Link copied!
Sign in / Sign up
63
Shares

১১ মাসের শিশুর খাদ্য চার্ট

সোমবার

ভর বেলায় স্তনদুগ্ধা দিয়ে শুরু করবেন তারপর সকালে দেবেন ডালিয়ার খিচুরি। দুপুরে প্রথমে স্তন্যপান করিয়ে তারপর দেবেন ভাত-ডালও মাছ ভাজা। সন্ধ্যে বেলায় ফল দেবেন ও রাতে পনীরের দোসা। ঘুমোনোর আগে স্তন্যপান করিয়ে নেবেন।

মঙ্গলবার

সকালে স্তনদুগ্ধের পর ইদলি বা দোসা দেবেন, দুপুরে দই ভাত ও সন্ধ্যে বেলায় গাজর বা আলুর তরকারী। রাতে কলা বা ওটস এর জাউ দেবেন এবং ঘুমোবার আগে স্তনদুগ্ধ।

বুধবার

সকালে পাস্তা ও চীস দিতে পারেন। দুপুরে মুগ ডালের খিচুরিও ডিমের অমলেট, সন্ধ্যে বেলায় কলার প্যানকেক ও রাতে নানান ধরণের পরোটা। সকালে ঘুম থেকে উঠে, দুপুরে খাওয়ার আগে ও রাতে শোয়াবার আগে স্তন্যপান করাতে ভুলবেন না।

বৃহস্পতিবার

সকালের রাগী দিয়ে তৈরী দোসা বা সবুজ মটরের দোসা হতে পারে। দুপুরে ভাত ও সম্বর দল দেবেন, বিকেলে গাজর ও আপেলের সুপ ও রাতে রুটি সবজি।স্তন্যপান রোজকার মত তিনবার সময়ে সময়ে করাবেন।

শুক্রবার

সকালে গমের দোসা দেবেন, রাতে ও দুপুরে ভাত বা ইডলি এবং বিকেলে আপেলের মিল্কশেক। সকালে, দুপুরে ও রাতে স্তন্যপান করাতে ভুলবেন না।

শনিবার

সপ্তাহের শেষে খাদ্য একটু মজাদায়ক করুন। সকালে পাঁউরুটি অমলেট, দুপুরে ঘি ভাত ও ডিমের ভুর্জি বা ছোট মাছের ঝোল, বিকেলে দই দিয়ে ফলের মিল্কশেক ও রাতে যে কোনো ধরণের দোসা। তিন বেলা স্তন্যপান করাতে ভুলবেন না!

রবিবার

সকালে সুজির উপমা, দুপুরে ডাল ভাত ও ভাল করে সেদ্ধ করা মুরগির মাংসের পাতলা ঝোল, বিকেলে লাট পনীরও রাতে ব্রেড উপমা। স্তন্যপান কিন্তু অবশ্যই করবেন।

যদিও বাচ্চাদের শক্ত খাবার দিচ্ছেন সেটিকে একটু পিটিয়ে নরম করে দেবেন। শিশুর দাঁত গজালেও মা বাবাকে খেয়াল রাখতে হবে খাবার গলায় না আটকে যায়। 

Click here for the best in baby advice
What do you think?
0%
Wow!
0%
Like
0%
Not bad
0%
What?
scroll up icon