Link copied!
Sign in / Sign up
10
Shares

৫ ধরনের বিবাহিত দম্পতি! আপনারা কোনটি?


বিবাহ হলো ভিন্ন ভিন্ন পটভূমি, চিন্তাধারা এবং অনুভূতির দুটি মানুষের মিলন। তারা একত্র হয়ে একটি পরিবার গড়ে তোলে। দুটি বিবাহ কোনো মতেই এক হতে পারে না। এক দম্পতির ক্ষেত্রে যা কাজ করে, তা অন্য দম্পতিদের ক্ষেত্রে কাজ না ও করতে পারে। এটাই হলো বিবাহের সৌন্দর্য। এটা হলো আপনার আত্মার সঙ্গীকে নিয়ে সুখী থাকার একটি অনন্য সুযোগ। এর মতোই, এটাও সত্যি যে বিবাহ বিভিন্ন রকমের হয়। এখানে তুলে ধরা হয়েছে ৫টি আলাদা আলাদা ধরনের বৈবাহিক সম্পর্ক যা আপনার বর্তমান অবস্থার সাথে মানানসই হতে পারে।


১. লড়াই?! না!!

এরা হলো লড়াই বিমুখ। পৃথিবী ধ্বংসের মুখে চলে এলেও, এরা লড়াই ঝগড়া করে না এবং দ্বন্দ্ব ও মোকাবিলা করাকে পরিহার করে। বরং, এই ধরনের দম্পতিরা একে অপরকে শ্রদ্ধা করে, একে অপরের সম্পর্কে ইতিবাচক চিন্তাভাবনার প্রকাশ করে এবং স্বাধীনতা ও পারস্পরিক নির্ভরতার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রেখে চলে। এরা একে অপরের স্বাতন্ত্র্যকে সম্মান করতে জানে। মোট কথা, এই ধরনের দম্পতিরা সহজেই মেনে নেয় যে তারা দুজন দুধরনের মানুষ যাদের চাহিদাগুলো আলাদা। এটা তাদের জীবনকে সুখী এবং স্থিতিশীল রাখে।

বাস্তবে, এই ধরনের দম্পতিদের সফলতার হার সবথেকে বেশি এবং এই ধরনের সম্পর্কে থাকা জীবনের একটি সবথেকে ভালো অভিঞ্জতা।


২. আবেগপ্রবণ দম্পতি

এই ধরনের দম্পতিরা হলো তারা যারা ঝগড়ার সময়ে গভীরভাবে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ে। ঝগড়ার সময়ে, এরা সফল হওয়ার জন্যে সন্দিহান হয়ে থাকে। এরা অনেক তর্ক বিতর্ক করে, কিন্তু কখনোই অন্যের আবেগ অনুভূতিগুলোকে জলাঞ্জলি দিয়ে নয়। এরা কখনোই একে অপরকে অসম্মান বা অপমান করে না। এদের বিতর্কগুলো সাধারণত হালকা চালের হয় এবং হাসি, রসবোধ ও পরিতৃপ্তিতে পরিপূর্ণ থাকে।

এই ধরনের দম্পতিদের সাথে সমস্যা হলো এদের নিজস্ব জগতের কোনো পরিষ্কার সীমানা থাকে না যার জেরে এরা অন্যের নিজস্ব জগতে ঢুকে পড়ে। যদিও এদের একে অপরের প্রতি ভালোবাসা এবং সততা খাঁটি, তবুও এদেরকে নিজেদের ভূমিকা নিয়ে সংগ্রাম করে চলতে হয়।

৩. সুষম দম্পতি

এরা হলো নিরপেক্ষ দম্পতি, যারা ঝগড়া বিমুখ এবং আবেগপ্রবণ দম্পতিদের মাঝামাঝি থাকে। এরা একে অপরের সঙ্গে থাকাটাকে এবং একে অপরের সঙ্গে সময় কাটানোটাকে উপভোগ করে। এরা নিজের পার্টনারের দৃষ্টিভঙ্গিকে বোঝার দিকে জোর দেয় এবং অনেক সময় তার অনুভূতির প্রতি সহানুভূতিশীল হয় যা এদের আরও স্নেহের যোগ্য করে তোলে। নিজেদের বৈবাহিক সম্পর্ক কেমন হওয়া উচিত সেই সম্পর্কে একটা সাধারণ ধারণা এদের থাকে।

যখনই দরকার পড়ে এরা নিজেদের বিবাদের মুখোমুখি দাঁড়ায়। যখনই কোনো সমস্যা তৈরি হয়, এরা নিজেদের মধ্যে পরিষ্কারভাবে কথাবার্তা বলে। কিছু কিছু ব্যাপারে এরা খুবই প্রতিযোগিতামুখী হয় যা দায়ী এদের হয় ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ের জন্য। কিন্তু এই ধরনের দম্পতিদের বিশেষত্ব হলো এরা নিজেদের সমস্যাকে যেতে দেয়। এরা শান্ত হয়ে যায় এবং আপস করে নেয় এবং পুরোনো বাসযোগ্য পরিবেশে পুনরায় ফিরে আসে।

৪. “আমিই ঠিক!”

এই ধরনের বিবাহিত দম্পতির ক্ষেত্রে, দুই পার্টনারের মধ্যেই অতিমাত্রায় আত্মরক্ষামূলক হাবভাব থাকে এবং এরা নিজেদের বুঝিয়ে রাখে যে “আমিই ঠিক!” সাধারণত, এইসব ক্ষেত্রে প্রায়শই 'তুমিই সবসময়’ এবং 'তুমি কখনো'-এর মতো কথাবার্তার দ্বারা এরা একে অপরকে দোষারোপ করে থাকে। ঝগড়ার সময়ে, প্রত্যেক পার্টনারই নিজের নিজের দৃষ্টিভঙ্গিকে তুলে ধরে অন্য পার্টনারের সমর্থন বা বোঝাপড়া ছাড়াই। এরা একে অপরের প্রতি এক শীতল উদাসীনতার বিকাশ ঘটায়। এই ধরনের দম্পতিদের সংঞ্জা হলো যে এরা মনের গভীর সমস্যাগুলির সাথে মোকাবিলা করতে অপারগ।


৫. সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন দম্পতি

এটা খানিকটা দুই ভিন্ন সেনাবাহিনীর দুই মানুষের বিয়ে হওয়ার মতোই। এই বিবাহে থাকে দুটি সম্পূর্ণ ভিন্ন ব্যক্তিত্ব এবং তাদের তাদের ঝগড়া ও ভুল বোঝাবুঝির দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। নিতান্তই নগন্য ব্যাপারে এরা ঝগড়াঝাঁটি করে এবং ঝগড়ার সময়ে, এরা একে অপরকে আঘাত করে। এরা সবথেকে হতাশাগ্রস্ত দম্পতি হয় যারা মানসিকভাবে একে অপরের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়। প্রতিকূল হওয়ার সাথে সাথেই, এরা নিজেদের মনের ঝামেলা ও সমস্যাগুলি যা এদের পার্টনারের মনে গভীর ক্ষত সৃষ্টি করছে তা নিয়ে আলোচনা করতে ব্যর্থ হয়।

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon