Link copied!
Sign in / Sign up
11
Shares

বাচ্চাদের পুষ্টি : ছোটদের জন্য খাদ্য প্রণালী

 

প্যানকেক বানানোর প্রণালী

একটা বাটিতে একটা ডিম নিন, তার সঙ্গে মেশান মাঝারি মাপের এক কাপ ময়দা (আপনি আধ কাপ আটা বা ওটমিল ও ব্যবহার করতে পারেন)। স্বাদ অনুসারে নুন ও চিনি মেশান। এবার ঢালুন দুই টেবিল চামচ গলা মাখন আর আধ টেবিল চামচ বেকিং সোডা। এক কাপ (যে মাপের কাপে ময়দা নিয়েছেন) বাটার-মিল্ক নিন (বা বাটার-মিল্ক না থাকলে আধ কাপ দই ও আধ কাপ দুধ মিশিয়ে নিন) এবং বাটিতে ঢেলে পুরো মিশ্রণটা ভালো করে নাড়ুন।

মাঝারি মাপের নন-স্টিক প্যানে এই প্যানকেক ব্যাটারের এক হাতা ঢালুন ও ভালো করে ছড়িয়ে দিন। মাঝারি আঁচে রান্না করুন যতক্ষন না ব্যাটার ভালোভাবে তৈরি হয়ে যায় ও মাঝখানের অংশটা শক্ত হয়ে ওঠে। তারপর কেকটাকে উল্টে দিন ও অন্য দিকটা তৈরি হতে দিন, যতক্ষন না সেটা হালকা সোনালী মেরুন রঙের হয়ে যায়। এবার এটা খাবার জন্য তৈরি। এরপর এতে লাগানো যায় আপনার বাচ্চার প্রিয় মধু, চকোলেট বা জ্যাম, অল্প পরিমাণে, যাতে এটা আরো সুস্বাদু ও আনন্দদায়ক হয়ে ওঠে। বাচ্চাকে খাওয়ানোর আগে খেয়াল রাখুন যেন এটা ঠান্ডা হয়ে গিয়ে থাকে।

 

স্টাফ করা পরোটা বানানোর প্রণালী

ময়দা মাখার জন্য টিপ : বাচ্চার জন্য পরোটা বানানোর সময় জলের বদলে দুধ দিয়ে ময়দা মাখুন। এর ফলে পরোটা নরম হবে ও সহজে চিবানো যাবে।

আলু পরোটা

সেদ্ধ আলু দিয়ে মাখা ময়দা স্টাফ করুন এবং সেটাকে ভাল করে পাকিয়ে নিন যাতে আলু সব জায়গায় সমান ভাবে পরে। মাঝারি আঁচে নন-স্টিকে রান্না করুন। শেষে একটু মাখন লাগিয়ে দিন, আপনার বাচ্চা এটি খেতে খুবই ভালোবাসবে।

গাজর পরোটা

আলুর বদলে সূক্ষ্মভাবে গ্রেট করা গাজর দিয়ে মাখা ময়দা স্টাফ করতে হবে। এটাকে পাকানো হয়তো একটু শক্ত হবে কারণ গাজর অনেক আদ্রতা শুষে নেয়, তাই শুকনো আটা ছড়িয়ে নিয়ে পাকাতে থাকুন। মাঝারি আঁচে নন-স্টিকে রান্না করুন। শেষে একটু মাখন লাগিয়ে দিন, আপনার বাচ্চা এটি খেতে খুবই ভালোবাসবে।

পালংশাকের পরোটা

পালংশাকের দুটো পাতা সেদ্ধ করে ব্লেন্ডারে মিশিয়ে নিন। তারপর এই পেস্ট মিশিয়ে নিন শুকনো ময়দার সাথে। ময়দার মিশ্রণ ভালো করে মাখুন। এক চিমটে নুন মেশান স্বাদের জন্য। পরোটা পাকিয়ে নিন – এটা সবুজ রঙের হবে, যা আপনার বাচ্চা কে আকর্ষিত করবে। মাঝারি আঁচে নন-স্টিকে রান্না করুন। শেষে একটু মাখন লাগিয়ে দিন, আপনার বাচ্চা এটি খেতে খুবই ভালোবাসবে।

ডালের পরোটা

আপনার বাচ্চাকে ডাল খেতে শেখানোর শ্রেষ্ঠ উপায় হলো রান্না করা ডাল ময়দার সঙ্গে মেখে সেই মিশ্রণ দিয়ে পরোটা বানানো। এতে কেচাপ আর মাখন লাগালে এটা খেতে অতিশয় সুস্বাদু হবে।

গ্রেট করা মুরগির মাংস, চিজ আর আলু দিয়ে ছোট কাটলেট বানানোর প্রণালী

একটা সেদ্ধ আলু নিয়ে সেটাকে সমান ভাবে পিষুন। এর সঙ্গে সূক্ষভাবে কাটা সেদ্ধ মুরগির মাংস (যে মাংস সেদ্ধ করছেন তাতে হাড় থাকা চলবে না) আর এক টুকরো চিজ মেশান। এবার স্বাদবর্ধক বস্তু যোগ করুন যেমন চিজ, নুন, অরেগানো ইত্যাদি। ছোট, কামড়ানো যায় এমন মন্ড (বাচ্চার কামড়ানোর যোগ্য হতে হবে, না হলে গলায় আটকাতে পারে) বানান। হালকা করে ভাজুন, যাতে উপরটা সোনালী রঙের হয়ে ওঠে। বাচ্চাকে দেওয়ার আগে ঠান্ডা করে নিন।

একটা সেদ্ধ আলু নিয়ে সেটাকে সমান ভাবে পিষুন। এর সঙ্গে গ্রেট করা বা ভাপানো সবজি মেশান যেমন গাজর, মটরশুঁটি, বীট, পালং, ইত্যাদি, যা সেদ্ধ করলে খেতে ভালো লাগে। খেয়াল রাখুন, গাজর যেন আগে গ্রেট করে সেদ্ধ করে নেওয়া হয়, নাহলে এটা বাচ্চার জন্য খুব অমসৃণ হয়ে ওঠে, ও পেষা আলুর সঙ্গে ভালো যায় না।

এই প্রণালীটি খুবই সহজ ও আপনার বাচ্চার এই খাবার খুব পছন্দ হবে। কিছু ভুট্টার দানা নিন ও ১৫ মিনিট প্রেশার কুকারে সেদ্ধ করুন, মাঝারি আঁচে। ঠান্ডা হওয়ার পর ব্লেন্ডারে দিয়ে একটি অমসৃণ পেস্ট তৈরি করুন। অন্য একটা পাত্রে একটা সেদ্ধ আলু ছাড়িয়ে তার সঙ্গে ভুট্টার পেস্ট মিশিয়ে দিন। মাখন আর নুন দিন স্বাদের জন্য ও ভালো করে মেশান। কামড়ানোর মতো ছোট ছোট মন্ড বানান এবং প্যানে হালকা তেলে ভেজে নিন, সোনালী রং না আসা পর্যন্ত (কাটলেটের আকার আপনি যেরকম ইচ্ছে রাখুন)। বাচ্চাকে দেওয়ার আগে ঠান্ডা করে নিন।

এক টুকরো হাড়-মুক্ত মুরগির মাংস নিন আর ভালো করে সেদ্ধ করুন। মাংসটা এক টুকরো চিজ, নুন কর কেচাপের সঙ্গে ব্লেন্ড করে নিন খাদ্য প্রসেসরে। খেয়াল রাখুন যে মাংসটা যেন ব্লেন্ড করার সময় একটু উষ্ণ থাকে, কারণ এই তাপেই চিজটা গলে যাবে। হালকা করে পাউরুটি সেঁকুন (খেয়াল রাখবেন যেন এটা শক্ত না হয় ও সহজে কামড়ানো ও চিবানো যায়), ও দুই টুকরো পাউরুটির মধ্যে ব্লেন্ড করা মাংস ও চিজের মিশ্রণটি ছড়িয়ে নিন। বাচ্চাকে দেওয়ার আগে নিজে চেখে দেখুন স্বাদ ঠিক আছে কি না।

১১ মাসের শিশুর খাদ্য চার্ট
৮ মাস বয়সী শিশুর খাদ্য তালিকা
১ বছর বয়সের পূর্বে আপনার শিশুকে খাওয়ানোর ৯ ধরণের খাদ্য
৭ টি নরম মিশ্রণের খাদ্য প্রণালী
৫টি উত্তর ভারতীয় শিশু খাদ্য রন্ধন প্রণালী
শিশুর খাদ্য গাইড: শিশুর জন্য ১০টি সেরা খাবার
শিশুর পুষ্টি: জেনে নিন ৩টি সবচেয়ে পুষ্টিকর খাদ্য যা শিশুর স্বাস্থ ও শক্তি বিকাশে সাহায্য করে
Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon