Link copied!
Sign in / Sign up
1
Shares

বাড়িতে বানান বিশেষ কিছু ইতালিয়ান রান্না

রেস্তোরাঁতে গিয়ে খেতে ভালো বাসেন? এবং তার সাথে প্রিয় ইতালিয়ান খাবার। আমার বাঙলিরা সর্বভুক। সে চাইনিজ হোক বা ইতালিয়ান। কিন্তু আপনি ভাবেন রেস্তোরাঁর এই খাবার বাড়িতে বসে কি বানানো সম্ভব? নিশ্চই! একজন ইতালিয়ান নাগরিকের কাছে কিন্তু এই খাবার অত্যন্ত প্রিয়। আর বাড়িতে অথিতি আসুক বা আপনার বাড়ির সবাইকে ঝটপট পরিবেশন করতে পারবেন আন্তর্জাতিক মানের এই খাবার। তাই আপনাদের জন্য আজ ইতালিয়ান খাবারের কিছু রেসিপি।

১। নিয়োকি

 

উপকরণনিয়োকি ডো তৈরি: জল সোয়া তিন কাপ, বাটার – সাড়ে চার টেবল চামচ, ময়দা- ২কাপ (চেলে নেওয়া), ধনে বা পুদিনা পাতা কুচি- আধ কাপ (চাইলে পার্সলে বা সেলেরি পাতাও দিতে পারেন), পেঁয়াজ বা রসুন বাটা – ১ টেবল চামচ, সরিষা বাটা- ১ টেবিল চামচ, ডিম – ৩টি, চীজ- ১/৪ কাপ, নুন- আধ চা চামচ, নজেল ও পেপার -একটি।

পদ্ধতি: প্রথমে একটি বড় বাটিতে অনেক জল দিয়ে নুন দিয়ে ফুটতে দিন। নুডুলস সেদ্ধ করতে যেমন জল লাগে তেমন করে। এছাড়া অন্য একটি পাতিলে সোয়া তিন কাপ জল নিয়ে তাতে আধ চা চামচ নুন, ও বাটার দিয়ে নাড়তে হবে। জল আধ ফোটা হয়ে আসলেই ময়দা ছেড়ে দিয়ে হ্যান্ড হুইস্কার দিয়ে খুব দ্রুত নাড়তে হবে। প্রয়োজনে চুলা থেকে নামিয়ে নাড়ুন। এর মাখানো আটা থেকে বাটারের সুগন্ধ আসলে তাতে ধনে বা পুদিনা পাতা, সরিষা বাটা ও পেঁয়াজ বা রসুন পাতা কুচি দিয়ে নাড়তে হবে। এর পর ঢাকাই পনির বা কটেজ চীজ দিন। ভালো মতো নেড়ে তিনটি ডিম যুক্ত করে ভালো করে নাড়ুন। খুব সুন্দর একটি ডো হয়ে আসলে নজেল পেপারে ঢুকিয়ে মাথাটা কেটে ফুটন্ত গরম জলে জিলাপি ছাড়ার মতো নিয়োকি ছাড়ুন। প্রতিটি নিয়োকির দৈর্ঘ্য হবে দুই সেন্টিমিটার। একবারে ১৫টির বেশি নিয়োকি জলে ছাড়া যাবে না। নিয়োকি ভেসে উঠলে নামিয়ে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় ঠাণ্ডা করুন।

এবার নুডুলসের মতো নিয়োকি তেলে ভেজে ইচ্ছামতো সবজি, মাংস ও সস দিয়ে পরিবেশন করুন। একদম নুডুলসের মতো করেই বানাতে পারবেন। আবার পাস্তার মতো চীজ দিয়ে বেকও করতে পারবেন।

২। ইতালিয়ান ফিশ ফিলেট

উপকরণঃ ফিলেট কাটাছাড়া মাছের ৪ পিস, ডিম ১ টি ফেটানো, ব্রেড ক্রাম্ব ১ প্যাকেট, চিলি সস ২ চা চামচ, সয়া সস ২ চা চামচ, তেল বা বাটার পরিমাণমতো, নুন স্বাদমতো, গোলমরিচ গুঁড়ো ঝালবুঝে, ২ চা চামচ লেবুর রস, ১ চা চামচ অয়েস্টার সস।

প্রস্তুত প্রণালী:

পদ্ধতি ১: মাছের ফিলেট কাটার কৌশল। শুরুতেই মাছের পেট কেটে নাড়িভুঁড়ি ফেলে দিন। এরপর মাথা ও লেজ কেটে শুধু মাঝের অংশ রাখুন। এরপর মাঝের অংশটুকু নিয়ে মাঝামাঝি অর্থাৎ মেরুদণ্ডের দিক থেকে দু’খন্ড করে ফেলুন। মেরুদণ্ডের কাঁটা ফেলে শুধুমাত্র দুই পাশের মাংসল অংশটি নিন। এগুলো দুই খণ্ড করে ফিলেট তৈরি করুন।

পদ্ধতি ২: প্রথমেই মাছের ফিলেটগুলোতে সয়া সস, চিলি সস, অয়েস্টার সস, লেবুর রস, গোলমরিচ গুঁড়ো ও নুন দিয়ে ভালো করে মাখিয়ে মেরিনেট করে রাখুন ২০-২৫ মিনিট। এরপর একটি ছড়ানো প্লেটে ব্রেড ক্রাম্ব রাখুন। একটি পাত্রে ডিম ফেটিয়ে নিন। এবার একটি প্যানে বাটার দিয়ে গলিয়ে নিন। সাধারণ মাছ ভাজার জন্য যতোটা তেল ব্যবহার করেন ততোটা তেল বা বাটার হলেই যথেষ্ট। এরপর মেরিনেট করে রাখা মাছের ফিলেটগুলো একটি একটি করে ফেটানো ডিমে ডুবিয়ে নিয়ে ব্রেড ক্রাম্বে গড়িয়ে নিন এবং প্যানে দিয়ে লালচে বাদামী করে ভেজে তুলুন। ব্যস, তৈরি হয়ে গেলো মজাদার মজাদার ইতালিয়ান ফিশ ফিলেট।

৩। পায়া কারি

উপকরণ: টেংরি ৮ টা, পেঁয়াজ কুচো ২টা, আদা বাটা ১চামচ, রসুন বাটা ১চামচ, গরম মশলা, বেসন বা ছোলার ছাতু ৩ চামচ, পুদিনা ও ধনে পাতা কুচো ৫ চামচ, ঘি ২চামচ, তেল ৬চামচ, গোলমরিচ ১চামচ, হলুদগুঁড়ো ১/৪ চামচ, ধনেবাটা ১ চামচ, নুন, পাতিলেবু ।

প্রণালী: টেংরি পরিস্কার করে ধুয়ে আদা, রসুন, ও ধনে মিশিয়ে ৪ কাপ জল দিয়ে সেদ্ধ করুন । সেদ্ধ হয়ে জল অর্ধেক হলে নামান । পাত্রে তেল ও ঘি মিশিয়ে গরম করুন । পেঁয়াজ ছেড়ে বাদামি রঙ্গে ভেজে বেসন / ছাতু, গরম মশলা, তেজপাতা, গোলমরিচ ও হলুদ দিন । নাড়াচাড়া করে টেংরি সেদ্ধ ঝোলসমেত ঢেলে দিন । অল্প জল মিশিয়ে ফোটান । ফুটলে ধনে, পুদিনা পাতা, পাতিলেবুর রস ও নুন দিয়ে ৫ মিনিট ফুটিয়ে নামান । গরম গরম পরিবেশন করুন ।

৪। লাজানিয়া

মিট সস তৈরি:

উপকরণ: মুরগির মাংসের কিমা ৫০০ গ্রাম। এক ক্যান টমেটো পিউরি। ১-১/২টি বড় টমেটো টুকরা করা। ১-১/২টি বড় পেঁয়াজ মিহিকুচি। ৫টি রসুনের কোয়া মিহিকুচি। ১/২ চা-চামচ আদাবাটা। ১ চা-চামচ গরম মসলাগুঁড়া। ৪টি মাঝারি আকারের গাজরকুচি। পার্শলে-কুচি ১-১/২ টেবিল-চামচ। নুন স্বাদ মতো। গোলমরিচের গুঁড়া স্বাদ মতো। অলিভ ওয়েল দেড় টেবিল-চামচ।

পদ্ধতি: প্যানে তেল গরম করে পেঁয়াজ ও রসুনকুচি দিয়ে নরম হওয়া পর্যন্ত ভাজুন। আদাবাটা দিয়ে ভেজে এরপর গাজর দিয়ে আরও কিছুক্ষণ ভাজতে হবে। এখন কিমা দিন। রং পরিবর্তন হওয়া পর্যন্ত ভাজতে থাকুন। ভাজা ভাজা হলে টমেটো ক্যানের টমেটো, টমেটোকুচি আর এক কাপ পরিমাণ জল দিয়ে নেড়ে ঢেকে দিন। অল্প আঁচে এক থেকে দুই ঘণ্টা বা জল টেনে যাওয়া পর্যন্ত রেখে দিন। মাঝখানে নুন, গোলমরিচ, গরম-মসলা ও পার্শলে দিয়ে দিন। বারবার নাড়তে হবে যেন প্যানের তলায় লেগে না যায়।

চিজের স্তরের জন্য: 

উপকরণ: ১ লিটার দুধ, ২টি ডিম, পার্মেজান চিজ ৪ টেবিল-চামচ, ড্রাই ওরেগানো সামান্য, নুন সামান্য, গোলমরিচ স্বাদ মতো, ভিনিগার ৩ টেবিল-চামচ।

পদ্ধতি: একটি বড় প্যানে দুধ ফুটিয়ে ভিনিগার দিয়ে ছানা তৈরি করে নিন। ছানা আলাদা হয়ে আসলে পাতলা সুতির কাপড়ে (চিজ ক্লথ) ঢেলে জল ঝরিয়ে নিতে হবে। আধা ঘণ্টা ঝুলিয়ে রেখে জল ঝরাতে হবে। এরপর একটি বড় বাটিতে ছানার সঙ্গে বাকি সব উপকরণ দিয়ে খুব ভালো মতো মিশিয়ে নিন। হয়ে গেল চিজ। এছাড়াও আলাদা করে পার্মেজান চিজ আর মোৎজারেল্লা চিজ লাগবে। এইগুলো সুপার শপে পাবেন অবশ্যই।

লাজানিয়া পাস্তা: লাজানিয়া পাস্তা সিদ্ধ করতে হবে অন্যন্য পাস্তার মতো করেই। এজন্য একটি বড় প্যানে জল ফুটিয়ে পাস্তা আর নুন দিয়ে সিদ্ধ করে নিন। মনে রাখতে হবে পাস্তা ওভেনেও সিদ্ধ হবে। তাই খুব বেশি নরম করা যাবে না। নরম হলেই নামিয়ে জল ঝরিয়ে অলিভ ওয়েল দিয়ে মাখিয়ে রাখতে হবে যাতে একটির সঙ্গে অন্যটি লেগে না যায়।

লাজানিয়া তৈরি: একটি ওভেন প্রুফ ডিশে অলিভ অয়েল মাখিয়ে নিতে হবে। এরপর মিট সস দিন। এর উপর পাস্তা বিছিয়ে দিন এমনভাবে যেন ফাঁকা না থাকে। এরপর চিজ দিয়ে সমান করে লেয়ার করুন। এর উপর মিট সস দিয়ে উপরে মোৎজারেল্লা চিজ, পার্মেজান চিজ ইচ্ছে মতো দিয়ে আবার পাস্তাসহ সমান করে দিতে হবে। এর উপর আবার মিট সস দিয়ে মোৎজারেল্লা আর পার্মেজান চিজ দিয়ে লেয়ার করে প্রিহিট করা ওভেনে ১৯০ ডিগ্রিতে ৫০ মিনিট অথবা চিজের রং পরিবর্তন হওয়া পর্যন্ত বেইক করতে হবে। বের করে ঠাণ্ডা হলে কেটে পরিবেশন করুন। নিজের ইচ্ছা মতো লেয়ার করা যায়। এজন্য মিট সসের পরিমাণ বাড়াতে হবে। আবার ডিশ বড় ছোট হলেও উপকরণ বাড়িয়ে কমিয়ে নিতে পারেন। ওভেন থেকে বের করেই সঙ্গে সঙ্গে স্লাইস বা টুকরা করলে চিজ ছড়িয়ে যায় আর স্তরগুলো বোঝা যায় না। তাই কিছু সময় অপেক্ষা করে, পরে কেটে পরিবেশন করুন।

৫। ইতালিয়ান চিকেন পাস্তা 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon