Link copied!
Sign in / Sign up
60
Shares

কতরকমের পরোটা বানাতে চান? রেসিপি চাই?

 


আপনার বাড়ির সকালের জলখাবারে কি মাঝে মাঝে পরোটা হয়ে থাকে? কিন্তু শুধু তেলে ভাজা পরোটা খেতে আর মন চাইছে না। পরোটা খাবারটি কম-বেশি সকলেই পছন্দ করে। এই পরোটা নানাভাবে রান্না করা যায়। আলু পরোটা, ডাল পরোটা, সবজি পরোটা, কিমা পরোটা। বিকেলের নাস্তায় হোক কিংবা সকালের নাস্তায় পরোটা সবাই অনেকেই ভালবাসবেন। তাই আপনাদের জন্য অন্য ধরণের কিছু পরোটার রেসিপি। চটপট বানিয়ে ফেলুন আর বাড়ির সবার সাথে আনন্দ করে খান।

১. চিকেন পরোটা

উপকরণ: ময়দা ২ কাপ, নুন পরিমাণ মত, তেল ২ টেবিল চামচ, হালকা কুসুম গরম জল

কিমার জন্য: চিকেন কিমা ১কাপ, পেয়াজঁ মিহি কুচি২টি, কাচাঁলঙ্কা কুচি ২-৩ টি, আদা -রসুন বাটা টেবিল চামচ, নুন পরিমান মত, মিক্স মশলা ১ চা চামচ, হলুদ গুঁড়ো ১/২ চা চামচের কম, লঙ্কা গুঁড়ো খুব অল্প, ভাজা জিরা গুঁড়ো খুব সামান্য, তেল রান্নার জন্য, ধনেপাতা কুচি পরিমান মত

কিমা রান্না: সব উপকরণ পাশে তৈরি রাখুন। এখন প্যানে তেল গরম করে পেয়াজঁ কুচি দিয়ে কয়েক সেকেন্ড নেড়ে আদা রসূন বাটা দিয়ে বাকি মশলা ও নুন দিয়ে একটু কষিয়ে কিমা দিয়ে নেড়ে রান্না করতে হবে। মিড়িয়াম আচেঁ ঢেকে ৫-৬ মিনিট রান্না করে নিন। ধনেপাতা কুচি দিয়ে নামিয়ে নিন।

প্রণালীময়দা, কিমা রান্নার আগে মেখে রেখে দিবেন । একটি বাটিতে ময়দা ও নুন নিয়ে ভাল করে মিশান এবং তেল দিয়ে হাত দিয়ে ভাল করে মিশান। এখন অল্প অল্প জল দিয়ে ময়দা মাখাতে হবে। ময়দা বেশি নরম করবেন না। বেশি শক্ত ও না । ৫ মিনিট ভাল করে মথে নিন ময়দা। এবার ঢেকে রেখে দিন ২০-২৫ মিনিট।২৫ মিনিট পর ডো থেকে ছোট ছোট গোল্লা বানিয়ে নিন। এখন একটু গোল্লা নিন ময়দা ছিটায় বড় পাতলা করে রুটি বেলে নিন। এখন রুটিতে একটু ঘি লাগিয়ে নিন এবং উপরে একটু ময়দা ছিটিয়ে নিন। এবার রুটির উপর লম্বা করে কিমা রাখুন যেভাবে রোলে কিমা রাখা হয়। এবার এক পাশ থেকে রোল করে করে নিন এবং গোল করে প্যাচিয়ে নিন। এভাবে সব করে নিন। এখন কিমা ভরা রুটির একটি গোল্লা নিয়ে তেল লাগিয়ে পিড়িতে সাবধানে বেলে নিন যেন কিমা বের হয়ে না যায়। বা ডাল পুরির মত পুর ভরে মুখ বন্ধ করে সাবধানে বেলে নিতে হবে। প্যান গরম করে তাতে অল্প তেল দিয়ে মিড়িয়াম আচেঁ এক পিঠ বাদামি হলে উল্টায় অপর পিঠ বাদামি করে ভেজে নিন। এভাবে সব কিমা পরোটা করে নিন একে একে। কেটে প্লেইটে সাজিয়ে সস, সালাদ দিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার চিকেন কিমা পরোটা।

২. ঢাকাই পরোটা

উপকরণ: ২ কাপ ময়দায় ৪ টেবিল চামচ গুঁড়ো দুধ , ৩ টেবিল চামচ গলানো ঘি, ১+১/২ টেবিল চামচ চিনি , ১ টি ডিম, পরিমান মতো নুন আর হালকা গরম জল।

প্রণালিসবগুলো উপকরণ দিয়ে একটি মিডিয়াম নরম ডো করে নিন। ভালভাবে মাখুন, এই মাখার উপরেই ভালো পরোটা অনেকাংশে নির্ভর করে। ভেজা কাপড় দিয়ে কমপক্ষে ১ ঘন্টা ঢেকে রেখে দিন। এবার ডো থেকে বড় বড় গোল্লা করে নিন। ৮ টার মতো হবে। বেলে নেয়ার জায়গায় তেল মাখিয়ে গোল্লা গুলো থেকে বড় একটা রুটি করুন। রুটির গায়ে ঘি বা ডালডা ছড়িয়ে দিন। যারা বাইরে থাকেন ,তারা বাটার ফ্লেভার্ড শর্টেনিং ব্যাবহার করতে পারেন, আমি তাই করি। এবার শুকনো ময়দা ছড়িয়ে দিন। রুটিটাকে অর্ধেক ভাজ করুন। অর্ধচন্দ্র বা নৌকার মতো দেখাবে। আবার সেই ঘি/ডালডা ছড়িয়ে ময়দা ছড়িয়ে দিন। এবার পাশ থেকে মুড়িয়ে কোনের মতো করে নিন। কোন টাকে উপর থেকে নিচে পেচিয়ে পেচিয়ে বসিয়ে ফ্ল্যাট করে দিন। সব গুলো এবার বেশ অনেকটা তেল মাখিয়ে আরও কম্পক্ষে ৪০ মিনিট রেখে দিন। বেলে নিন, আর ডুবো তেলে ভেজে নিন।

৩. নান পরোটা

উপকরণ: ময়দা ৩ কাপ, চিনি দের টেবিল চামচ, গুড়ো দুধ ২ টেবিল চামচ, ইস্ট ৩ চা চামচ, ডিম ১ টা, গলানো বাটার ২ টেবিল চামচ, নুন দের চা চামচ, কুসুম গরম জল পরিমানমত

প্রণালী১/৩ কাপ হালকা কুসুম গরম জলেতে চিনি গুলে তাতে ইস্ট দিয়ে নেড়ে দিতে হবে। ইস্ট আস্তে আস্তে ফুলে উঠার জন্য ১০ মিনিট ঢেকে রাখতে হবে। ১০ মিনিট পর অন্য পাত্রে ময়দা নিয়ে বাটার, নুন , গুড়ো দুধ একসাথে হাত দিয়ে নেড়ে নিতে হবে। এবার ইস্ট এর মিশ্রণটা দিয়ে মাখতে হবে। এরপর একটা ডিম ফেটিয়ে দিয়ে ভালো করে মাখতে হবে। এখন যতটুকু জল দরকার ততটুকু জল অল্প অল্প করে মিশাতে হবে এবং একটা মসৃন ডো বানাতে হবে। ডোর পাত্রকে একটা এয়ার টাইট পাত্রে ভরে দুই ওভেনের মাঝামাঝি রাখতে পারলে ভালো হবে। ওভেনের উপরে না কিন্তু। ওভেনের পাশে অল্প আঁচে জ্বালিয়ে আধা ঘণ্টা এভাবে রাখতে হবে। গরমে ডো টা ফুলে উঠবে। ১/২ ঘন্টা পর ডো দিগুণ ফুলে যাবে। এটাকে আবার হাত দিয়ে মেখে মেখে ফোলা ভাব কমিয়ে দিতে হবে। এবার ডো টাকে ৮ ভাগ করে নিতে হবে ও রুটি বেলতে হবে। খুব মোটা বা খুব পাতলা রুটি হবে না। এবার এক কাপ জলেতে ১ টেবিল চামচ নুন গুলে নিন। তাওয়া বা মোটা তলা ওয়ালা গরম ফ্রাইপেনে হাত দিয়ে নুন জল ছিটা দিন। তাওয়া সাদা হয়ে যাবে। এবার আবার জলের ছিটা দিয়ে সাথে সাথে রুটি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে রাখতে হবে।অল্প আঁচে ২-৩ মিনিট পর বা রুটির নীচ লাল লাল হলে উল্টে ঢেকে দিতে হবে। রুটিটা ফুলে যাবে এবং অন্য পাশ লাল লাল হলে নামিয়ে নিতে হবে। চাইলে এখন বাটার ব্রাশ করে নিতে পারবে। রুটি ভাঁজার পর কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে তাহলে রুটি নরম থাকবে।

৪. লাচ্ছা পরোটা

উপকরণ: ময়দা দেড় কাপ, সুজি ১/৪ কাপ, চিনি ১ টেবিল চামচ, গুঁড়ো দুধ ২ টেবিল চামচ, দুধ মেশানো উষ্ণ জল প্রয়োজনমত , সাধারণ তাপমাত্রার ডিম ১টি,তেল/ডালডা হাফ কাপ, নুন স্বাদ অনুযায়ী, তেল বেলার জন্য ও ভেতরে দেয়ার জন্য, ঘি ভাজার জন্য

প্রনালিময়দা, সুজি, চিনি , নুন , গুঁড়ো দুধ অর্থাৎ সমস্ত শুকনো উপাদানগুলো একসাথে মিশিয়ে নিন। এরপর তেল দিয়ে দিয়ে ময়ান করুন। ডিম দিয়ে দিন। অল্প অল্প করে দুধ মেশানো জল দিয়ে দিয়ে দিয়ে মোলায়েম ও নরম ডো তৈরি করুন। ডোটি ভালো করে তেল মেখে ঢেকে রাখুন ১ ঘণ্টা। ভেজা কাপড় দিয়ে। এরপর ডোটি আপনার পছন্দমত সাইজে ভাগ করে নিন। অর্থাৎ লেচি কেটে নিন। প্রতিটি লেচি বেলে পাতলা করে নিন। তেল দিয়ে বেলতে হবে, কোন ময়দা দেয়া যাবে না। যতটা সম্ভব পাতলা করে বেলে নিন। যত পাতলা হবে, পরোটায় লেয়ার তত বেশি হবে। ভালো করে ভেতরে ঘি মাখান। এরপর ময়দা ছিটিয়ে দিন। একটি ছুরি নিয়ে পাতলা রুটিটি ফালি ফালি করে কেটে নিন, কেবল মাথার কাছে কিছু জায়গা কাটবেন না যেন প্রতিটি ফালি জোড়া লেগে থাকে। কাটা হলে সবগুলো ফালিকে একত্রিত করে দড়ির মত মুড়ে নিন ভালো করে। এতে পরতায় লেয়ার তৈরি হবে। (কাটতে না চাইলে কাগজের পাখার মত ভাঁজ করে নিবেন) এবং সেটা দিয়ে কয়েলের মতন পেঁচিয়ে একটা শেপ তৈরি করুন। হালকা তেল মেখে আবারও ঢেকে রাখুন ১ ঘণ্টা। ভেজা কাপড় দিয়ে। ঢেকে না রাখলে বেলতে গিয়ে সমস্যায় পড়বেন। এক ঘণ্টা পর গ্যাসে তাওয়া গরম হতে দিন ভালো করে। লাচ্ছা পরোটা গনগনে আগুনে সেঁকতে হয়। পরোটা গুলো সাবধানে বেলে নিন, কারণ ভাঁজে ভাঁজে খুলে আসতে পারে। বেলেই তাওয়ায় দিয়ে দিন। দুপিঠ প্রথমে ভালো করে সেঁকে তারপর ঘি বা তেল দিন। লাল লাল করে সেঁকে নিন। সেঁকা পরোটা একটা প্লেটে বা নরম কাপড়ের মাঝে নিয়ে ঢেকে রাখুন। সবগুলো পরোটা সেঁকা হলে সেগুলো একত্রিত করে চারপাশ থেকে হালকা করে চাপ দিন। দেখবেন ভাঁজগুলো আলগা হয়ে গিয়েছে। তৈরি আপনার খাস্তা ও নরম নাচ্ছা পরোটা।

৫. আলু কুলচা

উপকরণডো তৈরির জন্য, ২ কাপ ময়দা, ১ চা চামচ চিনি, ১ চা চামচ বেকিং পাউডার, ১/৪ চা চামচ বেকিং সোডা, নুন , ১/৪ কাপ টকদই, ২ চা চামচ তেল, জল, পুরের জন্য, ২টি সিদ্ধ বড় আলু, ১টি কাঁচালঙ্কা কুচি, ১/২ চা চামচ কাসমেরি লঙ্কা গুঁড়ো, ১/৪ চা চামচ গরম মশলা, ১ ইঞ্চি আদা কুচি, ১/৪ চা চামচ আমচুর পাউডার, ১/৪ চা চামচ মৌরি, ২ টেবিল চামচ ধনেপাতা কুচি, নুন , ২ চা চামচ তিল, ৩ টেবিল চামচ ধনিয়া গুঁড়ো, মাখন

প্রণালীপ্রথমে একটি পাত্রে ময়দা, টকদই, চিনি, বেকিং সোডা, বেকিং পাউডার, নুন এবং জল একসাথে মিশিয়ে ডো তৈরি করুন। একটি পাতলা সুতির কাপড় দিয়ে ডোটি পেঁচিয়ে রাখুন ২ ঘন্টা। আরেকটি পাত্রে আলু, কাঁচালঙ্কা, কাশ্মিরি লঙ্কা গুঁড়ো, গরম মশলা, ধনিয়া গুঁড়ো, আমচূর গুঁড়ো, গরম মশলা, ধনেপাতা কুচি, মৌরি, আদা কুচি, নুন দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার ডোটিকে দুই ভাগে ভাগ করে নিন। একটি ভাগ রুটির মতো করে কিছুটা বেলে নিন। আলুর মিশ্রণটি দিয়ে একটি বড় আলুর বল তৈরি করুন। রুটির মাঝে আলুর বলটি দিয়ে রুটিকে চারপাশ থেকে মুড়িয়ে নিন। এরপর রুটির একপাশে কালো জিরা, সরিষা পাতা দিয়ে হালকা তেল ব্রাশ করে নিন। অন্যপাশে বেলুন দিয়ে বেলে রুটি তৈরি করুন। তাওয়া গরম হয়ে এলে এতে রুটি দিয়ে সেঁকে নিন। কিছুটা বাদামী হয়ে এলে তাওয়াটি উল্টে আগুনে একটু সেঁকে নিন। রুটি ফুলে এলে এর উপর মাখন ব্রাশ করুন। তৈরি হয়ে গেলো আলু কুলচা।

৬. পালং পরোটা

উপকরণ: আটা ২ কাপ, বেসন ১ কাপ, পালংশাক পেস্ট ১ কাপ, কাঁচা লঙ্কা ৪-৫টা, তিল ২ টেবিল চামচ, ইস্ট ২ টেবিল চামচ, তেল পরিমাণমতো, নুন ১ টেবিল চামচ, জল পরিমাণমতো।

প্রণালি: গরম জলেতে পালং পাতা ছেড়ে ফুটিয়ে নিন। ঠান্ডা হলে কাঁচা লঙ্কা বেটে পেস্ট বানান। তিল টেলে নিয়ে আটা ও বেসনের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। নুন দিয়ে শুকনা করে ময়ান দিয়ে নিন। এবার পালং পেস্ট দিয়ে প্রয়োজন হলে অল্প জল দিয়ে মিশিয়ে নিন। এবার পরোটার আকার করে ভেজে নিন।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
100%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon