Link copied!
Sign in / Sign up
3
Shares

৭টি বিশেষ জিনিস যা আপনার গর্ভাবস্থার সময় রাখতেই হবে


১. প্রসারিত চিহ্ন ও শুস্কতা কমানোর লোশন

গর্ভাবস্থাকালীন সবচেয়ে দৃশ্যমান বৈশিষ্ঠ হল গৰ্ভের প্রসারিত হওয়া এবং এর ফলে প্রসারিত চিহ্ন পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবেই। শুধু তাই নয়, আপনার ত্বক ও শুষ্কতায় ভুগতে পারে। শুস্কতায় ভোগার ফলে নির্দিষ্ট অংশে জ্বালা বা চুলকুনিও হতে পারে। কাজেই, সেই অংশগুলিকে আপনার নরম ও তৈলাক্ত রাখতে গেলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী শুস্কতা বা প্রসারিত চিহ্ন কমানোর লোশন বা তেল রাখা এবং নিয়মিত ব্যবহার করা উচিত। বর্তমানে বহু মায়েরা বায়ো তেল কে খুব উপকারী বলে গণ্য করেছেন।

২. গর্ভাবস্থাকালীন বিশেষ প্যান্ট বা প্রেগন্যান্সি প্যান্ট

গর্ভাবস্থার সময় আপনার চেহারায় আমল পরিবর্তন আসার ফলে আপনার আগের পোশাখগুলি পড়ে আপনি আর আরাম বোধ করবেননা। তাই এই সময় আপনাকে পোশাখের দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। বিশেষ এই সময়ের জন্যে বিশেষ ধরণের ম্যাটার্নিটি প্যান্ট বা ম্যাটার্নিটি লেগিংস আজকাল উপলুব্ধ যেগুলি পড়লে আপনি আরাম ও স্বাচ্ছন্দ বোধ করবেন। এমনকি ম্যাটার্নিটি জিন্স ও উপলুব্ধ হতে পারে যা আপনি বাইরেও পড়ে বেরোতে পারেন।

৩. বেলি সাপোর্ট ব্যান্ড

গর্ভাবস্থার সময় ওজন বৃদ্ধি বা শরীরের নানা অভ্যন্তরীণ পরিবর্তনের ফলে আপনার পিঠে বা কোমরে ব্যাথা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই এই সময় বেলি সাপোর্ট ব্যান্ড ব্যবহার করলে শিশুকে গর্ভে ধারণ করার ফলে শরীরের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গে যে ভারের সৃষ্টি হয়, তা অনেকটা আনুপাতিক থাকে এবং এর ফলে আপনার কোমরে ও পিঠে আরাম অনুভব হয়। এছাড়াও এই জিনিসটি আপনার গর্ভাবস্থা চলাকালীন শরীরের আকারেও সামঞ্জস্য বজায় রাখতে সাহায্য করে।

৪. পপ ডেম পিল্স বা সাপ্লিমেন্ট

গর্ভাবস্থার সময় আপনার খাদ্যতালিকাতেও নানা পরিবর্তন মানিয়ে নিতে হয় এবং বিশেষ করে হালকা ও পুষ্টিকর খাদ্যই খেতে হয় যাতে শিশুর ওপর কোনো হানিকারক প্রভাব না পড়ে। আবার সবসময় আপনি যা খাচ্ছেন তার যে পুরোটাই আপনার শরীরে পুষ্টি দায়ে তা নাও হতে পারে কারণ আপনি মাঝেই মাঝেই যা খাবেন তা বমি হয়ে বেরিয়ে যেতে পারে। কিন্তু, যাই হয়ে যাক, আপনার শরীরের পর্যাপ্ত পরিমানে পুষ্টি প্রয়োজন। তাই চিকিৎসকের পরামস্রশঃ অনুযায়ী আপনাকে বিশেষ সাপ্লিমেন্ট বা পিল্স খেতে হবে এবং সবসময় তা ঘরে রাখতে হবে। এই সাপ্লিমেন্টগুলির মধ্যে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি এবং প্রচুর পরিমানে ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে যা আপনার ও আপনার শিশুর শরীরের ঘাটতি হওয়া পুষ্টিকে সামঞ্জস্যে রাখে।

৫. আরামদায়ক জুতো

আপনি যদি একজন সক্রিয় মানুষ হয়ে থাকেন ও গর্ভাবস্থার সময় আপনার যদি সারাক্ষন বিছানায় শুয়ে বসে থাকা অপছন্দের বিষয় হয়ে থাকে তবে আপনি অবশ্যই স্বল্প হাঁটাচলা বা নির্দিষ্ট ব্যায়াম বা যোগ করতে পারেন। কিন্তু তার জন্যে আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে যেন আপনি হাঁটাচলা করার সময় পায়ে আরাম বোধ করেন এবং আপনার শরীরে কোন কুপ্রভাব না পড়ে। তাই বিশেষ এক ধরণের জুতো যাকে বলে ডাক্তার সোল ব্যবহার করলে আপনি এই সময় হাঁটাচলা করে আরাম বোধ করবেন।

৬. ঘুমোনোর সময় জড়িয়ে ধরার জন্যে নরম কোলবালিশ

নরম কোলবালিশ ব্যবহার করার পেছনে একটি বিশেষ যুক্তি আছে। আপনি যখন গর্ভাবস্থায় থাকেন তখন ঘুমোনোর সময় আপনি সাধারণত পাশ ফিরে ঘুমোতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন যার বেশি চাপটাই আপনার গর্ভের ওপরে গিয়ে পড়ার জন্যে আপনি আপনি সাবলীল ভাবে ঘুমোতে পারেননা; কারণ আপনি শিশুকে নিয়ে সচেতন থাকেন। কাজেই শোয়ার সময় নরম কোলবালিশ পিটার কাছে রেখে ব্যবহার করলে সরাসরি পেটে চাপ পড়েনা এবং আপনিও শান্তিতে ঘুমোতে পারেন।

৭. নতুন ধরণের অন্তর্বাস বা ব্রা

শরীরের অনুপাত পরিবর্তনের সঙ্গে, আপনি আপনার স্তনেও কিছু আকার সংক্রান্ত পরিবর্তন লক্ষ করতে পারেন। কিছু মহিলারা স্তন বৃদ্ধির সম্মুখীন হলে, অন্যরা আবার ছোট হতেও দেখতে পারেন। তাই অবাঞ্চিত ঝামেলা থেকে মুক্ত হওয়ার জন্যে আমরা আপনাকে আপনার অন্তর্বাস বা ব্রা এর ধরণ ও আকার পরিবর্তন করতে প্রস্তাব দিয়ে থাকি। কারণ গর্ভাবস্থার সময় গুরুত্ব না দিলে পরবর্তী অবস্থায় তা আর তার সৌন্দর্য ফিরে নাও পেতে পারে। অবশ্যই চেষ্টা করবেন একটু ভাল প্রকৃতির অন্তর্বাস ব্যবহার করতে যা আপনার পরেও আরাম বোধ হবে।

এই সমস্ত জিনিসগুলি ব্যবহারের ফলে আপনি একটি সুখী ও আনন্দময় গর্ভাবস্থা উপবোগ করতে পারবেন ও ভবিষ্যতেও অন্যদের এই উপদেশ দিয়ে সাহায্য করতে পারবেন। 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon