Link copied!
Sign in / Sign up
1
Shares

৬টি মিথ্যে কথা যা সব নতুন মাকে শুনতে হয়

আপনি সবে হাসপাতাল থেকে ফিরেছেন, আপনার জীবনের নতুন ভালবাসার সম্পদ সঙ্গে নিয়ে এবং সবকিছু আবার ঠিকঠাক ঘটছে। মা হওয়া একটি বিষ্ময়কর অনুভূতি, সেটা প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় বা চতুর্থবার কিনা তাতে বিশেষ তফাৎ হয় না। সবকিছুই সুন্দর। আপান্র পরিবারের লোকজন আপনাকে খুশী রাখার জন্য যার পর নাই চেষ্টা করেন এবং এর থেকে ভাল কিছু আপনি ভাবতেই পারেন না।

একজন প্রথম হওয়া মা-এর জন্য যদিও ব্যাপারটা একটু ভিন্ন প্রকৃতির। একই প্রশ্রয় এবং ভালবাসা পেলেও কখনও কখনও আপনার নিজেকে একটু একা লাগা খুব স্বাভাবিক। তার মধ্যে সবথেকে সম্ভাবনাময় যেটা তা হল লোকজন আপনাকে কিছু বিনামূল্যে অযাচিত জ্ঞান দেওয়ার সুযোগ ছাড়বেন না; ব্যপারটা এমন যে তারা যেন বুঝতে পারেন যে তারা আপনার উপর যে জ্ঞানের বৃষ্টিধারা নামিয়ে আনবেন আপনি তার কোন প্রতিবাদ করবেন না।

তাদের মধ্যে বেশীরভাগেরই আপনার প্রতি আন্তরিক স্নেহ আছে, আপনি বিস্মিত না হয়ে পারবেন না এই ভেবে, যে তাদের দেওয়া পরামর্শের মধ্যে সবগুলিই কি প্রকৃত অর্থে সত্য? তাই এই বিষয়ে আপনার মনে যদি কোন সন্দেহ থাকে (বা যদি তেমন সন্দেহ ভবিষ্যতে দেখা দেয়), তবে তা কাটানোর জন্য আমরা এরকম ৬টি মিথ্যার উদাহরণ এখানে তুলে ধরেছি যেগুলি সাধারণতঃ নতুন মায়েদের বলা হয়ে থাকে।

১। “যখন আপনার বাচ্চা ঘুমাচ্ছে তখন আপনারও ঘুমান উচিত”

এইটি সম্ভবতঃ সবথেকে সাধারণ উপদেশ যা নতুন মায়েদের সবাই দিয়ে থাকেন। কোন কোন মায়ের ক্ষেত্রে এই উপদেশ কার্যকরী হতে পারে, কিন্তু বেশিরভাগ মায়েদের ক্ষেত্রে, বাচ্চার এই ঘুমিয়ে থাকার সময়টা নিজেদের স্নান, বকেয়া কাজকর্ম করা, বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ করা বা খোলা হাওয়ায় শ্বাস নিতেই কেটে যায়।যদিও উপদেশটি আপাতদৃষ্টিতে উপযোগী মনে হয় কিন্তু সবার জন্য এটি কার্যকারী হয় না।

২। “স্তন্যপান করান কষ্টদায়ক হয় না যদি আপনি জানেন কীভাবে এটি করাতে হবে”

মজার বিষয় এই যে অনেক শিশু পরিচর্যা বিশেষজ্ঞ এই ধারনা পোষণ করেন এবং বলেন যে স্তন্যপান করানোর জন্য আপনার কোন কষ্ট হবে না যদি আপনি সঠিক পদক্ষেপগুলো মেনে চলেন। প্রকৃত সত্য হচ্ছে আপনি স্তন্যপান করানোর বিষয়ে যতই ওয়াকিবহাল থাকুন না কেন, কয়েক ঘন্টা অন্তর অন্তর কোন শিশু আপনার স্তন চুষে দুধ পান করলে কিছু ক্ষত, আঁচড়, কাটা দাগ এবং ফুস্কুড়ি দেখা দেবেই। এটি বেশ স্বাভাবিক। এই উপদেশের একটা মাত্র ভাল দিক এই যে ৬ সপ্তাহ মত সময় পরে এই ব্যথাগুলো কিছুটা সয়ে যাবে।

তাহলে, এরপর যদি কেউ আপনাকে এই জ্ঞান দেয় তাদের চোখের দিকে তাকিয়ে বলবেন, “আপনি নিজে এটা করে দেখুন”। এইকথা শুনার পর তাদের মুখভঙ্গিতে যে প্রতিক্রিয়া দেখতে পাবেন, আমরা বাজী রেখে বলতে পারি যে তাতে আপনার কষ্ট কিছুটা লাঘব হচ্ছে বলে বোধ হবে।

৩। “আপনার সমস্ত জীবন পাল্টে যাবে”

আপনাকে এটা মানতে হবে যে এরমধ্যে কিছুটা সত্যি আছে। একটি বাচ্চার জন্ম দেওয়া নিশ্চিতভাবে একটি জীবন পরিবর্তনকারী অভিজ্ঞতা। যদিও এর মানে একেবারেই এটা নয় যে আপনি গর্ভবতী হওয়ার আগে যা যা করতে অভ্যস্থ ছিলেন সেগুলি আপনি করতেই পারবেন না। আপনার গর্ভাবস্থায় বেশীরভাগ মানুষই নিশ্চয় আপনাকে বলেছেন যে শিশু জন্মানোর পরে আপনি তেমনভাবে বেড়াতে যেতে পারবেন না বা বার বার বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরেবেড়াতে পারবেন না। শুরুতে এগুলি সত্য হলেও আপনি অবশ্যই এই উপদেশগুলিকে উপেক্ষা করে এগোতে পারেন।

৪. “যতদিন এই সময়টা চলে যাচ্ছে আপনি উপভোগ করুন। এই সময়টা সত্যি সত্যি খুব দ্রুত পার হয়ে যাবে”

যারা এই কথাকটি বলেন বলার সময়ে সাধারণতঃ তাদের চোখেমুখে একটা হাল্কা হাসির রেখা দেখতে পাবেন। এটি এমন একটা মিথ্যা যা আপনাকে সবসময় তাড়া করে বেড়াবে। আপনার শিশুর ডায়াপার পরিবর্তন করার কষ্টের সময় এই কথা আপনার মনে পড়বে আবার আপনার বাচ্চা যখন প্রথম পদক্ষেপ ফেলছে তখনও আপনার এই কথা মনে পড়বে।

অন্যদিক দিয়ে এই কথা আপনার মনে থাকবে কেননা আপনার মনে হবে যে এইতো সবে গতকাল আমি প্রসূতিসদন থেকে ফিরে এলাম। প্রথমক্ষেত্রে আপনার এরকম মনে হবে কেননা এতসব পাগলামির মধ্যে দিয়ে সময় বেশ ধীরে পথ চলতে থাকবে।

৫। “প্রথম কয়েকটি মাসই সবথেকে সুন্দর”

এই বিষয়টা নিশ্চিত এবং সঙ্গে সঙ্গেই সবথেকে কঠিনও। কীভাবে বাচ্চার পরিচর্যা করবেন সেই ব্যাপারে আপনি তখনও কিছু শিখছেন। স্তন্যপ্পান করানো তখনও বেশ যন্ত্রণাদায়ক, আপনি তখনো গর্ভপরবর্তী অবসাদে আক্রান্ত হওয়ার পর্যায়ে আছেন এবং আপনার শরীর তখনও গর্ভাবস্থা থেকে সেরে উঠছে।

সত্যি বলতে গেলে, এটি সবার পক্ষেই খুব সাধারণ কাজ নয়। আমরা স্বীকার করি যে শিশুর ছোট্ট আঙ্গুলগুলি হাতে ধরে রাখা একটা খুব আনন্দের অনুভূতি। “প্রথম কয়েকটি মাসই সবথেকে সুন্দর” - এটি প্রকৃত অর্থেই একটি আলগা উক্তি।

৬। “একবার নিজের বাচ্চা পেয়ে গেলে, আপনি সব ভুলে যাবেন”

যে মায়েরা আগে বাচ্চা জন্ম দিতে গিয়ে বিস্ময়কর অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়েছেন, তাদের কাছে এই কথাটি খুবই প্রিয়। তাঁরা বলেন যে আপনি প্রসবকালীন সব যন্ত্রণাকে ভুলে যাবেন যখন আপনার বাচ্চা আপনার কাছে এসে যাবে। আমরা স্বীকার করি যে আপনার সদ্যোজাত শিশুর মুখের দিকে তাকালে আপনি অনেক দুঃখ কষ্ট ভুলে যেতে পারেন কিন্তু শিশুর জন্মকালীন প্রসবযন্ত্রণা এত তীব্র যে আপনি সহজে তা ভুলতে পারবেন না। যাঁরা এই নিশ্চয়তার বার্তাগুলি দেন তাঁরা সাধারণভাবে হৃদয় দিয়ে আপনার মঙ্গলের কথা ভাবেন, এই উদ্দেশ্যে যাতে কঠিন পরিস্থিতিতেও আপনি উদ্বুদ্ধ থাকেন। অবশ্যই তার মানে এই নয় যে একবার শিশু এসে গেলেই আপনি সহজেই অতীতের কষ্ট ভুলে যাবেন। শিশু জন্মের পরবর্তী পর্যায়ের চিকীৎসা একটি দীর্ঘস্থায়ী এবং কষ্টকর পদ্ধতি, যা আপনাকে সর্বক্ষণ মনে করাতে থাকবে আপনার প্রসবকালীন যন্ত্রনার কথা।  

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon