Link copied!
Sign in / Sign up
3
Shares

মোবাইলের অ্যাডিকশন আপনার; কিন্তু এতে সন্তানের ক্ষতি করে ফেলছেন না তো?


মোবাইল ফোন বা স্মার্ট ফোন! আধুনিক যুগের সবচেয়ে বড় আবিষ্কার। কি পাওয়া যায়না এতে? এতটাই লোভনীয় ও সহজলোভ্য  যে মানুষ সম্পূর্ণভাবে নির্ভরশীল এই ছোট্ট হাতের মুঠোর জিনিসটির ওপর। আপনি হয়তো এক মুহূর্তও কাটাতে পারেন না এটি ছাড়া। তার ওপর যদি আপনি একজন অভিভাবক হয়ে থাকেন তাহলে এটি আপনার শিশুর সাথে স্মৃতিচারণ করার জন্যে ফটোশুট থেকে শুরু করে গেমের সুযোগ সবই এনে দিচ্ছে। কিন্তু এই মোবাইল ফোন আপনার শিশুর কোনো ক্ষতি করছে না তো? 

কথায় আছে একটি শিশু বড়দের দেখেই শেখে। তারা সেগুলিই করে যেগুলি বড়রা করে; বিশেষ করে বাবা মা। তাদের মনটা এতটাই আয়নার মতো পরিষ্কার যে এইভাবেই ফুটে ওঠে তাদের সামনে পারিপার্শ্বিক পরিবেশের চেহারা। সঙ্গে মা-বাবার সময় কাটানো যে কতটা প্রয়োজনীয় তা হয়তো আগেও আপনারা পড়েছেন। কিন্তু দুঃখের বিষয় হল বর্তমানে সেই সময়ের বেশিরভাগ সময়টাই কেড়ে নিয়েছে মোবাইল ফোন। আপনি হয়তো আপনার শিশুর জন্যে সেই মত সময় বেরই করতে পারছেন না। একেই সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং এর যুগ। বাবা মায়েদের সেই ব্যস্ততার ফাঁকে একা হয়ে যাচ্ছে শিশুমন; জন্ম নিচ্ছে একাকীত্ব ও গুরুত্ব না পাওয়ার যন্ত্রণা এবং ক্ষোভ যার ফলে ভয়ঙ্কর অবনতি ঘটছে শিশুদের ব্যবহারে। হয় তারা হয়ে উঠছে অতিরিক্ত আবেগপ্রবণ অথবা একেবারেই আবেগহীন। দেখা দিচ্ছে বদমেজাজ, খিটখিটে স্বভাব বা ঘ্যানঘ্যানে স্বভাব। 

বাবা মা ও শিশুর মধ্যে কথোপকথন হওয়া কালীন যখনই মোবাইলে মন দেন বাবা মা তখনই তা কথাবার্তায় বিঘ্ন ঘটায় এবং শিশু ও মা বাবার মধ্যে একটি মানসিক দূরত্ব তৈরি হয়। বিজ্ঞানসম্মত ভাবে জানা গিয়েছে যে একসাথে মোবাইল ফোন ব্যবহার ও শিশুর দিকে মনোযোগ দেওয়া দুটি কাজ কখনো সম্ভব না কারণ এতে কোনটাই পুরোপুরি ভালভাবে হয় না। তাই যখন আপনি শিশুর সাথে সময় কাটাচ্ছেন তখন শুধু সেটিই করুন, মোবাইলের দিকে মন দেবেন না। 

শিশু মনবিশেষজ্ঞরা বলেন প্রত্যেকটি মানুষেরই উচিত নির্দিষ্ট কয়েকটি দিন পরিবারকে সময় দেওয়া। বিশেষ করে খাবার সময় ডাইনিং টেবিলে বসে অথবা কাজ সেরে বাড়ি ফিরে শিশুদের সঙ্গে সময় কাটানোর মত সুন্দর কিছু নেই। এতে সন্তান তার বাবা মায়ের সাথে মানসিকভাবে জড়িয়ে পড়তে পারে ও তাদের মধ্যে পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় হয়; তারা মনে করে যে বাবা মা তাদের কতটা গুরুত্ব দেয়। তাই আমরা বলি অভিভাবকরা! স্মার্টফোন এবং অন্যান্য টেকনোলজি ব্যবহারের ক্ষেত্রে আপনারা একটু লাগাম দিন; তাতে সন্তানদের সঙ্গে সময়ও কাটাতে পারবেন ও একজন সুমনোভাব সম্পন্ন একটি মানুষ তৈরী করতে পারবেন সন্তানকে।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon