই ব্লাশারটি লাগান যাতে এটি শুকিয়ে না যায় লাগানোর আগে। লাগানোর পরে এতে কোনোরকম করিম বা পাউডার লাগাবেন না।


Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon